Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৮ , সময়- ১০:২৭ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
তরুণী ও কম বয়সী রোহিঙ্গা মেয়েরা পাচারের শিকার হচ্ছে : জাতিসংঘ যারা বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছেন তারা বিকল্পধারার কেউ নন : মাহী বি চৌধুরী  আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের স্বাধীনতা এখনও পুরোপুরি অর্জন করতে পারিনি : রাষ্ট্রপ্রতি সর্বত্র মানুষের মঙ্গলের সুযোগ করে দিতে শেখ হাসিনার সরকার কাজ করছে : অর্থমন্ত্রী  সংস্কৃতি অঙ্গনে কালো ছায়া নেমে এলো | প্রজন্মকণ্ঠ চার দিনের সরকারি সফর শেষে দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী আজ | প্রজন্মকণ্ঠ পবিত্র ওমরাহ পালন করেছেন প্রধানমন্ত্রী, দেশবাসীর জন্য দোয়া প্রার্থনা | প্রজন্মকণ্ঠ গিটারের জাদুকরকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে ভক্তদের কান্না আর ফুলেল শুভেচ্ছা প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হচ্ছে আজ ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা | প্রজন্মকণ্ঠ আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন সংগীত যোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী : ওবায়দুল কাদের

ছাগলনাইয়ায় জেডিসি'তে শত ভাগ পাশ করা একমাত্র প্রতিষ্ঠান


কাজী আশিকুল ইসলাম, ফেনী (ছাগলনাইয়া)

আপডেট সময়: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭ ৯:৩৯ এএম:
ছাগলনাইয়ায় জেডিসি'তে শত ভাগ পাশ করা একমাত্র প্রতিষ্ঠান

বরাবরের মত এইবারও ছাগলনাইয়ার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান উত্তর কুহুমা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার জেডিসি পরীক্ষায় শতভাগ পাশ করেছে। এ ফলাফলে খুশিতে আত্মহারা হয়েছেন শিক্ষক-ছাত্র/ছাত্রী, অভিভাবকসহ মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির সদস্যবৃন্দ। জেডিসি পরীক্ষার ২০১৭সালের উক্ত মাদ্রাসা হতে মোট ৩৯জন পরীক্ষার্থী অংশ গ্রহণ করে। একজন এ+সহ শতভাগ পাশের গৌরভ অর্জন করেছে এ প্রতিষ্ঠানটি।

প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মাওলানা আনোয়ার হোসেন ও সহকারী শিক্ষক রেজাউল করিম মিডিয়াকে জানান, আমাদের এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক/শিক্ষিকা, ছাত্র/ছাত্রী ও অভিভাবকদের অক্লান্ত পরিশ্রমে এইভারেও জেডিসি পরীক্ষায় পাশ শতভাগ অর্জন করতে সহজ হয়েছে। আগামীর পরীক্ষাগুলোসহ আসন্ন দাখিল পরীক্ষায়ও এ শতভাগ পাশের ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে ইনশাআল্লাহ।

উত্তর কুহুমা ইসলামিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি খুরশিদের রহমান চৌধুরী মিডিয়াকে মোবাইল ফোনে জানান, উক্ত প্রতিষ্ঠানে এ অসাধারণ রেজাল্টের জন্য আমি সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। আমি যখন উত্তর কুহুমা উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি ছিলাম তখন ওই স্কুলটিও ফেনী জেলার মধ্যে সেরা রেজাল্ট করতে সক্ষম হয়েছে। ৩জন ট্যালেন্টপুল ও ৪জন সাধারণে বৃত্তি পেয়েছিল। কিন্তু তখনকার সময়ের এই মাদ্রাসাটিতে রেজাল্ট খারাপ থাকায় গ্রামবাসী আমাকে মাদ্রাসার সভাপতি নির্বাচিত করে। আমি নির্বাচিত হওয়ার পরপরই উক্ত মাদ্রাসার অনেক গুলো নিয়ম কানুন পরিবর্তন করি। যার ফল হিসেবে আজকের এই রেজাল্ট। আমি আশা করব আগামীতেও সব ধরনের পরীক্ষাসহ আসন্ন দাখিল পরীক্ষায় এ শতভাগ পাশের ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে ইনশাআল্লাহ। শতভাগ রেজাল্টের কৃতৃত্ব আমি মাদ্রাসার সুপারসহ সকল শিক্ষকদের দিতে চাই


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top