যে সুখবর দিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব

যে সুখবর দিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান ও সহকারী শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য দূর করার প্রস্তাব নাকচ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। তবে হাল ছাড়েনি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ ব্যাপারে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আকরাম আল হোসেন বলেছেন, আমরা এখনো হাল ছেড়ে দেইনি। প্রয়োজনে শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির জন্য যা করা দরকার তাই করা

পাবলিক পরীক্ষায় থাকছে না জিপিএ-৫, সর্বোচ্চ জিপিএ ৪

পাবলিক পরীক্ষায় গ্রেডিং পদ্ধতি সংস্কার করা হচ্ছে। জেএসসি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত একই গ্রেডিং পদ্ধতি বাস্তবায়ন করা হবে। পুরনো পদ্ধতি জিপিএ ৫-এর পরিবর্তে নির্ধারণ করা হয়েছে জিপিএ ৪। রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে গ্রেড

প্রাথমিকে তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা থাকছে না

আগামী বছর থেকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত বার্ষিক পরীক্ষা নেয়া হবে না। শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে ক্লাস পরীক্ষার মাধ্যমে। বৃহস্পতিবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সচিব