Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, শনিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৮ , সময়- ৪:১০ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
আগামী নির্বাচনের রোডম্যাপ ঘোষণা আসছে, জাতীয় পার্টির মহাসমাবেশ আজ আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বি, জনগণ হৃদয় দিয়ে ভালোবাসে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী | প্রজন্মকণ্ঠ মানুষের ভিড়ের ওপর দিয়ে চলে গেল ট্রেন, ৫০ জন নিহত | প্রজন্মকণ্ঠ তরুণী ও কম বয়সী রোহিঙ্গা মেয়েরা পাচারের শিকার হচ্ছে : জাতিসংঘ যারা বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছেন তারা বিকল্পধারার কেউ নন : মাহী বি চৌধুরী  আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের স্বাধীনতা এখনও পুরোপুরি অর্জন করতে পারিনি : রাষ্ট্রপ্রতি সর্বত্র মানুষের মঙ্গলের সুযোগ করে দিতে শেখ হাসিনার সরকার কাজ করছে : অর্থমন্ত্রী  সংস্কৃতি অঙ্গনে কালো ছায়া নেমে এলো | প্রজন্মকণ্ঠ চার দিনের সরকারি সফর শেষে দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী আজ | প্রজন্মকণ্ঠ পবিত্র ওমরাহ পালন করেছেন প্রধানমন্ত্রী, দেশবাসীর জন্য দোয়া প্রার্থনা | প্রজন্মকণ্ঠ

এ কেমন রায় ? মূল পরিকল্পনাকারী তারেকের মৃত্যুদন্ড না হওয়ায় দেশবাসী হতাশ : ফেসবুকে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া !


মো: মাহমুদ হাসান

আপডেট সময়: ১০ অক্টোবর ২০১৮ ২:৫৬ পিএম:
এ কেমন রায় ? মূল পরিকল্পনাকারী তারেকের মৃত্যুদন্ড না হওয়ায় দেশবাসী হতাশ : ফেসবুকে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া !

১৪ বছর আগে বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় থাকার সময় আওয়ামী লীগের জনসমাবেশে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার মামলার রায় ঘোষণা হয় আজ । বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ আটজনের বিরুদ্ধে গ্রেনেড হামলার পরিকল্পনা ও ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হয়। উক্ত গ্রেনেড হামলার মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন তারেক রহমান। অপর সাতজন হলেন সাবেক মন্ত্রী জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ (ফাঁসি কার্যকর), সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, সাবেক শিক্ষা উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু, খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, বিএনপির সাবেক সাংসদ শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ, বিএনপি নেতা হানিফ পরিবহনের মালিক মো. হানিফ ও কমিশনার আরিফুল ইসলাম।  

এই আট নেতার বিরুদ্ধে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র করে গ্রেনেড হামলা পরিচালনার জন্য আর্থিক সহায়তা, প্রশাসনিক সহায়তা এবং গ্রেনেড সরবরাহ করার অভিযোগ আনা হয়েছে। 

নারকীয় সেই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ২০ জনের মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়াও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ১৭ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সাজা দিয়েছেন আদালত। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘিরে ফেসবুকে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া তুলে ধরা হলো- 

“জাতি হতাশ মূল হোতা তারেকের ফাসি না হওয়ার জন্য।“-জিয়াউর রহমান।

“মূল পরিকল্পনাকারীরাই বেঁচে যাচ্ছে এ কেমন রায়?” – কামরুন্নাহার শাপলা !

"তারেকসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড;--বাবর আর পিন্টুসহ ১৯ জনের ফাঁসি, বিচারের বাণী নীরবে নিভৃতেই কাঁদে, খুশি হতে পারলাম না।“ কামাল হোসেন।

“পালের গোদার ফাঁসি হওয়া উচিৎছিল।“- মোঃ রহিম হাওলাদার।

“২১শে আগস্টের মাস্টারমাইন্ড তারেক জিয়ার যাবজ্জীবন সাজা হয় কিভাবে?”- আব্দুল হালিম।

“২১শে আগষ্ট'২০০৪ ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার রায়ে পুরাপুরি সন্তুষ্ট নই! মূলহোতা খালেদা, তারেক, হারিছসহ অভিযুক্ত প্রত্যেকের ফাঁসী চাই...”-মুক্ত মৃধা।

“বাবরের পরিণতি থেকে আমরা কী শিখলাম? যা-ই করেন মাস্টারমাইন্ড হতে হবে। এর কম হলেই রশিতে ঝোলার ঝুঁকিতে পড়বেন। মাস্টারমাইন্ড বেঁচে যাবে ঠিকই; সহযোগীরা সাবধান!” – তৈমুর তুষার ফারুক।

“মাস্টারমাইন্ড তারেক জিয়ার ফাঁসি চাই, ফাঁসি চাই, ফাঁসি চাই।“- মোহাম্মদ আলী মামুন।

“পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার শিমুলতলী তে একটা ছোট দোকান এ স্থানীয় জনগণের সাথে বসে ২১ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের রায় শুনলাম, টেলিভিশন এ। মানুষ আইনের শাসন দেখতে চায়। হত্যার রাজনীতি দেখতে চায় না দেশবাসী।“-রুহিন হোসেন প্রিন্স।

“আমি সবসময় ন্যায্য বিচারের পক্ষে। সে হিসাবে আমার ধারনা ছিল হয় তারেক রহমান খালাস পাবেন নয়তো তার সর্বোচ্চ সাজা হবে। কিন্তু যে রায় হলো তাতে কেন জানি মনে হচ্ছে রায়ে সব পক্ষকে খুশি করার প্রয়াস ছিল। যাকে মাষ্টার মাইণ্ড ধরা হয় তার বিরুদ্ধে হয় অপরাধ প্রমাণ হবে নয়তো সে নির্দোষ প্রমাণিত হবে। অপরাধ প্রমাণ হলে সর্বোচ্চ শাস্তি, প্রমাণ না হলে খালাস এমনটই তো হবার কথা। সরল হিসাবে তো আমি এটাই বুঝি। আইনে কি আছে জানিনা। সম্ভবতঃ বিচারপতিদেরও কিছু নিজস্ব বিবেচনা প্রয়োগ করার ক্ষমতা আছে। নইলে অপরাধী যখন প্রমাণিত হয়েছেই তখন মাষ্টার মাইণ্ডের সর্বোচ্চ সাজা হলোনা কেন! আসলে বুঝিনা কিচ্ছুই। আপিল প্রক্রিয়ায় গেলে বিষয়টা পরিষ্কার হতে পারে। আবারও বলছি, আমি কোন প্রতিহিংসার রাজনীতি পছন্দ করিনা। আমি আইনের শাসনে বিশ্বাসী।“- মোহাম্মদ মিজানূর রহমান।

“খুনী তারেক জিয়ার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানি না। এই রায় ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করলাম। এই রায়ের বিরুদ্ধে আপীল চাই, করতে হবে।–রহিম হাওলাদার।

“বিচার বিভাগ কি রক্তের মূল্য দিতে জানে না? খুনীদের ফাঁসি চাই, ফাঁসি।“- সোনা সরকার।

“মূল পরিকল্পনাকারী খুনি তারেক জিয়া'র ফাঁসি চাই' যাবজ্জীবন কারাদণ্ড আমরা মানিনা মানব না।“ এস এম রায়হান।

“রাষ্ট্রের নির্বাহী ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় রাষ্টিয় নিরাপত্তায় নিয়োজিত উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তাদের জড়িত থাকা প্রমাণিত হওয়া এবং সরকারের দুজন মন্ত্রীর জড়িত থাকা প্রমানিত হওয়ার পরও রাষ্ট্রের নির্বাহী প্রধান কেন শাস্তির আওতায় আসবেনা ? বিএনপি এবং খালেদা দুটোই শাস্তির আওতায় আসা উচিত ।“-নাসির উদ্দিন শিপন।

“তারেক রহমানের ফাসিঁ চেয়ে আপিল করা হোক।“– কাজী সালমা সুলতানা।

“এই রায় মানি না।“-রাশিদুল হাসান ডলার।

“কুলাঙ্গার তারেকের ফাসি চেয়ে উচ্চ আদালতে আপিল করা হোক।“-ভাকুর্তা ইউনিয়ন নৌকার সমর্থক।

“সরকার পক্ষ আপিল করলে তারেক এর অবশ্যই ফাসি হতে পারে।“- ফজলুল হক।

“গ্রেনেড হামলার সাথে যারা জড়িত সকলের ফাঁসি চাই এবং জামাত-বিএনপি'র নিবন্ধন বাতিল করা হোক তারা সন্ত্রাসী গোষ্ঠী....।“- রুবেল মাহাবুব।

“এই রায় মানতে পারলাম না” – মাসুদ মুন্সী।

“যার প্লানে এই হত্যাকান্ড হলো সেই মূল ‘কালপ্রিট’ টার ফাঁসি হলো না রায় মানতে পারলাম না, মানি না, মানব না, আপিল করতে হবে।– কামাল হোসেন।

“২১শে আগষ্ট এর গ্রেনেড হামলার হত্যাকান্ডের মুল পরিকল্পনা কারির যাবজ্জীবন! এ রায় মানি না।“ –ভিপি বুলবুল খান।

“হলো না সঠিক বিচার?” – মামুন রেজা ।

“আক্রোশ থেকে বলছিনা, ন্যায় বিচার হলনা। হামলাকারী সহযোগিতাকারী একই অপরাধী; সাজা কেন ভিন্ন???- নূর আজাদ।

“ইতিহাসের জঘন্যতম হত্যার রায় যাবজ্জীবন মানিনা মানব না ৷” – ফয়েজ হোসেন।

“খুনী তারেকের ফাসি হওয়া উচিৎ ছিলো।“ মোঃ আব্দুল আজিজ তালুকদার।

“তার মানে কী দা"ড়াল? ঐ ঘটনার মূল হোতা বাবর গং? তারেক রহমানরা নন?” বেচারা বাবর! নিশ্চয় মনে মনে তারেকের উদ্দেশে বলছে, 'তুমি মহারাজ সাধু হলে আজ, আমি চোর বটে'- তৈমুর তুষার ফারুক।

“এ রায় তারেক জিয়ার অপকর্মকে হালাল করলো!”- রাশেদুল হক ননী।

“এ রায় কি মানা যায়, যেখানে আসল ক্রিমিনালের ফাঁসি হলো না!!!” কামাল হোসেন।

“আমি অনেক বেশি হতাশ হলাম।“ জোবায়েদ ওবায়েদ জয়।

“ফাঁসি ফাঁসি ফাঁসি হলো খুনিদের ফাঁসি হলো, তারেক জিয়া গডফাদারের যাবজ্জীবন রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে ফাঁসির ব্যবস্থা করতে হবে।“- এম এ মিন্টু।

“চিন্তিত । কারণ নাটের গুরুর সর্বোচ্চ শাস্তি হলোনাতো ! কেন হলোনা ! নাটের গুরুতো তবে বিদেশে বসে যতরকম দেশবিরোধী শয়তানির চাল চালানো বন্ধ করবেই না।“ নূরুন্নাহার শিরীন।
“ফাঁসি হলোনা তার। জানিনা কেন?”- অপর্ণা ।

সংগ্রহ: মোঃ মাহমুদ হাসান, ঢাকা । 


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top