Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ , সময়- ৩:৪৭ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
বৈশ্বিক ক্ষুধা সূচকে গত বছরের তুলনায় আরও দুই ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার পর এবার ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা চলতি বছরেই বাংলাদেশে চালু হচ্ছে ই-পাসপোর্ট শেষ পর্যন্ত ভর্তুকি দিয়ে গ্যাসের দাম না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত : বিইআরসি নরসিংদীর ‘জঙ্গি আস্তানায়’ যৌথবাহীনির অভিযান সমাপ্ত  এই মুহূর্তে কোনও রাজবন্দি নাই, যারা আছে তারা সবাই অপরাধী : তথ্যমন্ত্রী অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা ছাড়া দুদক টিকবে না : দুর্নীতি দমন কমিশন নরসিংদীর 'জঙ্গি আস্তানা' থেকে দু'টি লাশ উদ্ধার, জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের আহ্বান ৮ হাজার রোহিঙ্গার প্রথম তালিকা যাচাই করে তথ্য স্বীকার করেছে মায়ানমার জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবিলায় সম্মিলিত প্রচেষ্টার বিকল্প নেই : পানি সম্পদ মন্ত্রী

পারভেজ মোশাররফের নাগরিকত্ব বাতিল করল পাক সরকার


নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রজন্মকণ্ঠ

আপডেট সময়: ১১ জুন ২০১৮ ৫:৪৩ পিএম:
পারভেজ মোশাররফের নাগরিকত্ব বাতিল করল পাক সরকার

পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও সেনাপ্রধান পারভেজ মোশাররফের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইসি) ও পাসপোর্ট বাতিল করেছে দেশটির সরকার। সম্প্রতি কয়েকটি গণমাধ্যম খবরে এ তথ্য জানানো হয়।

দেশটির তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান নাসির উল মুলক অবিলম্বে মোশাররফের এনআইসি বাতিলের নির্দেশ দেন। এরপর গত শনিবারই তাঁর এনআইসি বাতিল করে পাকিস্তানের ন্যাশনাল ডেটাবেইস অ্যান্ড রেজিস্ট্রেশন অথোরিটি। আর এনআইসি বাতিলের পর পাসপোর্টের তেমন মূল্য থাকে না।

মোশাররফ বর্তমানে দুবাই আছেন। তাই দুবাই চাইলে তাঁকে বিতাড়িত করতে পারে।

দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের খবরে বলা হয়, এই সাবেক প্রেসিডেন্ট এখন রাজনৈতিক আশ্রয় চাইতে পারেন। অথবা পাকিস্তানে ফিরতে চাইলে তাঁকে বিশেষ অনুমতি নিতে হবে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, চলতি বছরের মার্চে বিশেষ আদালত মোশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় কেন্দ্রীয় সরকারকে তাঁর পাসপোর্ট ও এনআইসি বাতিলের নির্দেশ দেন। সেই নির্দেশে আদালত আরও বলেন, যদি মোশাররফ লিখিত আবেদন জমা দিতে ব্যর্থ হন, তাহলে পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সরকারের অন্যান্য সংস্থা তাঁকে গ্রেপ্তারের জন্য ইতিবাচক পদক্ষেপ নিতে পারে।

এর আগে সুপ্রিম কোর্ট মোশাররফকে পাকিস্তানে ফিরে আসতে বলেছিলেন। কারণ, তাঁর বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলার শুনানি চলছে। কিন্তু তিনি হাজির হননি।

২০০৭ সালে প্রেসিডেন্ট থাকার সময় বেআইনিভাবে সংবিধান বাতিল ও জরুরি অবস্থা জারির দায়ে ২০১৪ সালের মার্চে অভিযুক্ত হন মোশাররফ।

 


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top