Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ , সময়- ৯:৪৯ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
ড. কামাল হোসেনের গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় মামলা সারা দেশে ব্যাপক শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় বিজয় দিবস উদযাপন বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টকে ভোট না দেয়ার আহ্বান খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে সংগ্রাম চলছে, চলবে : ফখরুল  ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভোটারদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন প্রধানমন্ত্রী বিজয় দিবসে একাত্তরের বীর শহীদদের প্রতি প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা গণমানুষের শেখ মুজিব, ইতিহাসের মহানায়ক বিজয় দিবসের বীর শ্রেষ্ঠরা বীরত্বের এক অবিস্মরণীয় দিন, মহান বিজয় দিবস আজ নির্বাচনে নিরাপত্তার ছক চুড়ান্ত করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী

প্রার্থিতা ফিরে পেলেন ২৩ বিএনপি নেতা 


প্রজন্মকণ্ঠ অনলাইন রিপোর্ট

আপডেট সময়: ৬ ডিসেম্বর ২০১৮ ৯:০৮ পিএম:
প্রার্থিতা ফিরে পেলেন ২৩ বিএনপি নেতা 

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থিতা বাতিল হওয়া বিএনপির অন্তত: ২৩ জন আপিলে তাদের প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। আজ (বৃহস্পতিবার) নির্বাচন ভবনে আপিলের শুনানি শেষে এই সিদ্ধান্ত জানা গেছে।  প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও অন্য নির্বাচন কমিশনাররা আজ প্রথম দিনের আপিল শুনানি করছেন।

প্রথম দিনের আপিল শুনানিতে বিএনপি’র যেসব প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে তাদের মধ্যে রয়েছেন, পটুয়াখালী-৩ আসনের বিএনপি প্রার্থী, আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনি, বগুড়া-৭ আসনের মিল্টন মোর্শেদ, ঢাকা-১ আসনের খন্দকার আবু আশফাক, জামালপুর-৪ আসনের ফরিদুল কবীর তালুকদার শামীম, ঢাকা-২০ আসনের প্রার্থী তমিজ উদ্দিন, কিশোরগঞ্জ-২ আসনের প্রার্থী মেজর (অব) আকতারুজ্জামান এবং চট্টগ্রাম-৩ আসনের কামাল পাশা।

হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকায় গত ২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র অবৈধ ঘোষণা করেন পটুয়াখালী জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা। পরদিন সশরীরে নির্বাচন কমিশনে হাজির হয়ে আপিল করেন রনি।

নির্বাচন কমিশনে আপিল করে প্রার্থীতা ফেরত পেলেও নির্বাচন নিয়ে তার শংকার কথা জানিয়ে গোলাম মওলা রনি গণমাধ্যমকে বলেছেন, তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নিকট আত্মীয় হবার কারণে ভোটারদের মধ্যে একরকম আশংকা কাজ করছে। তিনি এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি দিয়ে জনমনে সৃষ্ট শংকা দূর করার অনুরোধ জানিয়েছেন।

গোলাম মওলা রনি

শুনানির প্রথম দিনে প্রথম ১৬০ টি আপিলের মধ্যে ৮১টিকে বৈধ বলে ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। প্রথম দিনের আপিল শুনানিতে জাতীয় পার্টি ও স্বতন্ত্র অনেক প্রার্থীর মনোনয়নপত্রও বৈধ ঘোষণা করা হয়।

তবে, কমিশনে আপিলের পরও যাদের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে তারা উচ্চ আদালতে দ্বারস্থ হবেন বলে জানিয়েছেন।

ওদিকে, ঢাকা-৯ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মির্জা আব্বাসের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। বৃহস্পতিবার বিকালে তার মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে তা বাতিলের ঘোষণা দেয়া হয়। 

এর আগে মির্জা আব্বাসের মনোনয়নপত্র গ্রহণ করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যাচাই-বাছাইয়ের নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। এ ছাড়া পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ইসির আপিল নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

এছাড়া, কিশোরগঞ্জ ১ ও ২ আসনের গণফোরাম মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট এম ডি আজহারুল ইসলাম ও এম শফিউর রহমান খান বাচ্চু এবং ঢাকা ১৬ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী সাদাকাত খান ফাক্কুর মনোনয়নপত্র ১২ ঘণ্টার মধ্যে জমা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। এই তিনজনের মনোয়নপত্র জমা নিয়ে যাচাই-বাছাই করে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিতে হবে বলেও আদেশ দিয়েছে আদালত।

আলাদা রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবার বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি মো. সোহরাওয়ার্দীর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

'নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব ও স্বচ্ছতা দৃশ্যমান হতে হবে'

অপরদিকে, নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) জনগণের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠায় নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করতে এবং কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনার আহ্বান জানিয়েছেন ‘সুশাসনের জন্য নাগরিক’ (সুজন) নেতারা।

আজ জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘নির্বাচনী ইশতেহার : নাগরিক প্রত্যাশা’ শীর্ষক আলোচনা ও সংবাদ সম্মেলনে সুজন নেতারা বলেছেন, নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব ও স্বচ্ছতা দৃশ্যমান হতে হবে। সবাইকে এক নজরে দেখতে হবে। আর নির্বাচনে অংশ নেয়া রাজনৈতিক দলগুলেকেও দল ও দেশ পরিচালনায় তাদের ভূমিকা কী হবে তা নির্বাচনী ইশতেহারে উল্লেখ করতে হবে।

সুজনের সভাপতি এম হাফিজ উদ্দিন খান বলেন, ‘যেসব আইন-কানুন রয়েছে তা যদি বাস্তবায়ন করা যায়, তাহলে আশা করা যায় সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব হবে।’

এ সময় সুজন নির্বাহী সদস্য, কলামিস্ট ও গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, ‘সরকারি দলের লোকজন যেভাবে নির্বাচন কমিশনের প্রশংসা করছেন তাতে মনে হচ্ছে সরকারি দলের লোকজন নির্বাচন কমিশনের জনসংযোগে নেমেছেন। এ অবস্থায় জনগণের আস্থা ফেরাতে হলে তাদেরই প্রমাণ করতে হবে তারা দায়িত্ব পালন করতে সক্ষম, স্বচ্ছ নির্বাচন করতে পারবে। নির্বাচন কমিশনকে তাদের স্বচ্ছতা ও দায়িত্ব দৃশ্যমান করতে হবে।’


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top