Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, শনিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৯ , সময়- ৬:৫৬ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
জীবন দিয়ে হলেও জনগনের সম্মান আমি রক্ষা করবো লুঠের টাকায় ভোট, লুঠছে সব নোট : মমতা'র অভিযোগ ‘জয় বাংলা’ স্লোগানে মুখরিত সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অর্থপূর্ণ রাজনৈতিক সংলাপের আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ সাবেক অর্থমন্ত্রীর হুইল চেয়ার ধরার লোক নেই বিমানবন্দরে !  বিজেপি সরকারের ‘বিদায় ঘণ্টা’ বাজানোর প্রস্তুতি জনগণের দৃষ্টি ভিন্নখাতে প্রভাহিত করতেই বিজয় উৎসব করছে আ'লীগ কলকাতার ব্রিগেডের দিনেই সম্প্রচারিত হয়েছিল বঙ্গবন্ধুর মৃত্যু আশঙ্কা আসছেন জাতিসংঘের বিশেষ দূত যেসব সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকবে আজ 

বাধ্য হয়ে ‘ফাগুন হাওয়া’ ছেড়ে দিতে হয়েছে আমাকে : বিদ্যা সিনহা মিম


ডেস্ক রিপোর্ট

আপডেট সময়: ১৭ মে ২০১৮ ২:১৫ এএম:
বাধ্য হয়ে ‘ফাগুন হাওয়া’ ছেড়ে দিতে হয়েছে আমাকে : বিদ্যা সিনহা মিম

অনেকদিন ধরে বাণিজ্যিক সিনেমায় প্রতিষ্ঠা পাওয়ার সংগ্রাম করছেন বিদ্যা সিনহা মিম। কিন্তু কোনোভাবেই ব্যাটে-বলে মিলছে না। সম্প্রতি ভারতীয় সিনেমা ‘সুলতান’-এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। যদিও প্রথমে বলা হয়েছিল এটি যৌথ প্রযোজনা। এবার সিনেমাটি বাংলাদেশে ঈদুল ফিতরে মুক্তি নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

এ প্রসঙ্গে মিম মতামত জানতে গিয়ে নতুন তথ্য পাওয়া গেল।

ভাষা আন্দোলনের গল্প নিয়ে নির্মিত তৌকীর আহমেদের ‘ফাগুন হাওয়া’য় প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল মিমকে। কিন্তু জিতের বিপরীতে ‘সুলতান’-এর জন্য নিরাশ করেন ‘হালদা’ পরিচালককে।

এ নায়িকা বলেন, “এই ছবির জন্য আমার খুব প্রিয় মানুষ তৌকীর আহমেদ ভাইয়ের ‘ফাগুন হাওয়া’ ছবিটিতে শিডিউল দিতে পারিনি। চমৎকার গল্প ছিলো ‘ফাগুন হাওয়া’য়। আমি মনে করি, যে কোনো অভিনেত্রীর জন্যই ‘ফাগুন হাওয়া’ একটি স্বপ্নের চলচ্চিত্র। বাধ্য হয়ে সেটি ছেড়ে দিতে হয়েছে আমাকে।”

মিম আরো বলেন, “বিপাশা হায়াত আপুর সঙ্গে দেখা হলে তিনিও বলেছিলেন, ছবিটি আমার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিলো। ছেড়ে দেয়াটা ঠিক হয়নি। আসলে ভাষা আন্দোলন নিয়ে এটি আন্তর্জাতিক মানের চলচ্চিত্র হবে আমি জানি। তবুও ঝুঁকিটা নিয়েছিলাম ‘সুলতান’ ঈদে মুক্তি পাবে সেই আশাতেই। যদি সেটা না হয় তবে খারাপ লাগবে।”

‘সুলতান’ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা নিয়ে বলেন, ‘দেখুন এটা হতাশার যে যৌথ প্রযোজনার ছবিগুলো নানাভাবে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। এতে করে যৌথ প্রযোজনার ছবির ক্ষেত্রে তারকাদের অনীহা তৈরি হচ্ছে। এদেশের অল্প কজন শিল্পীদেরকেই কলকাতা থেকে প্রস্তাব দেয়া হয়। কিন্তু ছবি নির্মাণের পর সেগুলো যদি বাংলাদেশে মুক্তি না দেয়া যায় তবে কলকাতার প্রযোজকরা হতাশ হয়ে আর যৌথ প্রযোজনার ছবিতে লগ্নি করবে না। কোটি কোটি টাকা তারা ঢালছেন। হতাশ হলে, ক্ষতিগ্রস্থ হলে তো আগ্রহ দেখাবেন না। এমনিতেই ইন্ডাস্ট্রিতে ছবি নেই, ব্যবসা নেই। সেক্ষেত্রে যৌথ প্রযোজনার ছবিও এভাবে আটকে থাকলে সমস্যা আরও বাড়বে। বিকল্প এবং সময়োপযোগী কিছু ব্যবস্থা নেয়া জরুরি।’


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top