Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ জুন ২০১৮ , সময়- ৮:১৯ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
মুসল্লিরা জায়নামাজ ও ছাতা ছাড়া অন্য কিছু নিতে পারবেন না : ডিএমপি কমিশনার দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী রাজধানীতে বিভিন্ন মসজিদ ও ঈদগাহে জামাতের সময়সূচী  ব্রাজিলের সাপোর্টার প্রধানমন্ত্রী, একই দলের সমর্থক জয় মুসলিম উম্মাহর ঐক্যে ফাটল সৃষ্টি করতেই ইসরাইলের সৃষ্টি নূর চৌধুরী'কে দেশে ফেরাতে কানাডার আদালতে মামলা করেছে সরকার নির্বাচনী কৌশলগত কারনেই জামায়াতের সঙ্গ ছাড়ছে বিএনপি বিশ্বকাপ উদ্বোধনী ম্যাচে ৫-০ ব্যবধানে জয় পেল স্বাগতিক রাশিয়া বাগেরহাট ৩ আসনের উপ-নির্বাচনে নির্বাচিত এমপি'র শপথগ্রহণ ঘরমুখো মানুষ, চরম দুর্ভোগের মুখে পড়েছেন ট্রেনের যাত্রীরা

বাজেটে রোহিঙ্গাদের জন্য দুই হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হচ্ছে


নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রজন্মকণ্ঠ

আপডেট সময়: ২৩ মে ২০১৮ ১১:৫৯ পিএম:
বাজেটে রোহিঙ্গাদের জন্য দুই হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হচ্ছে

আগামী অর্থবছরের (২০১৮-১৯) বাজেটে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের জন্য দুই হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হচ্ছে। রোহিঙ্গাদের টেকনাফ থেকে হাতিয়ার ভাসানচরে স্থানান্তর পুনর্বাসন খাদ্য চিকিৎসাসহ বিভিন্ন প্রয়োজন মেটাতে এই বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে।

গত ৩০ এপ্রিল অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আর্থিক মুদ্রা ও মুদ্রা বিনিময় হার সংক্রান্ত কো-অর্ডিনেশন কাউন্সিলের বৈঠকে নতুন বাজেট নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়েও আলোচনা হয়। অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা এ তথ্য জানান।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা জানান, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমারের বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা নাগরিকদের জন্য খাদ্য, নিরাপত্তা, চিকিৎসা ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা এখন সরকারের বড় চ্যালেঞ্জ। এরই মধ্যে এক লাখ রোহিঙ্গাকে পুনর্বাসনের জন্য নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলার ভাসানচর উন্নয়নে ১ হাজার ৮৯৪ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের অস্থায়ী আবাসন গড়ে তুলতে চলতি অর্থবছরের বাজেট থেকেও ১৫০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে।

সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী, আসছে বর্ষা মৌসুমের আগেই কক্সবাজার থেকে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরু করার কথা থাকলেও তা হচ্ছে না। কারণ ভাসানচরে অস্থায়ী আবাসন নির্মাণের কাজ এখনও চলছে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ভাসানচরে কেবল আবাসন নির্মাণ করলেই হবে না, একইসঙ্গে খাদ্য, স্বাস্থ্য, চিকিৎসাসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় বিষয়ও নিশ্চিত করতে হবে। এসব কারণেই আগামী অর্থবছরের বাজেটে রোহিঙ্গাদের জন্য ২ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হচ্ছে।

১০ লাখ রোহিঙ্গার জন্য ভাসানচরে মাস্টারপ্ল্যানের মাধ্যমে দ্বীপটিতে ভাঙন প্রতিরোধ ব্যবস্থাসহ বেড়ি বাঁধ নির্মাণ বাসস্থান সুবিধা সুপেয় পানি পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা বিদ্যুৎ পানি নিষ্কাশন পুকুর খনন স্কুল মসজিদ অন্যান্য অবকাঠামো উন্নয়ন সাইক্লোন শেল্টার স্টেশন ও দুইটি হেলিপ্যাড নির্মাণ করা হবে।

দুর্যাগ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, এরই মধ্যে ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের সাময়িক বসবাসের জন্য ১৩ হজার একর খাসজমি চিহ্নিত করে বসবাসের উপযোগী করা হয়েছে। এতে একটি হেলিপেড, কিছু টয়লেট চারটি শেড ও সীমিত পরিসরে ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে।

 


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top