Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, শনিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৮ , সময়- ১:২৭ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
গাজীপুর সিটি : মেয়র প্রার্থীদের হলফনামায় নির্বাচনী হিসাব ও আয়-ব্যয় কার কত ?   সাকিব, মুস্তাফিজুরদের সঙ্গে বছরে ৫০ লাখের চুক্তি করল ক্রিকেট বোর্ড রোহিঙ্গা সংকটে বাংলাদেশের প্রতি কমনওয়েলথের সংহতি প্রকাশ রানী এলিজাবেথের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা বিনিময় পরিবহন খাতের বিশৃঙ্খলা : আমি মন্ত্রী, আমি কি দায় এড়াতে পারব ? শান্তিরক্ষা মিশনে আত্মোৎসর্গকারী ৫ বাংলাদেশিকে স্মরণ করলো জাতিসংঘ খুলনা-গাজীপুরে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে ১৪ দলের সমর্থন টাইম ম্যাগাজিনে বিশ্বের ১০০ প্রভাবশালীর তালিকায় শেখ হাসিনা খুলনায় ৮শ’ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎ কেন্দ্র হবে শেখ হাসিনা ও মোদি বৈঠক : দ্বিপক্ষীয় বিষয় নিয়ে আলোচনা

প্রতিশ্রুতি দিয়ে ১৭ সাল শুরু হলেও শেষের দিকে বাস্তবায়িত হয়নি

নির্বাচনী বছরে অর্থনীতির ঝুঁকিও বাড়বে: সিপিডি


অনলাইন ডেষ্ক

আপডেট সময়: ১৩ জানুয়ারী ২০১৮ ২:১১ পিএম:
নির্বাচনী বছরে অর্থনীতির ঝুঁকিও বাড়বে: সিপিডি

চলতি বছরের শেষের দিকে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে। আর নির্বাচনকে ঘিরে অর্থনীতি বাড়তি ঝুঁকিতে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই এ ঝুঁকি মোকাবেলায় অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনায় রক্ষণশীল নীতিতে চলার পরামর্শ দিয়েছে করেছে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)। এছাড়া গত বছরের আর্থিক দুর্বলতা সূচক সম্পর্কে যেমন ব্যাংক দখল, অর্থপাচার, দারিদ্র ও  সম্পদের বৈষম্য কমানো, গুণগত প্রবৃদ্ধির বিষয়ে সমালোচনা করে সিপিডি।

শনিবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ‘বাংলাদেশ অর্থনীতি-২০১৭-১৮ অর্থবছর- প্রথম অন্তবর্তীকালীন পর্যালোচনা’ শীর্ষক মিডিয়া ব্রিফিংয়ে এসব মন্তব্য করেন সংস্থাটির গবেষকরা।

সিপিডির ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, অনেক প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০১৭ সাল শুরু হলেও শেষের দিকে সেই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়িত হয়নি। ব্যক্তিখাতের বিনিয়োগ বাড়েনি। প্রবৃদ্ধি হলেও দারিদ্র্য বিমোচনের হার কমেছে। ফলে আয় ও সম্পদ বৈষম্য বেড়েছে।

চলতি বছর সম্পর্কে তিনি বলেন, ২০১৮ সালের সব কর্মকান্ড নির্বাচনমুখী। আগের সংস্কার হওয়ার কথা থাকলেও তা হয়নি। চলতি বছর এমন ম্যাজিক্যাল কিছু ঘটবে না যাতে বড় ধরনের সংস্কার হবে। সংস্কার করার মত রাজনৈতিক পুঁজিও নাই। গত বছরের আর্থিক ব্যবস্থাপনার দুর্বলতার সঙ্গে চলতি বছরের নির্বাচনী বাড়তি ঝঁকি যোগ হবে। এজন্য রক্ষণশীল অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা কার্যকর করতে হবে। ঋণ কমাতে হবে, টাকার মূল্যমান ঠিক রাখতে হবে, মূল্যস্ফীতি বিশেষ করে চালের দাম কমাতে হবে। নির্বাচনী বছরে বহুমুখী চাপ  সামলাতে রাজনৈতি দুরদর্শিতা প্রয়োজন।

ব্যাংক খাত সম্পর্কে তিনি বলেন, ব্যাংকের সামগ্রিক সূচক আরও খারাপ হয়েছে। অপরিশোধিত ঋণের পরিমান বেড়েছে, প্রভিশন কমেছে, ঋণের টাকা কয়েক ব্যক্তির হাতে কেন্দ্রীভূত হয়েছে। সবচেয়ে বেশি আশঙ্কার জায়গা প্রশাসনিকভাবে ব্যাংকের মালিকানা পরিবর্তন হয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার দুর্বলতা কারণে এসব বিষয়ে কোন পদক্ষেপ বা সংস্কার করতে পারেনি। সংস্কারের উল্টো দিকে গেছে। ব্যাংক কোম্পানি আইন  সংশোধন করে পরিবারের হাতে ব্যাংকগুলোকে জিম্মি করার উদ্যোগ নিয়েছে। আগের রাজনৈতিক বিবেচনায় লাইসেন্স দেওয়া ব্যাংকগুলোর অবস্থা খারাপ হলেও নতুন করে আরও ব্যাংকের লাইসেন্স দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

তিনি বলেন, দেশের আর্থিক ব্যবস্থাপনার দুর্বলতার জন্য অর্থমন্ত্রণালয় দায়ী। অর্থমন্ত্রণালয়ের সংস্কারের উদ্যোমের অভাব ছিল। আন্তমন্ত্রণালয় সমন্বয় ঘটাতে পারেনি এবং সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা দুর্বল ছিল না।

সিপিডির সম্মাননীয় ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমদানির আড়ালে অর্থ পাচার হচ্ছে।  বিশেষ করে পোশাক শিল্পের কাঁচামাল তুলা আমদানি ৭৫ শতাংশ বেড়েছে। উত্পাদনের তার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। বিদেশি বিভিন্ন  সংস্থার হিসেবে বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর ৮ থেকে ৯ বিলিয়ন ডলার পাচার হচ্ছে। এর মধ্যে ৮০ ভাগই আমদানি-রপ্তানীতে মূল্যকারসাজির মাধ্যমে। বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংক  ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের  (এনবিআর) খতিয়ে দেখা উচিত।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড.ফাহমিদা খাতুন, গবেষণা পরিচালক খোন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বক্তৃতা করেন। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রিসার্চ ফেলো তৌফিকুল ইসলাম খান। মূল প্রবন্ধে বলা হয়, আমদানি ব্যয় অনেক বেড়েছে রপ্তানী আয় সেই হারে বাড়েনি। ফলে ব্যালান্স অব পেমেন্টে ঘাটতি হচ্ছে। টাকার মান কমেছে। সার্বিকভাবে সুদ হার কমলেও দেশের ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা এই সুবিধা পাননি। ঋণের  টাকা খেলাপি হয়ে গেছে। সরকার প্রতি বছর বিপুল পরিমান অর্থ জনগনের করের টাকা থেকে মূলধন যোগান দিচ্ছে। এখন বেসরকারি ব্যাংক থেকে বিদেশে অর্থ পাচার হচ্ছে।

এদিকে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বিষয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্তমান প্রেক্ষাপট অনুযায়ী প্রতিদিন যদি ৩০০ জন ফেরত পাঠানো হয়, তাহলে সময় লাগবে কমপক্ষে ৭ বছর এবং এতোদিনে খরচ হবে কমপক্ষে ৪৪৩ কোটি ৩০ লাখ ডলার। আর যদি প্রতিদিন ২০০ জন ফেরত পাঠানো হয়, তাহলে সময় লাগবে কমপক্ষে ১২ বছর। এতোদিনে খরচ হবে কমপক্ষে এক হাজার ৪৫ কোটি ৬০লাখ ডলার।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে সিপিডির ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রহমান, সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন, গবেষণা পরিচালক খোন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বক্তৃতা করেন। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রিসার্চ ফেলো তৌফিকুল ইসলাম খান।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top