‘নুরুলের ভিপি হিসেবে দায়িত্ব নেয়াকে সমর্থন করিনা’

অবশেষে ডাকসু ভিপি’র দায়িত্ব নিয়েছেন কোটা সংস্কার আন্দোলন নেতা নুরুল হক নুর৷ নির্বাচন বর্জন এবং ফের নির্বাচনের দাবিতে কর্মসূচি দেয়ার মাঝেই তাঁর এই দায়িত্ব গ্রহণ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন কেউ কেউ৷

শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে ডাকসুর নবনির্বাচিত কর্মকর্তাদের প্রথম বৈঠক হয় ডাকসু ভবনে৷ এই বৈঠকের মধ্য দিয়ে ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরসহ ২৫ জন এবং ১৮টি হল সংসদের কর্মকর্তারা দায়িত্ব নেন৷ আর ডাকসু ভবনের বাইরে কয়েকটি ছাত্রসংগঠনের নেতাকর্মীরা ফের ডাকসু নির্বাচনের দাবিতে অবস্থান নেন৷ তারা ডাকসুকে লাল কার্ড দেখান৷ ভিসি এবং ডাকসুর প্রেসিডেন্ট নতুন কমিটিকে এক বছরের জন্য দায়িত্বভার হস্তান্তর করেন৷ 

‘শিক্ষার্থীরা চেয়েছেন বলেই আমি দায়িত্ব নিয়েছি’

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ডাকসুর আজীবন সম্মানসূচক সদস্যপদ দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে৷ তবে নুর এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন বলে জানা যায়৷ নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ আছে উল্লেখ করে তিনি এই বিষয়ে গণমাধ্যমকে বলেন, প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচনের মাধ্যমে যে ডাকসু গঠিত হয়েছে, সেখানে প্রধানমন্ত্রীর মতো সম্মানিত ব্যক্তিকে অন্তর্ভুক্ত না করাই ভালো৷

প্রসঙ্গত, ১১ মার্চ ডাকসু নির্বাচন চলাকালে শুধুমাত্র ছাত্রলীগ ছাড়া সব ছাত্রসংগঠন ও প্যানেল কারচুপি ও অনিয়মের অভিযোগ তুলে নির্বাচন বর্জন করে৷ কিন্তু পরে রাতে ফলাফল ঘোষণায় দেখা যায় কোটা সংস্কার আন্দোলনের (বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ) নেতা নুরুল হক নুর ভিপি পদে নির্বাচিত হয়েছেন৷ তাঁর প্যানেলের আরো একজন প্রার্থী, আখতার হোসেন, সমাজসেবা সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন৷ তবে, ছাত্রলীগ মনোনীতরা ২৫টি পদের মধ্যে জিএসসহ ২৩টি পদে নির্বাচিত হন৷ এছাড়া ৬টি হলে কোটা সংস্কার ও স্বতন্ত্র প্যানেলের সদস্যরা জয় পান৷ 

‘তাঁর নৈতিক অবস্থান আমাদের হতাশ করেছে’

ডাকসু নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর পুর্নিনর্বাচনের দাবির মাঝেই নুর নির্বাচনে বিজয়ীদের সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন বঙ্গভবনে৷ তবে শুক্রবার অবধি তিনি ভিপি হিসেবে দায়িত্ব নেবেন কিনা সে বিষয়ে স্বচ্ছভাবে কিছু জানান নি৷ শনিবার ভিপি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা চেয়েছেন বলেই আমি দায়িত্ব নিয়েছি৷ একইসঙ্গে ফের নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনও চলবে৷

নুরের দায়িত্ব গ্রহণ প্রসঙ্গে বাম ছাত্রসংগঠনগুলোর প্যানেল প্রগতিশীল ছাত্রজোটের ভিপি পদপ্রার্থী লিটন নন্দী ডয়চে ভেলেকে বলেন, আমরা নুরের ভিপি হিসেবে দায়িত্ব নেয়াকে নৈতিকভাবে সমর্থন করিনা৷ একই সঙ্গে ভিপি'র দায়িত্ব নেয়া আবার নির্বাচন বাতিলের আন্দোলন করা বিপরীতমুখী৷ আমরা নির্বাচন বাতিলের দাবিতে আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যাবো৷ ২৮ মার্চ ভিসি কার্যালয় অভিমুখে আমাদের পদযাত্রা কর্মসূচি আছে৷

তিনি আরো বলেন, আমরা মনে করি জালিয়াতির নির্বাচন হয়েছে৷ ছাত্রলীগ বাদে আমরা সবাই নির্বাচন বর্জন করে ফের নির্বাচন দাবি করেছি৷ নুর এবং তাঁর সংগঠনও একই কথা বলেছে৷ এখন নুর ভিপি হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন৷ এটা তাঁর ব্যক্তিগত ব্যাপার৷ তিনি বলেছেন আন্দোলনও করবেন৷ এখন তিনি সেটা কিভাবে করেন দেখার বিষয়৷ 

‘ভিপির দায়িত্ব নেয়া আবার নির্বাচন বাতিলের আন্দোলন করা বিপরীতমুখী’

আর স্বতন্ত্র প্যানেল থেকে জিএস প্রার্থী এ আর এস এম আসিফুর রহমান বলেন, নুর আমাদের সাথে বসেছিলেন৷ আমরা বলেছি যে আমরা নির্বাচিত হলে দায়িত্ব নিতাম না৷ কারণ আমরা মনে করি এই নির্বাচন অবৈধ৷ তাই তিনি ভিপি হিসেবে দায়িত্ব নেবেন কিনা সেই সিদ্ধান্ত তাঁর ওপরই ছেড়ে দিয়েছিলাম৷ কারণ তিনি আলাদা প্যানেলে নির্বাচন করেছেন৷ আলাদা সংগঠন আছে৷

এদিকে, নুরকে নিয়ে নানা ধরনের সমস্যা হচ্ছে বলে দাবি করেছেন ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক এবং ডাকসুর এজিএস মো. সাদ্দাম হোসেন৷ তিনি বলেন, তাঁর (নুর) নৈতিক অবস্থান আমাদের হতাশ করেছে৷ কারণ যখন যে পাত্রে রাখা হচ্ছে, সেই পাত্রের রঙ এবং আকার ধারণ করার মধ্য দিয়ে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ভিপি পদটিকে যে সম্মান করতো তা ধারাবাহিকভাবে ক্ষুন্ন করেছেন৷'

‘আমরা নির্বাচিত হলে দায়িত্ব নিতাম না’

তিনি বলেন, আমরা তাকে বারবার আহ্বান করেছি যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আমাদের ম্যান্ডেট দিয়েছেন, আসুন তাদের জন্য একসঙ্গে কাজ করি৷ কিন্তু তাঁর মধ্যে রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের যে অভীপ্সা, প্রতিক্রিয়াশীলদের সঙ্গে যে আঁতাত তা আমাদের বারবার হতাশ করেছে৷

নুরের এই দায়িত্ব নেয়া এবং তাঁর নৈতিক অবস্থান জানতে চাইলে তিনি বলেন, নির্বাচন বর্জন করেছি৷ তারপরও ব্যাপক কারচুপি করেও আমাকে (ভিপি) এবং আখতারকে (সমাজ সেবা সম্পাদক) হারাতে পারেনি৷ তাই আমি (শুরুতে) এই দু'টি ছাড়া বাকি ২৩ পদে পুর্নর্নিবাচন দাবি করেছিলাম৷ কিন্তু, যখন সাধারণ ছাত্ররা নির্বাচন বাতিল করে সব পদে নির্বাচন চেয়েছে, আমিও তাদের সাথে একমত হয়েছি৷ নতুন নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত যেহেতু এই ফলাফলই বহাল আছে, সেহেতু দায়িত্ব পালনে বাধা নেই৷ তাই, আমি মনে করি আমাদের দায়িত্ব পালন করা উচিত৷ সেই বিবেচনায়ই আমি দায়িত্ব নিয়েছি৷

২৮ বছর পর একটা শুভ সূচনাতো হয়েছে, বলেন তিনি৷

পাঠকের মন্তব্য