শুরু হতে যাচ্ছে এসএসসি পরীক্ষা

প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিজ্ঞাপন

আগামী ২ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হতে যাচ্ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। আর এই পরীক্ষা শুরুর আগেই প্রশ্নপত্র ফাঁস করে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের হাতে তুলে দিতে সক্রিয় হয়ে উঠেছে একাধিক প্রতারক চক্র। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম- ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপসহ বিভিন্ন মাধ্যমে গ্রুপ ও পেজ খুলে মাত্র ১০০ থেকে ৫০০ টাকার বিনিময়ে প্রশ্ন বিক্রির অফার দেয়া হচ্ছে। প্রশ্নপত্র হাতে তুলে দেয়া হবে বলেও শতভাগ গ্যারান্টি দেয়া হচ্ছে।

তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নজরদারি করছে বলে জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম ডিভিশন।

এ পরীক্ষা সামনে রেখে গত ২৭ জানুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জাতীয় মনিটরিং ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস ও নিরাপত্তাজনিত কারণে আজ (২৭ জানুয়ারি) থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সব কোচিং সেন্টার থাকবে। এবারও পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে। যদি বিশেষ কোনো কারণে কারো দেরি হয় সেই ক্ষেত্রে দেরির কারণ ও পরীক্ষার্থীর নাম-ঠিকানা লিখে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, প্রশ্নফাঁস রোধে আরেকটি পদক্ষেপ হচ্ছে, মোবাইল ফোনের ব্যবহার সীমিত করা। কেবল কেন্দ্র সচিব ক্যামেরাবিহীন ও ইন্টারনেট সংযোগ পায় না এমন মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন। পরীক্ষা কেন্দ্রের চারপাশে ১৪৪ ধারা জারি করা হবে। এ ছাড়া পরীক্ষা ও প্রশ্ন বহনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেউ কোনো মোবাইল ফোনই ব্যবহার করতে পারবেন না। পরীক্ষার কাজে জড়িত নন এমন কেউ কেন্দ্রে যেতে পারবেন না। এসব নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গের দায়ে সংশ্লিষ্টদের শাস্তি পেতে হবে। আমরা প্রত্যাশা করব- সংশ্লিষ্ট সবাই সুষ্ঠু পরীক্ষা গ্রহণে সহায়তা করবেন।

যারা প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিজ্ঞাপন দিচ্ছে তাদের নজরদারি করা হচ্ছে শিক্ষামন্ত্রী এমন তথ্য জানানোও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় প্রশ্নফাঁসের একাধিক চক্র। সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমের বিভিন্ন সাইটে দেখা গেছে, ফেসবুক গ্রুপ, ফেসবুক মেসেঞ্জার গ্রুপ এবং হোয়াটস অ্যাপে ১০টির বেশি এমন গ্রুপ রয়েছে যারা প্রশ্নপত্র সরবরাহের বিজ্ঞাপন দিয়ে যাচ্ছে একের পর এক। এর মধ্যে আছে- এসএসসি অল বোর্ড কোশ্চেন আউট ২০১৯, এসএসসি কোশ্চেন আউট-২০১৯, এসএসসি কোশ্চেন সল্যুশন, জেএসসি-এসএসসি-এইচএসসি কোশ্চেন আউট, ফেসবুক মেসেঞ্জার গ্রুপ এসএসসি ব্যাচ ২০১৯, হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপ এসএসসি ২০১৯ কিউ গ্রুপ, এসএসসি মিশন ২০১৯সহ বেশ কয়েকটি গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে।

এসব গ্রুপে সক্রিয় কয়েকটি ফেসবুক প্রোফাইলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সক্রিয় ফয়সাল আহমেদ পাটোয়ারি। এ ছাড়া আরিয়ান খান, জাহিদুল আলম সরকার, জুয়েল আহমেদ, জীবন আহমেদ, নাহিদ আলী, এমএক্স মুহিতসহ অনেকেই। তবে এসব আইডির নামগুলো পরিবর্তন করতেও দেখা গেছে।

ফেসবুকে তাদের পোস্ট করা বিজ্ঞাপনগুলো ঘেঁটে দেখা গেছে তাদের প্রলোভনগুলো প্রায়ই একই রকম। শিক্ষাথীর্দরে উদ্দেশে বলা হচ্ছে- ‘এসএসসি ২০১৯ এর প্রশ্ন দিবো, কোনো অ্যাডভান্স লাগবে না। ১০০ ভাগ কমনের পর টাকা দিবা। প্রতি প্রশ্নের টাকা পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর দিতে হবে ৩০০ টাকা করে। তাই প্রশ্ন নিতে চাইলে জলদি ইনবক্স করো।’

এদিকে প্রশ্নপত্র ফাঁসের যত প্রোলভোনই আসুক এরসবই ভুয়া বলে উল্লেখ করেছেন আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির প্রধান ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক জিয়াউল হক।

তিনি বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো সুযোগ নেই। খুবই কঠোর নিরাপত্তার মাধ্যমে প্রশ্নপত্রের সুরক্ষা নিশ্চিত করা হয়েছে। এ ছাড়া এবার প্রশ্নফাঁস এবং নকল রোধে কঠোর নীতি অবলম্বন করা হচ্ছে।’

প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে মন্ত্রণালয়ের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের বিষয় জানাতে গিয়ে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান জিয়াউল হক বলেন, ‘২০১৮ সালে প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে যেসব উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল, এবার তার চেয়েও ভিন্ন কিছু কৌশল আমরা নিয়েছি। এবার প্রশ্নপত্রের সেট অনেক বেশি। তবে কত সেট হবে তা আগে থেকেই জানানো যাবে না। প্রয়োজনে ভিন্ন প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেয়ারও ব্যবস্থা করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

অন্যদিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম ডিভিশন থেকে জানা গেছে, সামাজিক মাধ্যমে ভুয়া প্রশ্নপত্র পোস্ট ও গুজব রটনাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনতে সাইবার ইউনিট ও গোয়েন্দা পুলিশের সমন্বয়ে ১০টি স্পেয়ার হিট টিমও গঠন করা হয়েছে।

এ ছাড়া ইলেকট্রনিক ডিভাইস দিয়ে নকল রোধে পরীক্ষা কেন্দ্রে বসানো হবে ম্যাগনেট, অপ্টিক ও ফ্রিকোয়েন্সি ডিটেক্টর। ফলে কোনোভাবেই প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার সুযোগ নাই। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের যেসব গ্রুপে যারা প্রশ্ন সরবরাহ করবে বলে চটকদার বিজ্ঞাপন দিচ্ছে, সেগুলো ভুয়া বলেও দাবি করে সংস্থাটি।

ডিএমপির সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম ডিভিশনের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. আলিমুজ্জামান বলেন, ‘সামাজিক মাধ্যমে যে চক্রটি এইসব ভুয়া পোস্ট দিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে তাদেরকে নজরদারিতে রাখা হয়েছে। আমাদের টিম অভিযান চালচ্ছে। তাদেরকে আটক করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। দ্রুতই তাদের আটক করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

এদিকে প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে এবার অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল পেপারের খামে প্রশ্নপত্র পাঠানো হবে বলে গত কয়েকদিন আগেই ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। তিনি বলেছেন, ‘প্রশ্নফাঁস রোধে অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল পেপারের খামে প্রশ্নপত্র পাঠানো হবে প্রতিটি কেন্দ্রে। খাম কেউ আগে খুলে ফেললে ধরা পড়ে যাবে।’

এ ছাড়া শিক্ষামন্ত্রণালয় নেয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আজ রোববার থেকে সারাদেশের সবধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ রয়েছে। এইসব কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে পরীক্ষা শেষ না হওয়া পর্যন্ত অর্থাৎ আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। তবে অভিযোগ রয়েছে এখনও দেশের কোথাও কোথাও কোচিং সেন্টার খোলা পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য, এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় সর্বমোট ২১ লাখ ৩৭ হাজার ৩৬০ শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। এদের মধ্যে দাখিলে অংশ নিচ্ছে ৩ লাখ ১০হাজার ১৭২জন। এসএসসি ভোকেশনালে পরীক্ষা দেবে ১ লাখ ২৬ হাজার ৩৭২জন। সারাদেশে মোট পরীক্ষা কেন্দ্র ৩ হাজার ৪৯২টি।

পাঠকের মন্তব্য