ড. কামালের গাড়িবহরে হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে গতকাল (শুক্রবার) মিরপুর স্মৃতিসৌধে ড. কামাল হোসেনের গাড়িবহরে হামলায় জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট।

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে শুক্রবার সকালে মিরপুর স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর বেরিয়ে আসার পথে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনসহ তার গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য জগলুল হায়দার আফ্রিকের গাড়িসহ ৬/৭টি গাড়ির ভাংচুর হয়। আহত হয়েছে ঢাকা-১৪ আসনের ধানের শীষের প্রার্থী সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিক সাজু, আ স ম আবদুর রব এবং তার গাড়ি চালকসহ ১০/১২ জন নেতা-কর্মী।

আজ নির্বাচন কমিশনে এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ জমা দিয়ে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল সাংবাদিকদের বলেন,  প্রায় সব জায়গায় প্রশাসন, পুলিশ ও আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা বিএনপির প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় আক্রমণ হচ্ছে। তাঁরা এসব আক্রমণ বন্ধের দাবি জানিয়েছেন।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা ড. কামাল হোসেনের ওপর হামলার পরও তার বিরুদ্ধে মামলা করার মধ্য দিয়ে সরকার নিম্নরুচির পরিচয় দিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ।

আজ (শনিবার) রাজধানীর নয়া পল্টনে বিএনপির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি। তবে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল এ প্রসঙ্গে তদন্তের আশ্বাস দিলেও সাংবাদিকদের নিকট ড. কামাল সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য করেছেন। এর আগে হামলার ঘটনা প্রসঙ্গে জেএসডি প্রধান আ স ম রব বলেছেন, আমাদের উপর হামলা করে ভয় দেখিয়ে নির্বাচনী মাঠ থেকে বের করে দিতে চায়। আমরা ভয় পাওয়ার মতো লোক নই: আমরা মাঠে থাকব। 

এদিকে, মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতি সৌধে সাংবাদিকদের সঙ্গে ‘বিরুপ’ আচরণের ঘটনায় কুষ্টিয়ায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে ড. কামাল হোসেনের বিরুদ্ধে। তাছাড়া, সাংবাদিকদের প্রতি ড. কামাল হোসেনের মন্তব্যের প্রতিবাদে আওয়ামীপন্থী মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সাংবাদিক ফোরাম আজ (শনিবার) সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে।

তবে, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের ফেসবুক পেইজে জরিপের ফলাফলে দেখা গেছে সংবাদকর্মীদের প্রতি ড. কামালের ক্ষোভ প্রকাশকে সমর্থন করেছেন ৮১ শতাংশ মানুষ। আর সমর্থন করেননি মাত্র ১৯ শতাংশ মানুষ।“ সংবাদকর্মীদের ওপর ড. কামালের ক্ষোভ সমর্থন করেন কি?-  এ প্রশ্নে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত পরিচালিত এ অনলাইন জরিপে অংশ নেয় ৩২ হাজার ১০০ পাঠক।

পাঠকের মন্তব্য