যা বললো কাশ্মীরে সন্ত্রাসী হামলাকারী জঙ্গি

ভারতের জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামার অবন্তীপুরে সেনা কনভয়ে জঙ্গি হামলার দায় নিয়েছে কাশ্মীরের স্বাধীনতাকামী ইসলামপন্থী জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ। এই বর্বর হামলায় অন্যতম হামলাকারী হিসেবে উঠে এসেছে আদিল হুসেন দার ওরফে ওয়াকাস নামে এক জঙ্গির নাম। প্রাথমিক তদন্তে জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ জানতে পেরেছে বৃহস্পতিবার সিআরপিএফ-এর কনভয়ে আত্মঘাতী হামলা চালিয়ে ছিলেন তিনিই।

ওই হামলার পর জঙ্গি সংগঠনটির পক্ষ থেকে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়। পিছনে জইশ-ই-মোহাম্মদের পতাকা আর সামনে সাজানো অসংখ্য স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিয়ে ওই ভিডিওতে গোটা কাশ্মীরকে ভারত বিরোধী সংগ্রামে যোগ দেওয়ার ডাক দিয়েছে আদিল হুসেন দার ওরফে ওয়াকাস।

পুলিশ রেকর্ড বলছে পুলওয়ামা জেলার গুন্ডিবাগে থাকত আদিল। তার দুই ভাই আছে। মাঝপথেই সে স্কুলের লেখাপড়ায় ইতি টেনে রাজমিস্ত্রি হিসেবে কাজ শুরু করে। তৌসিফ নামে আদিলের এক বন্ধুর দাদা মঞ্জুর আহমেদ দার ছিল জঙ্গি। ২০১৬ সালে সেনা অভিযানে তার মৃত্যু হয়। আর ওই বছরই মার্চ মাসে তৌসিফ এবং ওয়াসিম নামে আরও এক বন্ধুর সঙ্গেই নিখোঁজ হয়ে যায় আদিল।

এদিন হামলার পর আদিলের যে ভিডিও সামনে এসেছে, তাতে সে বলেছে, গত এক বছর সে জইশ-ই-মোহাম্মদ জঙ্গি হিসেবে কাটিয়েছে। কাশ্মীরিদের উদ্দেশ্যে সে বলছে, ‘এই ভিডিও যখন তোমাদের কাছে পৌঁছবে তখন আমি জান্নাতে থাকব।’

উত্তর কাশ্মীরের বার্তাবাহক হিসেবে সে বলে,‘এবার কাশ্মীরের বাকি অংশ এবং জম্মুর সময় এসেছে ভারত বিরোধী সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ার।’ বিভিন্ন সময়ে জইশ-ই-মোহাম্মদের চালানো একাধিক হামলার কথাও সে তুলে ধরেছে ওই ভিডিওতে।

পাঠকের মন্তব্য