Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, সোমবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৮ , সময়- ৭:১৩ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
গ্রেনেড হামলার মামলার রায়ে আমরা সন্তুষ্ট কিন্তু কিছু আপত্তি আছে : শাহরিয়ার আলম ড. কামাল বিএনপিতে যোগ দিয়েছেন, আলহামদুলিল্লাহ : খালেদা জিয়া জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে সেনাকর্মকর্তার থানায় সাধারণ ডায়েরি, তদন্তে ডিবি কেন কমিশন সভা বর্জন করেছেন কমিশনার মাহবুব তালুকদার দেশের অন্যতম বৃহত্তম পুজো হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে সিকদার বাড়ি গণমাধ্যমকর্মীদের সাপ্তাহিক কর্মঘণ্টা হবে সর্বোচ্চ ৩৬ ঘণ্টা  ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের দাবিতে সম্পাদকদের মানববন্ধন, পরিষদের সাত দফা দাবি  একটি কমিশন গঠনের প্রস্তাব রেখে ‘সম্প্রচার আইন, ২০১৮’ এর খসড়া অনুমোদন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে র‌্যাব : বেনজীর আহমেদ মজুরির নতুন কাঠামো বাস্তবায়নকে কেন্দ্র করে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের অভিযোগ

মেসির গোল বাতিল, জয় পেল না বার্সেলোনা


অনলাইন ডেস্ক

আপডেট সময়: ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ৯:১২ এএম:
মেসির গোল বাতিল, জয় পেল না বার্সেলোনা

বার্সেলোনার দুই প্রতিদ্বন্দ্বী মাদ্রিদের দল। তবে এ মৌসুমে রিয়াল কিংবা অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ লিগে প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়তে পারেনি বার্সেলোনার সঙ্গে। কিন্তু মাদ্রিদের গেটাফেই গড়ল দারুণ এক কীর্তি। ক্যাম্প ন্যুতে এসেও ম্যাচ ড্র করে গেছে তারা। শুধু তাই নয়, বার্সার দুর্দান্ত ফরোয়ার্ড লাইনকে হতাশ করে ৯০ মিনিট ধরে। গেটাফের লড়াকু মনোভাবের কাছে হার মেনে গোলশূন্য ড্র করেছে বার্সেলোনা।

এ মৌসুমে গেটাফে একটু মারদাঙ্গা ফুটবল খেলছে। এতে যে খুব একটা লাভ হচ্ছে তা নয়। তবে লিগে রেলিগেশন অঞ্চলের চেয়ে বেশ ওপরে আছে দলটি। বার্সেলোনার বিপক্ষে এই শরীর নির্ভর খেলাটা প্রথমার্ধে ভালোই কাজে লাগিয়েছে গেটাফে। বার্সেলোনার যে খেলোয়াড়ই প্রতিপক্ষের ডি-বক্সের কাছাকাছি এসেছেন, তাঁকেই ট্যাকলের শিকার হতে হয়েছে। এতটাই বুদ্ধিদীপ্ত সে ট্যাকল, বার্সেলোনার ছন্দময় পাসিং ফুটবল তাতে আটকে গেছে কিন্তু কোনো কার্ডও দেখতে হয়নি গেটাফেকে।

কিন্তু এই বুদ্ধি খাটিয়েও ৪৪ মিনিটে হলুদ কার্ডের হাত থেকে বাঁচতে পারেননি আরামবাররি। মেসিকে টানা দুই-তিনবার ফাউল করে ম্যাচের প্রথম হলুদ কার্ড দেখেছেন এই উরুগুইয়ান। সেখান থেকে পাওয়া ফ্রি কিক থেকে গোল করেছিলেন লুইস সুয়ারেজ। কিন্তু অফসাইডে বাতিল হয় সে গোল। তবে এর আগেই ম্যাচে এগিয়ে যেত পারত গেটাফে। ৪০ মিনিটে পরতিয়োর দারুণ এক থ্রু বল ধরে বার্সা ডি-বক্সে ঢুকে পড়েছিলেন অ্যাংহেল। কিন্তু এই ফরোয়ার্ডের শট ইয়েরি মিনার পায়ের ছোঁয়া নিয়ে পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে যায়।

তবে গেটাফের আসল পরীক্ষা শুরু হয় দ্বিতীয়ার্ধে। এ মৌসুমে যে শেষ ৪৫ মিনিটেই ভয়ংকর হয়ে ওঠে বার্সা। মেসি-সুয়ারেজরা দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে চেপে ধরেছিলেন গেটাফেকে। একের পর এক বার্সার আক্রমণ গেটাফে গোলরক্ষক ভিসেন্তে গুইতার সামনে গিয়ে থেমে যাচ্ছিল। উল্টো প্রান্তে মাঝে মধ্যেই পরীক্ষা দিতে হচ্ছিল মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেনকেও।

৫৮ মিনিটে কুতিনহোর একটি শট দুর্দান্তভাবে ঠেকিয়ে দিয়েছেন গুইতা। ৮০ মিনিটে মেসির শটও। ৮২ মিনিটে শেষ চেষ্টা হিসেবে পাউলিনহোকে নামান আরনেস্তো ভালভার্দে। কিন্তু ওউসমানে ডেমবেলের মতো হতাশাজনক পারফরম্যান্স না হলেও পাউলিনহো কিংবা ইনিয়েস্তাও বদলি নেমে ম্যাচের ভাগ্য বদলানোয় কোনো ভূমিকা রাখতে পারছিলেন না।

৯১ মিনিটে ডেমবেলের ক্রস থেকে গোল প্রায় দিয়েই দিয়েছিলেন সুয়ারেজ। কিন্তু তাঁর হেড অবিশ্বাস্যভাবে আটকে দিয়েছেন গুইতা। যোগ করা সময়ের শেষ মুহূর্তের ফ্রি কিকে উল্টো ম্যাচ জেতার সম্ভাবনা জাগিয়েছিল গেটাফে।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top