Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, বুধবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৯ , সময়- ৮:১৩ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা হলেন সালমান আরেকটি শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা : কারণ এবং প্রতিকার কী ? পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রথম বিদেশ সফর ভারত প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ পেলেন জয়  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু ৫ আমি কখনও সংলাপের কথা বলিনি : ওবায়দুল কাদের কাদের'কে স্টেডিয়ামে প্রকাশ্যে মাফ চাওয়ার আহ্বান  বাংলাদেশে তথ্য প্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী জাপান সংরক্ষিত নারী আসনে আ'লীগের মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু  পদ্মা সেতুর পাশেই হবে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার পর এবার ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা


প্রজন্মকণ্ঠ অনলাইন রিপোর্ট

আপডেট সময়: ১৬ অক্টোবর ২০১৮ ১১:১৩ পিএম:
রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার পর এবার ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার পর এবার ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে রাজধানীর আশুলিয়া থানায় চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেছেন মানিকগঞ্জের এক বাসিন্দা। এ মামলায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য জাফরুল্লাহসহ মোট চারজনের নাম ধরে এবং আরো কয়েকজন অজ্ঞাত হিসেবে আসামি করে তাদের বিরুদ্ধে কোটি টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ করা হয়েছে।

আশুলিয়ার পাথালিয়া এলাকায় জমি বিক্রিতে বাধ্য করার চেষ্টা এবং কোটি টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ এনে গতকাল সোমবার রাতে মামলাটি (নং-৪১) মানিকগঞ্জের হরিরামপুর থানার খামারহাটি গ্রামের মোহাম্মদ আলী। জাফরুল্লাহ চৌধুরী ছাড়া মামলার অন্য আসামিরা হলেন মো. দেলোয়ার হোসেন (৫৭), মো. সাইফুল ইসলাম শিশির (৫৫) ও আওলাদ হোসেন (৪৮)।

সম্প্রতি এক টেলিভিশন চ্যানেলের টকশোতে অংশ নিয়ে সেনাপ্রধানকে নিয়ে অসত্য বক্তব্য দেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এরপর সংবাদ সম্মেলনে এসে দুঃখ প্রকাশ করেন তিনি।  ঘটনা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার শিকার হন জাফরুল্লাহ চৌধুরী। বৃহস্পতিবার সেনা সদরের পক্ষ থেকে রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় এ নিয়ে একটি জিডিও করা হয়।  পরবর্তীতে জিডিটিকে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হিসেবে গ্রহণ করে তদন্তের জন্য ডিবি পুলিশের কাছে স্থানান্তর করা হয়েছে।

আশুলিয়া থানায় দায়ের হওয়া মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, পাথালিয়া মৌজার প্রায় চার একর ২৪ শতাংশ জমির ক্রয়সূত্রে মালিক মোহাম্মদ আলী, তাজুল ইসলাম, ও আনিসুর রহমান। তার চার পাশে কাঁটা তারের বেষ্টনী দিয়ে টিনসেড ঘর নির্মাণ এবং বিভিন্ন ধরনের গাছপালা রোপন করে দীর্ঘদিন ধরে জমিটির ভোগদখল করছেন। কিন্তু মামলার বিবাদীরা দীর্ঘদিন ধরে ওই সম্পত্তিটি অবৈধভাবে দখলের চেষ্টা করছেন। এরই মধ্যে কাঁটা তারের বেষ্টনি ভাংচুর, মাটি কেটে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে নামমাত্র মূল্যে জমিটি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রর নিকট হস্তান্তরের জন্য চাপ সৃষ্টি করে আসছেন। এঘটনায় সাভার ও আশুলিয়া থানায় একাধিক সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।

সর্বশেষ গত ১৪ অক্টোবর সকালে মোহাম্মদ আলী ও তার শরিক আনিছুর রহমান জমিটি দেখাশুনা করতে গেলে জাফরুল্লাহর সহযোগী দেলোয়ার হোসেন (৫৭), সাইফুল ইসলাম শিশির (৫৫) এবং আওলাদ হোসেনসহ (৪৮) তিন থেকে চারজন জমিতে ঢুকে জানায়, তারা জাফরুল্লাহ নির্দেশে এসেছে। তারা জমি তাদের কাছে বিক্রির জন্য বলে। সেই সঙ্গে বলে, এই জমি গণবিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য পূর্বে না দেওয়ার কারণে তাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। এই জন্য এক কোটি টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় তারা হুমকি দেয় এবং জমির কাঁটাতারের বেষ্টনি, সাইনবোর্ড ও একটি গেইট ভাংচুর করে।

জমির মালিক মোহাম্মদ আলী বলেন, ডা. জাফরুল্লার ও তার লোকজন আমাদের জমিটি মাত্র মূল্যে বিক্রির জন্য চাপ সৃষ্টির পাশাপাশি জমি থেকে জোর করে প্রায় ৩০ লাখ টাকার মাটি কেটে নিয়ে গেছে। আমরা জমি বিক্রী না করলে আমাদের প্রাণনাশেরও হুমকি দেয়া হয়েছে। তাদের অত্যাচারে শেষ পর্যন্ত আমি অসুস্থ হয়ে পড়েছি। এজন্য আমার বাইপাস সার্জারি করতে হয়েছে।

এব্যাপারে আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রিজাউল হক দিপু বলেন, মামলাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top