Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ , সময়- ১:৪০ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
ড. কামাল হোসেনের গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় মামলা সারা দেশে ব্যাপক শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় বিজয় দিবস উদযাপন বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টকে ভোট না দেয়ার আহ্বান খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে সংগ্রাম চলছে, চলবে : ফখরুল  ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভোটারদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন প্রধানমন্ত্রী বিজয় দিবসে একাত্তরের বীর শহীদদের প্রতি প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা গণমানুষের শেখ মুজিব, ইতিহাসের মহানায়ক বিজয় দিবসের বীর শ্রেষ্ঠরা বীরত্বের এক অবিস্মরণীয় দিন, মহান বিজয় দিবস আজ নির্বাচনে নিরাপত্তার ছক চুড়ান্ত করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী

জলে স্থলে পার্বত্য অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠা করেছেন শেখ হাসিনাঃ ওমর ফারুক চৌধুরী

জিয়া ছিলেন স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের বড় শত্রুঃ শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি


অনলাইন ডেস্ক

আপডেট সময়: ৩০ ডিসেম্বর ২০১৭ ৯:০২ এএম:
জিয়া ছিলেন স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের বড় শত্রুঃ শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি

মৃত্যুঞ্জয়ী বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকারের নেতৃত্বে বিশ্বে উদিয়মান বাংলাদেশঃ দক্ষিন সিটির মেয়র সাঈদ খোকান

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ এর উদ্যোগে আজ  ২৮ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ৯.৩০ টায় গুলিস্থান মহানগর নাট্ট মঞ্চ এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়, প্রধান অতিথির বক্তব্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর প্রেসিডিয়াম মেম্বর শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি বলেন বঙ্গবন্ধু মানে বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু মানে স্বাধীনতা, বঙ্গবন্ধু জন্ম না হলে আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ পেতাম না। বিজয়ের এই দিনে বঙ্গবন্ধুকে স্বরণ করে তিনি বলেন, পাকিস্তানের কারাগারে থেকে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, আমি মুসলমান মৃত্যুকে ভয় করিনা, আমাকে হত্যা করা হলে আমার লাশ স্বাধীন বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিও। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দূরর্দশিতা ও প্রজ্ঞা ছিল অপরিসীম। তিনি জানতেন বাংলাদেশ স্বাধীন হবেই। ৬ দফার আন্দোলন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে যখন চুড়ান্ত সফলতার পথে এগিয়ে যায় ঠিক তখনি পাকিস্তানি হায়েনারা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। তাকে ফাঁসিতে ঝুলানোর পরিকল্পনায় তারা মিথ্যা মামলা সহ সেনা আইনে গ্রেফতার করা হয়। তিনি বলেন, ৭মার্চ বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষনা দিয়ে গিয়েছিলেন। রাষ্ট্রভাষা বাংলা নিয়ে বঙ্গবন্ধু যে সংগ্রাম শুরু করেছিল। বলার অধিকার আদায়ের সংগ্রামে পরবর্তীতে ৬দফার আন্দোলন সহ ৬৯এর গণঅভ্যূত্থানে মানুষকে মুক্তিযুদ্ধে উদ্বুদ্ধ করেন। তিনি বলেন, ৭০ এর নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু মেজরিটি পার্টির নেতা নির্বাচিত হলেন। কিন্তু পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠী সে বিজয় মেনে নিতে পারেনি। তিনি বলেন, বাংলার শোষিত অত্যাচারিত অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে ৭ মার্চ তিনি ঘোষনা করেন। এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতা সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম। মুক্তিযুদ্ধের সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়েই বঙ্গবন্ধু ৬দফার আন্দোলন এগিয়ে নিতে বলেন। ৬ দফার বিপরীতেই ছিল স্বাধীনতার এক দফা। তিনি বলেন, জিয়া ছিলেন স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের বড় শত্রু। স্বাধীনতা বিরোধীরা মিলেমিশে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করে দেশকে ধ্বংসের পথে নিয়ে যেতে চায়। তিনি যুবলীগকে পরাজিত শত্রুদের থেকে সতর্ক হয়ে এদের প্রতিহতের আহবান জানান।

বিজয়ের মাসে বঙ্গবন্ধু পরিবার সহ দেশবাসীকে শ্রদ্ধা জানিয়ে যুবলীগ চেয়ারম্যান নতুন বছরের সূর্যকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, নতুন বছরে বাঙ্গালীর স্বপ্নকে বাস্তবে রূপদিতে পারেন রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। জলে স্থলে পার্বত্য অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠা করেছেন রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। সহিংসতা ছাড়া শান্তির বাণী বয়ে এনে দেশের উন্নয়ন ঘটিয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। যুব সমাজের নেতৃত্বে আজ কৃষি শিল্পসহ সকল ক্ষেত্রে উন্নয়নের জোয়ারে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। যুবলীগ আন্দোলন ও সংগঠনে বিশ্বাসী। যুবলীগ আজ সর্বোচ্চ শক্তিশালী সংগঠনে পরিনত হয়েছে। যুবলীগের শক্তিকে কাজে লাগানো গেলে ও রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার মূল্যবোধকে কাজে লাগানো গেলে আমাদের কোথাও হারতে হবেনা। যুব ও তরুণ সমাজকে সঠিক পথে কাজে লাগাতে হবে মূল্যায়ন করতে হবে। যুবলীগ চায় তারুণ্যের বিকাশ। এটাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। বিশ^ শান্তির স্লোগান যুবকদের কর্মসংস্থানের প্রয়োজনে চাকুরীর বয়সসীমা বাড়ানোর আহবান জানিয়ে তিনি বলেন- যুবলীগের গবেষণায় উঠে এসেছে, বিএনপির ইউনিয়ন গ্রাম পর্যায়ে কোন কমিটি ছিল না। তারা অল্প সময়ে এসব কমিটি গঠন করে সংগঠনকে শক্তিশালী করে তুলেছে। তাদের প্রতিহত করার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন খালেদা জিয়া চোর, তারেক জিয়া ডাকাত।

দক্ষিন সিটির মেয়র সাঈদ খোকান বলেন, রাজনীতি কোন মৃশ্রন পথ নয় । অন্ধকার পথ পেরিয়ে রাজনীতি করতে হয়। দীর্ঘ ৪৭ বছরের পথ চলায় নানা বাধা বিপত্তি পেরিয়ে মৃত্যুঞ্জয়ী বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকারের নেতৃত্বে বিশ্বে উদিয়মান বাংলাদেশ। বাংলাদেশ কে উন্নয়নের রেড মডেল উল্লেখ করে তিনি ১২৬টি দেশে  আজ বাংলাদেশি পন্য রফতনি হয় । পোশাক শিল্পে সারা পৃথিবী জুড়ে বাংলাদেশের বাজার সৃষ্টি হয়েছে। গত আড়াই বছরে ঢাকা সিটিকে বদলে দেয়া হয়েছে। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে যুবলীগের নেতৃত্বে ৬৫ শতাংশ যুবক সুন্দর বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যাশা জানিয়ে তিনি বলেন আগামীর সোনার বাংলা আমরাই গড়বো।

যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী সভাপতিত্ব ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ হারুনুর রশীদ এর পরিচালনায় আরো বক্তব্য রাখেন যুবলীগ সাঃ সম্পাদক মোঃ হারুনুর রশীদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য শহীদ সেরনিয়াবাত, মুজিবুর রহমান চৌধুরী, মোঃ ফারুক হোসেন, মাহবুবুর রহমান হিরণ, মোঃ আতাউর রহমান, মোখলেসুর রহমান হিরু, শেখ আতিয়ার রহমান দিপু, যুগ্ম সম্পাদক মহিউদ্দিন আহমেদ মহি, সুব্রত পাল, নাসরিন জাহান শেফালী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক আতিক, মুহাঃ বদিউল আলম, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য কাজী আনিসুর রহমান, মিজানুল ইসলাম মিজু, নির্বাহী সদস্য রওশন জামির রানা, কেন্দ্রীয় নেতা রেকায়েত আলী খান নিয়ন, ডাঃ মাহফুজার রহমান উজ্জল, ঢাকা মহানগর যুবলীগ উত্তর সভাপতি মাইনুল হোসেন খান নিখিল, দক্ষিণ সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট, উত্তর সাঃ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, দক্ষিণ সাঃ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা প্রমূখ।

          বার্তা প্রেরক
   কাজী আনিসুর রহমান
        দপ্তর সম্পাদক
বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top