Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, শনিবার, ২৬ মে ২০১৮ , সময়- ১২:১৩ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
মাদকবিরোধী অভিযানে ফের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১০ স্বাস্থ্যসেবায় বিশ্বে পাকিস্তান ও ভারতের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ        ইয়াবা ব্যবসার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড, নতুন আইন আসছে ‘ওরে মন, হবেই হবে’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মানসূচক ডি.লিট পাচ্ছেন আজ  যাত্রা শুরু করল বিশ্বভারতীর বাংলাদেশ ভবন মাঠপর্যায়ের জরিপে : বিজয় নিয়ে শঙ্কিত আওয়ামী লীগ, ফুরফুরে বিএনপি  বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্মবার্ষিকী আজ বাংলাদেশে স্রোতের মতো রোহিঙ্গা, সুনামির মতো মাদক পাঠাচ্ছে মিয়ানমার :  ওবায়দুল কাদের  এবার এমপি বদির বেয়াই ইয়াবা ব্যবসায়ী নিহত 

বান্ধবীকে উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় রাবি ছাত্রকে ছাত্রলীগের ছুরিকাঘাত


নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রজন্মকণ্ঠ

আপডেট সময়: ১৭ মে ২০১৮ ২:০৯ এএম:
বান্ধবীকে উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় রাবি ছাত্রকে ছাত্রলীগের ছুরিকাঘাত

বান্ধবীকে উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাত করেছে ছাত্রলীগের কর্মীরা। বুধবার রাত ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বিজ্ঞান ভবনের পাশের রাস্তায় এ ঘটনা ঘটে।

ছুরিকাঘাতে গুরুতর জখম সাইফুল ইসলাম হৃদয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের এমবি'র শিক্ষার্থী। প্রথমে তাকে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারে নেয়া হয়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

ভুক্তভোগী সাইফুল ইসলাম হৃদয় চিকিৎসাধীন অবস্থায় যুগান্তরকে জানান, সন্ধ্যায় দুই বন্ধু ও এক বান্ধবীর সঙ্গে তিনি দ্বিতীয় বিজ্ঞান ভবনের সামনে গল্প করছিলেন। এসময় পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় ছাত্রলীগ কর্মী হামজা ও অপর দুইজন তার বান্ধবীকে একাধিকবার উত্যক্ত করে।

এনিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে তার দুই বন্ধু চলে গেলে বান্ধবীকে হলে পৌঁছে দেয়ার জন্য রওয়ানা হন তিনি। কিছুদূর এগোনোর পরই তাদের পথরোধ করে হামজাসহ তিনজন। একপর্যায়ে হামজা হৃদয়ের পেটের নিচের অংশে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে।

এ ঘটনায় জড়িত ছাত্রলীগের এক কর্মীকে ঘটনাস্থল থেকে ধরে পুলিশে দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। আটক মো. হামজা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। সে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাদ্দাম হোসেনের অনুসারী বলে জানা গেছে। তবে ঘটনায় জড়িত অন্য দুইজনের নাম-পরিচয় জানা যায় নি।

ছাত্রলীগ নেতা সাদ্দাম হোসেন দাবি করেন, হামজা ছাত্রলীগের কর্মী নয়। সে শের-ই-বাংলা হলে যাতায়াত করতো। দুই দিন আগে আরেকটা অনাকাঙ্খিত ঘটনার পর তাকে হল থেকে বের করে দিয়েছি।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়াকে কয়েকবার ফোন করা হলেও তিনি কেটে দেন। পরে সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু বলেন, ঘটনাটি মোবাইলে ফোনে নেতাকর্মীরা জানিয়েছে। বিস্তারিত কিছু এখনও জানতে পারিনি। আমি ঢাকায় আছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান বলেন, একজনকে ধরে পুলিশে দেয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে পুলিশ আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও বিষয়টি খতিয়ে দেখে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেবে।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top