Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ , সময়- ১০:২৭ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
তথ্য প্রযুক্তি খাতে প্রকৃত উন্নয়নের চেয়ে প্রচার বেশি বিএনপি সঙ্গে ঐক্য গড়ে কী পেলেন ড. কামাল, হারালেন পুরোনো ও পরীক্ষিত বন্ধুদের সিএমএইচে ভর্তি প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম  ‘#মি টু’ আন্দোলনের মুখে শেষ পর্যন্ত পদত্যাগে বাধ্য হলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী  শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে দুই নারী জঙ্গির আত্মসমর্পণ, অপারেশন সমাপ্তি ঘোষণা বঙ্গবন্ধু শহীদ ছোট ছেলে শেখ রাসেলের ৫৪তম জন্মদিন, আগামীকাল | প্রজন্মকণ্ঠ জাতীয় ঐক্যকে ‘জগাখিচুড়ি’ বললেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নরসিংদীর মাধবদীতে জঙ্গি আস্তানা নিলুফা ভিলা থেকে দুই জঙ্গির আত্মসমর্পণ  আত্মসমর্পণের আহ্বান : সাড়া দিচ্ছে না 'নিলুফা ভিলা'য় অবস্থানরত জঙ্গিরা, যোগাযোগের চেষ্টা চলছে  বৈশ্বিক প্রতিযোগিতা সক্ষমতা সূচকে এক ধাপ পিছিয়েছে বাংলাদেশ । প্রজন্মকণ্ঠ 

শুরু রংপুর সিটি করপোরেশন ভোটের লড়াই


অনলাইন ডেস্ক

আপডেট সময়: ২১ ডিসেম্বর ২০১৭ ৯:৫৫ এএম:
শুরু রংপুর সিটি করপোরেশন ভোটের লড়াই

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়রছে বহুল আকাংক্ষিত রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোট গ্রহণ। বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ চলবে।

এবার রংপুর সিটিতে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৯৯৪। গতবারের চেয়ে ভোটার বেড়েছে ২৪ হাজার। ভোট গ্রহণের কেন্দ্র ১৯৩টি। এর মধ্যে ১২৮ কেন্দ্রকে গুরুত্বপূর্ণ বা ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত করেছে নির্বাচন কমিশন। রংপুর সিটিতে এবার দলীয় প্রতীকে প্রথমবার ভোট হচ্ছে।

জাতীয় নির্বাচনের জটিল সব সমীকরণ সামনে রেখে আজ রংপুরে ভোটের লড়াইয়ে রয়েছে তিন প্রধান রাজনৈতিক দল। জাতীয় পার্টি এই নির্বাচনকে ‘প্রধান বিরোধী দল’ প্রমাণের সুযোগ হিসেবে নিয়েছে। হার-জিতের হিসাবের চেয়ে জাতীয় পার্টির সঙ্গে সুসম্পর্ক রক্ষা এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের সুনাম অর্জনই মূল লক্ষ্য সরকারি দল আওয়ামী লীগের। আর রংপুরে বরাবরই ‘দুর্বল ‘বিএনপি এবার ভালো কিছু করে সরকারকে একটি বার্তা দিতে চাইছে। প্রতিদ্বন্দ্বী এই তিন দলের নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে কথা বলে এমন মনোভাব জানা গেছে।

নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা আগেই শেষ হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুর থেকে পিকআপে করে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পুলিশি পাহারায় ব্যালট পেপার আর ব্যালট বাক্স পাঠানো হয়। ভোটের আগের দিন এখানে-সেখানে প্রার্থীদের পোস্টার ছাড়া বাড়তি কোনো উচ্ছ্বাস-উত্তেজনা দেখা যায়নি।

ভোটার, স্থানীয় রাজনীতিক ও প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে দুই ধরনের ধারণা পাওয়া যায়। এক. এই নির্বাচন মোটামুটি সুষ্ঠুই হবে। দুই. ভোটারদের মধ্যে দলের চেয়ে ব্যক্তি সুনাম বেশি প্রাধান্য পাচ্ছে। জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান গত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র হিসেবে লড়েও দ্বিতীয় অবস্থানে ছিলেন। এ কারণে তাঁকে নিয়ে ভোটারদের মধ্যে আলোচনাটা বেশি। আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও সদ্য সাবেক মেয়র সরফুদ্দীন আহম্মেদ ও বিএনপির কাওছার জামানও এই নির্বাচনে বেশ আলোচিত।

নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার ধারণার পেছনে এখন পর্যন্ত বড় ধরনের সংঘাত না হওয়াকে কারণ মনে করছেন স্থানীয় লোকজন। নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু হয়েছে গত নভেম্বর থেকে। কিন্তু এ পর্যন্ত প্রতিদ্বন্দ্বীদের মধ্যে উল্লেখ করার মতো কোনো সংঘাত-সহিংসতা হয়নি।

সরকার ও আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল উচ্চপর্যায়ের সূত্র জানিয়েছে, হার-জিত যা-ই হোক, দলের উচ্চপর্যায় থেকে সুষ্ঠু ভোটের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আর স্থানীয় প্রশাসনও সুষ্ঠু ভোটের বিষয়ে রাজনৈতিক দলগুলোকে ইঙ্গিত দিয়েছে। আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টিও বিশ্বাস করে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। এ কারণে দলের চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের দরকার নেই বলে মন্তব্য করেছেন।

আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী সূত্র বলছে, জাতীয় পার্টিকে বিএনপির বিকল্প শক্তি হিসেবে দাঁড় করানোর একটা প্রবণতা দীর্ঘদিন ধরেই আওয়ামী লীগের আছে। আর অভ্যন্তরীণ জরিপ বলছে, আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাতীয় পার্টির প্রার্থীর চেয়ে পিছিয়ে। তাই জবরদস্তি করে রংপুরে জয়ী হওয়ার চেয়ে জাতীয় পার্টিকে উজ্জীবিত রাখাকেই ভালো বিকল্প মনে করছে সরকারি দল। এর মাধ্যমে এই সরকার ও নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব, এটাও দেখানো যাবে। এ জন্য রংপুরে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কেন্দ্রীয় নেতাদের দৌড়ঝাঁপ কম দেখা গেছে।

এরশাদের কারণে রংপুর জাতীয় পার্টির দুর্গ হিসেবে পরিচিত। কিন্তু বিগত কয়েক বছরে জাতীয় সংসদ ও স্থানীয় সরকারে আওয়ামী লীগ এর দখল নিয়েছে। গত নির্বাচনে জেলার ছয়টি সংসদীয় আসনের চারটি পেয়েছে আওয়ামী লীগ। বাকি দুটি জাতীয় পার্টি। জেলার তিনটি পৌরসভার তিনটিই আওয়ামী লীগের দখলে। আটটি উপজেলার চারটি আওয়ামী লীগের, তিনটি বিএনপির, আর একটি জামায়াতে ইসলামীর। জাতীয় পার্টি একটিতেও জিততে পারেনি। ৭৬টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ৫৮টি আওয়ামী লীগের। বাকিগুলো বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতের। অর্থাৎ রংপুরের নির্বাচনী রাজনীতিতে জাতীয় পার্টি গত চার বছরে কোনো প্রভাব ফেলতে পারেনি।

রংপুর সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে দলের ১৬ জন ফরম সংগ্রহ করেছিলেন। নানা জরিপ, দলীয় বিশ্লেষণ করে দলীয় নীতি-নির্ধারকেরা মনে করেছেন, দলীয় ভোটের বাইরে ব্যক্তিগত ভোটে সরফুদ্দীন আহম্মেদ এগিয়ে। তাঁকেই মনোনয়ন দেওয়া হয়। তিনি গতবার ১ লাখ ৬ হাজার ভোট পেয়ে মেয়র হন। কিন্তু দলে তাঁর বড় কোনো পদ নেই। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য।

জাতীয় পার্টির প্রার্থী ও দলের মহানগর কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান গত সিটি নির্বাচনে দলের সমর্থন না পেলেও দ্বিতীয় হয়েছিলেন, ভোট পান প্রায় ৭৮ হাজার। তাঁর ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা রয়েছে।

আর বিএনপির মহানগর সহসভাপতি কাওছার জামান গত নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে ২১ হাজার ভোট পেয়েছিলেন। এবার দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কেন্দ্রীয় নেতারা লাগাতার প্রচার চালিয়েছেন। প্রধান সমন্বয়ক দলের ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাছান মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, প্রথম দিন থেকেই বিএনপির প্রার্থীর সঙ্গে বৈষম্য হয়েছে। সবার জন্য সমান মাঠ ছিল না। নির্বাচন সুষ্ঠু হলে হার-জিত যাই হোক মেনে নিতে সমস্যা নেই।

অবশ্য রংপুরে প্রচারে এসে গত সোমবার ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছিলেন, ‘এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে সরকার পরিবর্তন হবে না। কিন্তু এর মধ্য দিয়ে সরকারকে একটা বার্তা দিতে পারি যে দেশের জনগণ তোমাদের আর চায় না।’

কয়েক দিন ধরে স্থানীয়ভাবে গুঞ্জন আছে যে এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সঙ্গে রাজনৈতিক মিত্র জাতীয় পার্টির একরকম সমঝোতা হয়েছে। এ কারণে আওয়ামী লীগ খুব একটা তৎপর নয়। এর পক্ষে যুক্তি হিসেবে স্থানীয় রাজনীতিকেরা বলছেন, জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থীর অবস্থান অনেকটাই সুস্পষ্ট। কিন্তু দলটি ৩৩টি ওয়ার্ডের মাত্র ১৫ টিতে প্রার্থী দিয়েছে। অথচ ৩৩টি ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের মনোনীত ও বিদ্রোহী মিলে প্রার্থী হয়েছেন ৯৯ জন। বিএনপির কাউন্সিলর প্রার্থীর সংখ্যা ১৮ জন। সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে সমঝোতা করে জাতীয় পার্টি সব ওয়ার্ডে প্রার্থী দেয়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব ও সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জিয়াউদ্দিন আহম্মেদ বলেন, ‘আমরা মেয়রের দিকে বেশি মনোযোগ দিয়েছি, তাই সব ওয়ার্ডে প্রার্থী দিইনি।’

নগরীর ১৮টি ওয়ার্ড একসময় ইউনিয়ন ছিল। গত নির্বাচনেই সেগুলো সিটি করপোরেশনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। গত পাঁচ বছরে এসব ওয়ার্ডে তেমন কোনো উন্নয়ন হয়নি। এই ১৮টি ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৭৫ হাজার।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top