জাতীয় পার্টি সরকারি না বিরোধী দলে, সিদ্ধান্ত বৃহস্পতিবার

সদ্য অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয় পেয়েছে মহাজোট। এই জয়ের মাধ্যমে টানা তৃতীয় বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ। আর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আসনে জয়ী হয়ে প্রধান বিরোধী দল হচ্ছে জাতীয় পার্টি (জাপা)। তবে, বিষয়টি অনেকটা নিশ্চিত হলেও আগামীকাল (২ জানুয়ারি, বুধবার) দলীয় সিদ্ধান্ত জানাবে জাতীয় পার্টি।

প্রসঙ্গত, এই নির্বাচনে সর্বোচ্চ ২৬৬টি আসন পেয়ে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হয়। আর লাঙ্গল প্রতীকে নির্বাচন করে জাপা ২২টি আসনে জয়ী হয়। বিএনপি নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট জোট ৭টি আসন। এর মধ্যে বিএনপি ৫ ও গণফোরাম ২ আসনে জয়লাভ করে। 

সংসদে বিরোধী দল প্রসঙ্গে মঙ্গলবার (১ জানুয়ারি) সকালে এক ব্রিফিংয়ে জাপার মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, কাল দলের বৈঠক আছে। জাতীয় পার্টি সরকারি দলে না বিরোধে দলে থাকবে, সে বিষয়ে ওই বৈঠকেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

মহাজোটের নেতৃত্বে থাকা আওয়ামী লীগের একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা জানান, সংবিধান অনুযায়ী সরকার গঠনে অর্ধেকের বেশি আসন প্রয়োজন হয়। আসন সংখ্যার দিক থেকে যে দলটি দ্বিতীয় অবস্থানে থাকবে, সেটিই বিরোধী দল হবে। বিষয়টি নিয়ে সংশয় থাকার কোনও কারণ নেই। তবে কে বিরোধী দলীয় নেতা হবেন, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। তবে, জাপার সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদই পুনরায় বিরোধী দলীয় নেতা হবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। ২০১৪ সালের নির্বাচনের পরও বিরোধীদলীয় নেতা নিয়ে নানা আলোচনা ছিল। পরে সব সমালোচনার অবসান ঘটিয়ে রওশন এরশাদই বিরোধীদলীয় নেতা হন।

জাপার একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বর্তমানে দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শারীরিক অবস্থা ভালো নয়। কয়েকদিনের মধ্যে চিকিৎসার জন্য আবারও সিঙ্গাপুর যাওয়ার কথা রয়েছে তার। ফলে, দলটির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদই বিরোধী দলের নেতা হচ্ছেন, এটা অনেকটাই নিশ্চিত।

জাপার নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক নেতার সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের বাইরে দলটির একক প্রার্থী ছিল দেড় শতাধিক। এসব প্রার্থীর মধ্যে এখনও ক্ষোভ বিরাজ করছে। এছাড়া মনোনয়নবঞ্চিতরাও এখন ক্ষোভ প্রকাশ করছেন সিনিয়র নেতাদের কাছে।

জানা গেছে, নানা ইস্যুতে দলটির নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা এখন কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। তবে, রওশন এরশাদের সমর্থকদের পাল্লা ভারী। কিন্তু কে হবেন বিরোধী দলীয় নেতা, সে প্রসঙ্গে কোনও নেতাই মন্তব্য করতে রাজি হননি।

পাঠকের মন্তব্য