Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ , সময়- ১২:১৫ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
‘তারুণ্যের প্রথম ভোট উন্নয়নের স্বার্থে হোক, শন্তির পক্ষে হোক’ জামিনে মুক্ত ভিকারুননিসার শিক্ষক হাসনা হেনা ময়মনসিংহ মুক্ত দিবস আজ খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা নিয়ে রিটের আদেশ আগামীকাল  মনোনয়নপত্র ফিরে পাচ্ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলম নির্বাচনী প্রচার শুরু করবেন শেখ হাসিনা, ১২ ডিসেম্বর সিঙ্গাপুর যাচ্ছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্য ২০১৫ থেকে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ২০৩০ প্রধান নির্বাচন কমিশনাসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল ভোট প্রচারণায় সোহেল তাজের ছেলে ব্যারিস্টার তুরাজ 

‘স্বপ্ন’ প্রকল্পটির সুফল পাচ্ছে সাতক্ষীরা ও কুড়িগ্রাম জেলার ৮,৯২৮ দরিদ্র নারী


প্রজন্মকণ্ঠ রিপোর্ট

আপডেট সময়: ২১ জুলাই ২০১৮ ১:১০ এএম:
‘স্বপ্ন’ প্রকল্পটির সুফল পাচ্ছে সাতক্ষীরা ও কুড়িগ্রাম জেলার ৮,৯২৮ দরিদ্র নারী

সরকারের একটি সামাজিক নিরাপত্তা প্রকল্প স্ট্রেঞ্জদেনিং ওমেন অ্যাবিলিটি ফর প্রডাক্টিভ নিউ অপারচ্যুনিটি (স্বপ্ন) সাতক্ষীরা ও কুড়িগ্রাম জেলার পল্লী এলাকায় ৮,৯২৮ জন দরিদ্র লোককে তাদের স্বপ্ন বাস্তবায়নে সহায়তা করছে। জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচী (ইউএনডিপি) টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য তহবিল (এসডিজিএফ) এবং বিএসআরএম এর সহায়তায় স্থানীয় সরকার বিভাগ ২০১৫ সালের এপ্রিল থেকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পযর্ন্ত পাঁচ বছর মেয়াদি এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। 

এসডব্লিউএপিএনও প্রকল্পের প্রশিক্ষন বিশেষজ্ঞ কাজল চ্যাটার্জী আজ এখানে  জানান, প্রকল্পের প্রথম পযার্য়ের কাজ সম্পন্ন হবার পর মোট ৪,৪৬৪ জন বিধবা, তালাকপ্রাপ্ত এবং প্রতিবন্ধিদের স্ত্রী আগের চেয়ে অধিক স্বচ্ছল জীবন যাপন করছেন। তিনি জানান, প্রথম পযার্য়ের কাজ সফল ভাবে সম্পন্ন হবার পর দ্বিতীয় পযার্য়ের জন্য প্রকল্প ইতোমধ্যেই একই জেলার আরো ৪৪৬৪ জন অতি দরিদ্র্য লোক মনোনিত করেছে। 

তিনি আরো জানান, স্বপ্ন জেলার ১১২ টি ইউনিয়নে ই-পেমেন্ট ব্যবস্থা চালু করেছে। বাংলাদেশ ইনিষ্টিটিউট অব ডেভলপমেন্ট স্টাডিজ এর এক জরিপ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সুবিধাভোগি নারীরা প্রথ পযার্য়ে ১৮ মাসের একটি প্রশিক্ষনের জন্য ২০১৫ সালের ১৬ আগস্ট থেকে ২০১৭ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি পযর্ন্ত কাজ করেছে। এ সময়ে প্রত্যেক সুবিধাভোগি একটি গ্রাজুয়েশন বোনাস হিসাবে ২২,১৫০ টাকাসহ ৬৬,৪৫০ টাকা বেতন পেয়েছে। 

প্রকল্পটি প্রায় ৪০.০০০ টাকা আয় বৃদ্ধিতে অবদান রাখছে। এতে তাদের দারিদ্র্য বিমোচনে সহায়ক হচ্ছে। এখন তারা আগের চেয়ে ভাল ভাবে জীবন যাপন করছে। তারা দৈনন্দিন খাবারে এবং অন্যান্য পারিবারিক প্রয়োজনে বিশেষ করে সন্তানের লেখা পড়ায় অর্থ ব্যায় করতে পারছে।

সুবিধাভোগিদের এখন প্রধান সম্পদ হচ্ছে জীবনযাপন। অর্থের পরিমানগত দিক থেকে নয়, তাদের জীবন যাপনের ধরন প্রায় ৪৩ শতাংশ বদলে দিয়েছে। গ্রাজুয়েশন বুনাস সুবিধাভোগিদের কৃষি জমি বরাদ্দ নিতে সহায়তা করছে। দির মজুর থেকে এখন তাদের অনেকে কৃষক হতে পারছে। তারা স্বাবলম্বী হচ্ছে। এতে তাদের সামাজিক মযার্দাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রকল্পের সকল সূচক সুবিধাভোগিদেরকে আরো উন্নত জীবনযাপনে উৎসাহিত করছে।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top