রাবিতে বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর ৩৮ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর ৩৮ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ শেষে শের-ই-বাংলা হলের সামনে অবস্থিত শহীদ জুবায়ের হোসেন রিমুর স্মৃতিস্তম্ভে পুস্পস্তবক অর্পণ করে। 

এরপর দুপুর ১২ টার দিকে কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ায় এক আলোচনা সভার আয়োজন করে বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী রাবি ও রাজশাহী মহানগর শাখা।  

আলোচনা সভায় বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী রাবি শাখার সভাপতি ফিদেল মনির বলেন, ৮০‘র দশকে স্বৈরচার শাসকবিরোধী ছাত্র আন্দোলন গড়ে তোলে ছাত্র মৈত্রী। এরপর থেকে অধিকার আদায়ের জন্য কৃষক-শ্রমিক, সাধারণ মানুষ এবং শিক্ষার্থীদের হয়ে বিভিন্ন আন্দোলন করে আসছে সংগঠনটি। আমাদের জনসাধারণের আয়করের টাকায় বিশ্ববিদ্যালয় চলে। অথচ বর্তমানে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভর্তি ফি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। শিক্ষাবাণিজ্যের ফলে জনগণ তাদের মৌলিক অধিকার- শিক্ষা অর্জনে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

রাবি শাখা ছাত্র মৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক রনজু হাসানের সঞ্চালনায় প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য প্রদান করেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক প্রদীপ মার্ডি। তিনি বলেন, দেশে আজ ২৬ লাখ শিক্ষিত বেকারসহ আড়াই কোটি বেকার। শ্রমিক ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে না, কৃষক ফসলের দাম পাচ্ছে না। সুস্থ রাজনীতি চর্চার অভাবে ছাত্র রাজনীতির প্রতি মানুষের আস্থা কমে গিয়েছে।

বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী রাজশাহী মহানগর শাখার আহ্বায়ক সৌমিক ডুমরীর সভাপতিত্বে সভায় সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ফয়সাল ফারুক অভীক বলেন, আমাদের পাশের দেশ ভারতে পুঁজিবাদী শাসনের ফলে সর্বহারা হয়ে হাজার হাজার কৃষক আত্মহত্যা করেছে। বাংলাদেশেও এমন সময় আসন্ন। তাই আগে থেকে আমাদের অধিকার আদায়ে সোচ্চার হতে হবে।

এসময় আরও বক্তব্য দেন, মহানগর শাখার সদস্য আদিত্য বর্মন, ছাত্র ইউনিয়ন রাবি শাখা সভাপতি এম এ শাকিল হোসেন, সদস্য শাকিলা খাতুন, ছাত্র ফেডারেশন রাবি শাখার নেতা মহ্বত হোসেন মিলন, ছাত্রফ্রন্ট রাবি শাখার সভাপতি লিটন দাস প্রমুখ।

পাঠকের মন্তব্য