Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, বুধবার, ২৪ জানুয়ারী ২০১৮ , সময়- ৫:১১ অপরাহ্ন
Total Visitor:
শিরোনাম
রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শনে আসছেন ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট আজ ঐতিহাসিক ঊনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান দিবস ভোলায় দক্ষিণ এশিয়ার সর্বোচ্চ ওয়াচ টাওয়ার উদ্বোধন ২৯ জানুয়ারি সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ধর্মঘটের ডাক লিবিয়ায় জোড়া গাড়িবোমা হামলায় নিহত ৩৩ মেয়েকে এপিএস নিয়োগ দিলেন শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী স্পিকারের সঙ্গে সিইসির বৈঠক আজ তিন মাস নয়, ছয় মাসের জন্য স্থগিত ডিএনসিসি নির্বাচন তালেবানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পাকিস্তানের প্রতি যু্ক্তরাষ্ট্রের আহ্বান ঢাবির অবরুদ্ধ উপাচার্যকে উদ্ধার করল ছাত্রলীগ

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ভাঙন নিয়ে জল্পনা 


অনলাইন ডেষ্ক

আপডেট সময়: ১২ জানুয়ারী ২০১৮ ১০:৩২ এএম:
বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ভাঙন নিয়ে জল্পনা 

জাতীয় নির্বাচনের আগে বিএনপি-জামাত জোট দ্বন্দ্ব আরও বড় হল ৷ আসন্ন ছটি পুর নিগমের নির্বাচনে (সিটি কর্পোরেশন ভোট) একক প্রার্থী দেওয়া অব্যাহত রাখল জামাত ইসলামি ৷ আগেই তারা ঢাকা উত্তর পুর নিগমের নির্বাচনে প্রার্থী ঘোষণা করে বিতর্ক তৈরি করেছে ৷ ফলে চিন্তিত তাদের জোটসঙ্গী বিএনপি ৷
 
জাতীয় নির্বাচনের আগে সেমিফাইনাল হিসেবেই পুর নির্বাচনগুলি গুরুত্ব পাচ্ছে ৷ প্রতিটিতে যুযুধান দুই পক্ষ অর্থাৎ আওয়ামীলীগ ও বিএনপির মধ্যে সরাসরি লড়াই হবে ৷ আগেই রংপুরের মেয়র পদে জিতে গিয়েছে জাতীয় পার্টি (এরশাদ) গোষ্ঠী৷ এবার যে ছ’টি পুরসভায় নির্বাচন হতে যাচ্ছে সেগুলি হল, ঢাকা উত্তর, সিলেট, বরিশাল, খুলনা, রাজশাহী ও গাজীপুর৷ এদিকে জামাত ইসলামি একতরফা এই ছটি পুর নিগমে প্রার্থী দিতে তৈরি ৷ ফলে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ভাঙন নিয়ে জল্পনা আরও বাড়ল ৷

জামাত নেতৃত্ব জানিয়েছে, সব সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচনেই প্রার্থী দেওয়া হবে ৷ তবে জোটের স্বার্থে প্রার্থী তুলে নেওয়ারও পথ খোলা রাখা হয়েছে ৷ এদিকে আলোচনা না করেই এভাবে একতরফা প্রার্থী দেওয়ায় জামাত নিয়ে ক্ষোভ বাড়ছে ৷ যদিও সেসব মানতে নারাজ শীর্ষ জামাত নেতৃত্ব ৷ তাদের যুক্তি, আগে অনেক নির্বাচনে বিএনপি একাই প্রার্থী দিয়েছে এবং সেটা নিয়ে আলোচনা করেনি৷ এমনই জানাচ্ছে একাধিক বাংলাদেশি সংবাধমাধ্যম ৷
 
ইসলামি ছাত্র শিবির যে কোনও সময় বিশৃঙ্খল আন্দোলন তৈরি করে৷ আগেও বহু ক্ষেত্রে তেমন দেখা গিয়েছে ৷ মনে করা হচ্ছে, ফলে নির্বাচনের মুখে জামাতের মত সংগঠিত দলকে মেনে নেওয়া ছাড়া গতি নেই খালেদা জিয়ার ৷

একাধিক শীর্ষ জামাত নেতার বিরুদ্ধে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত ৷ তাদের ফাঁসি দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার ৷ তবে জামাত ইসলামির দাবি, বাংলাদেশের মাটিতে ইসলামি চিন্তাধারাকে রুখতেই এমন পদক্ষেপ নিয়েছে আওয়ামীলীগ সরকার ৷

সম্প্রতি দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্র চালানোর অভিযোগে গ্রেফতার করা হয় জামাত ইসলামির আমির (প্রধান) সহ আরও শীর্ষ নেতাদের ৷ পরে ভারপ্রাপ্ত নেতৃত্ব জানিয়ে দেয়, গোপনে নির্বাচনে অংশ নেবে দল ৷ তখনই প্রশ্ন উঠেছিল, যে সংগঠনটির রেজিস্ট্রেশন নিষিদ্ধ করা হয়েছে সে কী করে নির্বাচনে লড়তে পারে? বিতর্কিত এই বিষয়ে জোটের বড় শরিক বিএনপির অবস্থান স্পষ্ট নয়  ক্ষমতায় থাকা আওয়ামীলীগের দাবি, জামাত ছাড়া বিএনপি অচল হয়ে পড়বে ৷ তাই তাদের জোটে রেখে দিয়েছেন খালেদা জিয়া ৷ 

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে একতরফা প্রার্থী দিয়ে জামাত ইসলামি চমক তৈরি করেছে ৷ এই প্রার্থী দেওয়া নিয়ে জোটের বৈঠকে খালেদা জিয়াকে বিদ্ধ করেন অন্যান্য শরিক নেতৃত্ব৷ পরে বিএনপি জানায়, জটিলতা কাটাতে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ৷ তারপরেও জামাতের একতরফা প্রার্থী দেওয়া বন্ধ হয়নি ৷

জামাতের তরফে একতরফা প্রার্থী দেওয়া একটি রাজনৈতিক কৌশল ৷ দর কষাকষি করতেই প্রার্থী দিচ্ছে জামাত ৷ এমনই মনে করছেন ২০ দলীয় জোট নেতৃত্ব৷ তারা জানিয়েছেন, বিএনপির মধ্যেও বিষয়টি নিয়ে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top