Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, রবিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৮ , সময়- ৮:০৯ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
অটলবিহারী বাজপেয়ীর অবস্থা সঙ্কটজনক আলোর গতিতে বাংলার আকাশ ছাড়িয়ে বহির্বিশ্বে বঙ্গবন্ধুর নাম গভীর শোক আর শ্রদ্ধায় জাতি স্মরণ করলো বঙ্গবন্ধুকে বাংলাদেশ সরকার গণগ্রেপ্তার চালাচ্ছে - এইচআরডব্লিউ : বিশ্লেষক প্রতিক্রিয়া বঙ্গবন্ধু হত্যায় জড়িত ছিল দেশি-বিদেশি আন্তর্জাতিক চক্র : সেলিম জাতীয় নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র চলছে : কামরুল নির্বাচনে বিশ্বাস করি, ভোটের লড়াই করে ক্ষমতায় যেতে চাই : মোহাম্মদ নাসিম কাবুলে আত্মঘাতী বোমা হামলার ঘটনায় ৪৮ জন নিহত এখন পর্যন্ত ৪০ বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু  বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম সারওয়ারকে শেষ বিদায় জানালেন বানারীপাড়াবাসী

বিচারের কাঠগড়ায় ইসরায়েলি সেনাকে ঘুষি মারা সেই তরুণী


অনলাইন ডেষ্ক

আপডেট সময়: ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ৬:৫৮ পিএম:
বিচারের কাঠগড়ায় ইসরায়েলি সেনাকে ঘুষি মারা সেই তরুণী

সাড়ে পাঁচ বছর আগের কথা। ফিলিস্তিনির ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে নিজের বাড়ির কাছে ইসরায়েলি সেনার অবৈধ দখলদারির প্রতিবাদ করেছিল সে। ইসরায়েলি সেনার গুলিতে প্রাণ হারিয়েছিল তার পনেরো বছরের ভাই। তাই ইসরায়েলের সেনার বিরুদ্ধে তার ক্ষোভ চেপে রাখতে পারেনি এই কিশোরী। এক সেনাকে সজোরে ঘুষি মেরে বসেন।

এর পরেই সেই কিশোরীকে গ্রেফতার করে ইসরায়েলি সেনা। হোক না বারো বছর বয়স, তাকে সাবালিকা হিসেবেই দেখেছে ইসরায়েলি। শেষ পর্যন্ত গত ডিসেম্বরের এক রাতে তাকে বাড়ি থেকে তুলে নেওয়ার পর জেলেই সময় কাটিয়েছে সে। কিছু দিন আগেই ১৭ বছরে পদার্পণ করেছে সে।

এ হেন আহেদ তামিনি, ইসরায়েলের কাছে খলনায়িকা হতে পারে, কিন্তু ফিলিস্তিনিদের কাছে সে এক স্বাধীনতা সংগ্রামী। বিশ্বের কাছেও সে এক 'আইকন'। ইসরায়েল যে তাকে সহ্য করতে পারে না, তার কারণ সে তাদের সেনা জওয়ানকে অপমান করেছে। তাই তার শাস্তি স্বরূপ ইসরায়েলের আদালতেই তার বিচার প্রক্রিয়া শুরু হবে। তার বিরুদ্ধে যে ধারা এনেছে ইসরায়েলে তাতে একাধিক বছরের জেল হতে পারে আহেদের।

তবে শুধু আহেদই নয়, এই মুহূর্তে অন্তত তিনশো ফিলিস্তিনির নাবালক নাবালিকা ইসরায়েলের জেলে রয়েছে। সবার বিরুদ্ধে 'অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের' অভিযোগ এনেছে ইসরায়েল। এত অল্প বয়সে কোনো রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে তারা কী অপরাধমূলক কাজ করবে সেটা সম্ভবত ইসরায়েলই জানে।

মেয়ের এই কীর্তিতে আদৌ চিন্তিত নন তার বাবা, বরং তিনি গর্বিত। গর্ব করেই তিনি বলেন, তার মেয়েকে কিছু দিন হয়তো জেলে রাখতে পারে ইসরায়েল। যে অভিযোগে আহেদের বিরুদ্ধে মামলা চলছে, একই অভিযোগ রয়েছে আহেদের মায়ের বিরুদ্ধেই। মেয়ের সাথে একই জেলে রয়েছে মা।

বাবা আশাবাদী, আহেদের বেশি সাজা দিতে পারবে না ইসরায়েল। কারণ ইতিমধ্যে অনলাইন আবেদনের মাধ্যমে ১৭ লাখ মানুষ আহেদকে সমর্থন জানিয়েছেন। বাবার মতে, এটাই হয়তো ফিলিস্তিনির ওপরে ইসরায়েলের দখলদারির শেষের শুরু।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top