Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৮ , সময়- ৬:১৭ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
কবি বেলাল চৌধুরীর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সাংবাদিকের ওপর নির্যাতনের ঘটনায় দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি কমিশনার    রানা প্লাজার ধস : ২৪ এপ্রিল শ্রমিক নিরাপত্তা দিবস ঘোষণার দাবি । প্রজন্মকণ্ঠ দেশের অর্থনীতি শিগগিরই ভারত, মেক্সিকো ও তুরস্কের মতো হবে : সজীব ওয়াজেদ  আজ সানরাইর্জাস হায়দরাবাদের মুখোমুখি মুম্বাই ইন্ডিয়ানস । প্রজন্মকণ্ঠ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর ফেসবুক পেজ হ্যাকড, তারেকের পাসপোর্টকে নিয়ে দেয়া পোস্ট উধাও  এবার গ্লোবাল উইমেন’স লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী গাজীপুর সিটি :  মেয়র প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ  শেখ হাসিনার ‘সাহসী ও নির্ভীক নেতৃত্বের’ প্রশংসা করেছেন নরেন্দ্র মোদি শেখ হাসিনা কবি বেলাল চৌধুরী আর নেই । প্রজন্মকণ্ঠ

ফারমার্স ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান চিশতীসহ চারজনকে গ্রেফতার 


নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রজন্মকণ্ঠ

আপডেট সময়: ১০ এপ্রিল ২০১৮ ৪:৫৩ পিএম:
ফারমার্স ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান চিশতীসহ চারজনকে গ্রেফতার 

ফারমার্স ব্যাংকের প্রায় ১৬০ কোটি টাকা সন্দেহজনক লেনদেনের অভিযোগে ব্যাংকটির অডিট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক চিশতীসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মঙ্গলবার দুপুরে দুদকের পরিচালক কাজী শফিকুল আলমের নেতৃত্বে তাদেরকে সেগুনবাগিচায় জাতীয় রাজস্ব ভবনের সামনে থেকে গ্রেফতার করা হয় বলে দুদক সূত্রে নিশ্চিত করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- ব্যাংকটির অডিট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক চিশতী (বাবুল চিশতী), তার ছেলে রাশেদুল হক চিশতী, ব্যাংকের এসভিপি জিয়া উদ্দিন আহমেদ এবং ব্যাংকের জামালপুর বকশীগঞ্জ শাখার ফার্স্ট প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদ মাসুদুর রহমান খান।

এর আগে আজ (মুঙ্গলবার) গুলশান থানায় দুদক পরিচালক কাজী শফিকুল আলম বাদী হয়ে ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। বাকি দুজন আসামি হচ্ছেন- মাহবুবুল হক চিশতীর স্ত্রী মিসেস রুজী চিশতী ও গুলশান শাখার এসইভিপি ও সাবেক ম্যানেজার দেলোয়ার হোসেন।

মামলার বিবরণীতে বলা হয়েছে, ফারমার্স ব্যাংক কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় অসৎ উদ্দেশ্যে ক্ষমতার অপব্যবহার করে ব্যাংকিং নিয়মাচারের তোয়াক্কা না করে ব্যাংকটির অডিট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক চিশতী তার ফারমার্স ব্যাংকের গুলশান শাখার একটি সঞ্চয়ী হিসাবে বিপুল পরিমাণ অর্থ নগদে ও পে-অর্ডারের মাধ্যমে জমা ও উত্তোলন এবং বিভিন্ন সময়ে স্ত্রী, ছেলে, মেয়েদের এবং তাদের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের নামে বিভিন্ন শাখায় মোট ২৫টি হিসাবে বেশিরভাগ অর্থ নগদ ও পে-অর্ডারের মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে ১৫৯ কোটি ৯৫ লাখ ৪৯ হাজার ৬৪২ টাকা সন্দেহজনক লেনদেন করেছেন।

মামলার বিবরণীতে আরো বলা হয়, বর্ণিত হিসাবগুলোতে গ্রাহকদের হিসাব থেকে প্রেরিত অর্থ স্থানান্তর, হস্তান্তর ও লেয়ারিংয়ের মাধ্যমে গ্রহণ করে এবং নিজেদের নামে ক্রয়কৃত ব্যাংকের শেয়ারের মূল্য পরিশোধের মাধ্যমে সন্দেহজনক লেনদেন করে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন-২০১২ এর ৪ ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন। 


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top