রামপালে বোমা হামলায় বিএনপি নেতার মৃত্যু

বাগেরহাটের রামপালে বোমা হামলা চালিয়ে উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক খাজা মঈনুদ্দিন আখতারকে (৫২) হত্যা করেছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রামপাল উপজেলার ভরসাপুর বাজার এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায়। এই ঘটনার পর এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে, অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে কারা কী কারণে এই বোমা হামলা তা তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেনি পুলিশ।

খাজা মঈনুদ্দিন আখতার রামপাল উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও উজলকুড় ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ছিলেন। তার বাড়ি রামপালের বামুনডহর গ্রামে।

পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে খাজা মঈনুদ্দিন আখতার ভরসাপুর বাজারের ভেতরের রাস্তায় দাড়িয়ে নজু শেখ নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলছিলেন। এসময় একদল অজ্ঞাত দুর্বৃত্ত পেছন থেকে তার উপর বোমা নিক্ষেপ করে পালিয়ে যায়। বোমাটি বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয় এবং চারিদিক ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। বোমার ভয় কাটতেই স্থানীয়রা রক্তাক্ত অবস্থায় খাজা মঈনুদ্দিন আখতারকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। তবে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এই ঘটনার পর সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে জানিয়ে পুলিশ সুপার বলেন, পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক রয়েছে। তবে কারা কী কারণে এই বোমা হামলা চালিয়েছে তা অনুসন্ধান করতে কাজ শুরু করেছে পুলিশ। তবে এখনও কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রিপন রায় জানান, বোমা হামলায় আহত খাজা মঈনুদ্দিন আখতারকে মৃত অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করছেন এই শিক্ষক।

রামপাল উপজেলা বিএনপির সভাপতি হাফিজুর রহমান তুহিন বলেন, খাজা মঈনুদ্দিন আখতার উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন। তার উপর যারা বোমা হামলা চালিয়েছে তাদের খুঁজে বের করতে প্রশাসনের কাছে দাবি জানান তিনি।

পাঠকের মন্তব্য