Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮ , সময়- ৯:৫১ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
এরশাদের বিরুদ্ধে করা মঞ্জুর হত্যা মামলার প্রতিবেদন দাখিল, আগামী ১৮ নভেম্বর নির্বাচন সামনে রেখে শিগগিরই সারাদেশে অবৈধ অস্ত্রের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান শুরু জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে ২৮ রানে জয় পেলো বাংলাদেশ  সাম্প্রতিক সৌদি আরব সফর : প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন, আগামীকাল গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটির জন্য চালু হচ্ছে ঢাকা-কালিয়াকৈর ট্রেন সার্ভিস শিগগিরই ছোট হচ্ছে মন্ত্রিসভা আপনার কথায় অস্ট্রেলিয়ায় থাকা আমার মেয়েও লজ্জিত : মঈনুলকে ফোনে মির্জা ফখরুল  আমরা আর দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ান হতে চাইনা, সমৃদ্ধ উন্নত বাংলাদেশ চাই : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  সিলেটে সমাবেশ করার অনুমতি পেয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট  ইমরুলের সেঞ্চুরিতে ৮ উইকেট হারিয়ে টাইগারদের সংগ্রহ ২৭১ রান

পুরুষ অভিভাবক ছাড়াই হজে যেতে পারবে মুসলিম নারীরা : মোদি


অনলাইন ডেস্ক

আপডেট সময়: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭ ৫:৫৩ পিএম:
পুরুষ অভিভাবক ছাড়াই হজে যেতে পারবে মুসলিম নারীরা : মোদি

পুরুষ অভিভাবক ছাড়াই মুসলিম নারীরা এবার থেকে হজ্ব যাত্রা করতে পারবে বলে জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। পুরুষ অভিভাবক সঙ্গীদের সাথে নিয়ে মুসলিম নারীদের হজে যাওয়ার অনুমতি প্রদানের বিষয়টিকে ‘অবিচার’ বলে আখ্যায়িত করে নরেন্দ্র মোদি জানান, তাঁর সরকার এই বিধিনিষেধ তুলে দিয়েছে এবং এর ফলে ইতিমধ্যেই কয়েক শতাধিক মুসলিম নারী এককভাবেই হজ্বে যাওয়ার জন্য আবেদন জানিয়েছেন।

রবিবার রেডিওতে ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘কেন এই বৈষম্য? আমি যখন গভীরভাবে এই বিষয়টি নিয়ে চিন্তাভাবনা করলাম, আমি তখন অবাক হয়ে গিয়েছি। স্বাধীনতা লাভের ৭০ বছর পরেও আমরা এই ধরনের একটি নিষেধাজ্ঞা জারি করে রেখেছি। কয়েক দশক ধরে মুসলিম নারীদের প্রতি এই অবিচার চলে আসছে, কিন্তু এটা নিয়ে কোন আলোচনা হয়নি’।

অনেক মুসলিম রাষ্ট্রেই যে এই নিষেধাজ্ঞার কোনো প্রচলন নেই সেকথাও এদিন মনে করিয়ে দেন নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেন ‘এটা আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে যে যদি কোন মুসলিম নারী হজ্বে যেতে যান তবে তাঁকে অবশ্যই ‘মাহরাম’ কিংবা একজন পুরুষ অভিভাবককে সাথে নিয়ে যেতে হবে, না হলে তিনি হজ্বে ভ্রমণ করতে পারবেন না। এটা একটা বৈষম্যমূলক আচরণ। আমরা এই নিয়মের পরিবর্তন ঘটিয়েছি এবং চলতি বছরে কেরল থেকে উত্তর ভারত দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রায় ১৩০০ নারী হজ্বে যেতে চেয়ে আবেদন জানিয়েছেন। তাঁরা প্রত্যেকেই ‘মেহরাম’ বা অভিভাবক ছাড়াই হজে যেতে চাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন’। এই মুসলিম নারীরা যাতে এককভাবে হজ্বে যেতে পারেন তা নিশ্চিত করতে দেশটির সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রণালয়কেও পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। মন্ত্রণালয় সূত্রে খবর ৪৫ বছরের ঊর্ধ্ব মুসলিম নারীদের ৪ সদস্যের ‘মাহরাম’ গ্রুপ ছাড়াই হজ্বে যাত্রায় যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে। 

মোদি জানান, ‘সাধারণত লটারির মাধ্যমে হজ্ব যাত্রীদের বেছে নেওয়া হয়, কিন্তু আমি চাই একক নারীদের ক্ষেত্রে এই লটারি সিস্টেম প্রযোজ্য না করা এবং তাঁদেরকে স্পেশাল ক্যাটারিতে একটা সুযোগ দেওয়া উচিত’।

মোদির বিশ্বাস নারীর ক্ষমতায়ন এবং তাদের দক্ষতা, প্রতিভার ওপরই ভারতের অগ্রগতির যাত্রা সম্ভব হয়েছে... আমাদের নারীরা যাতে সমান অধিকার ও সুযোগ পায় সেটা নিশ্চিত করার জন্য আমাদের সর্বদা প্রচেষ্টা চালিয়ে যাওয়া উচিত’। 


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top