ছাপাখানায় নির্বাচন 

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আর মাত্র ১৭দিন বাকি৷ তাই সারা দেশে রাত দিন পোস্টার ছাপানোর কাজ চলছে৷ রাজধানীর ফকিরাপুলের ছাপাখানার কর্মচারীরাও কাটাচ্ছেন নির্ঘুম রাত…

নির্ভুল পোস্টার : নির্বাচনি প্রচারের জন্য চাই নির্ভুল পোস্টার৷ তাই ছাপার পর বারবার দেখে নিচ্ছেন ছাপাখানার প্রুফরিডাররা৷ ভুল হওয়া যাবে না পোস্টারে৷ তাই পোস্টারে চোখ বুলাচ্ছেন বারবার৷ 

আসছে কাগজ : হাজার হাজার কপি পোস্টার ছাপতে প্রয়োজন কাগজের৷ ফকিরাপুলের প্রেস পাড়ার রাস্তায় শুধুই কাগজের ভ্যান৷ কাগজ নিয়ে কর্মচারীরা ঢুকছেন ছাপাখানায়৷

লেমিনেটিং আবশ্যক : প্রতিটি কাগজের পোস্টার তৈরির পর ছাপাখানা থেকেই পাতলা প্লাস্টিকে মুড়ে দেওয়া হয়৷ এই পদ্ধতিকে লেমিনেটিং পদ্ধতি বলা হয়৷ এতে পোস্টার টেকসই ও চকচকে হয়৷ এখানে ছাপা শেষে চলছে লেমিনেটিংয়ের কাজ৷  

চলছে কাটাকুটি : শুধু ছাপা হলেই তো চলবে না৷ পোস্টারের আকার-আকৃতি একদম ঠিকঠাক হওয়া চাই৷ নির্বাচন কমিশনের দেওয়া নিয়ম-কানুন ও মাপ অনুযায়ী হতে হবে পোস্টার৷ তাই ছাপার পর কাটাকুটিতেই অধিক মনোযোগ দেন কর্মীরা৷

কাজের চাপে ছাপাখানা শ্রমিক : নির্বাচনি পোস্টার ছাপানোর সুযোগ সব সময় আসে না৷ বছরে একবার বা পাঁচ বছরে একবার জাতীয় নির্বাচনের পোস্টার ছাপার কাজ পড়ে৷ তাই এই সময়টা শ্রমিকদের কাজও একটু বেশি হয়৷ তবে দিন শেষে ওভারটাইম আর বাড়তি বকশিসে এই চাপটুকু হাসিমুখেই মেনে নেন কর্মীরা৷  

পোস্টারের স্তূপ : প্রতিদিন ছাপা হচ্ছে লাখ লাখ পোস্টার৷ এক নির্দেশনায় আধুনিক ছাপা মেশিন থেকে বের হয় কয়েক হাজার পোস্টার একসঙ্গে৷ এরপর যাচাই-বাছাই ও কাটাকুটি, লেমিনেটিং শেষে প্রস্তুত হয় পোস্টার৷ এই পোস্টারই  ছড়িয়ে পড়বে দেশের নানা স্থানে৷

পাঠকের মন্তব্য