জাতীয় পার্টির প্রেক্ষাগৃহে চলছে....‘সার্কাস’, ‘সার্কাস’

২০ মার্চ বেশ ঘটা করে জাতীয় পার্টি সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচএম এরশাদের ৯০তম জন্মদিন পালন করে। তার উপস্থিতিতে কাটা হয় বিশাল কেক। পরদিন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদেরকে নিয়ে এরশাদ বারিধারার বাসায় দলীয় নানা বিষয়ে আলোচনা করেন।

কিন্তু, এক রাতের ব্যবধানে ২২ মার্চ জিএম কাদেরকে দল পরিচালনায় ব্যর্থ উল্লেখ করে কো-চেয়ারম্যান পদ থেকে সরিয়ে দেন এরশাদ। এরপর ২৩ মার্চ জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতার পদ থেকেও তাকে অপসারণ করে রওশন এরশাদকে নিয়োগ করেন।

আরেকটু পেছনে তাকালে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগ মুহূর্তে কোনো কারণ ছাড়াই পার্টির মহাসচিবের পদ থেকে এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারকে সরিয়ে দেন এরশাদ। এরপর থেকেই মূলত দলটিতে নানা নাটক চলতে থাকে। নাটকের শেষ কোথায়, স্পষ্ট না হলেও মহাসচিব পদেও এরশাদ পরিবর্তন আনছেন বলে জানা গেছে।

এবার তিনি দল পরিচালনায় মসিউর রহমান রাঙ্গার সাংগঠনিক ব্যর্থতাকে সামনে এনে সেই পদে সাবেক মহাসাচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারকে ফিরিয়ে আনছেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্রের ২০/১/ক ধারা মোতাবেক পার্টির চেয়ারম্যানকে একক ক্ষমতার অধিকার দিয়েছে। ফলে তিনি চাইলেই যে কোনো সময় যে কাউকে দল থেকে অপসারণ যেমন করতে পারেন, তেমনি অন্তর্ভূক্তও করতে পারেন।

এসবের নেপথ্য কারণ খুঁজতে গিয়ে জানা গেছে, জাতীয় পার্টি এখন তিন ধারায় বিভক্ত। যার একটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ। অপর অংশের কলকাটি নাড়ছেন সাবেক মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওয়াদার। আর স্বয়ং এরশাদ দলের একটি অংশের নেতৃত্বে রয়েছেন। এই অংশের নেতারা আবার চেয়ারম্যান যেদিকে যান, সেদিকেই পাল তুলে হাওয়া দিতে থাকেন।

এ বিষয়ে জাপার এক সিনিয়র নেতা আক্ষেপ করে বলেন, ‘গঠনতন্ত্রেই এইচএম এরশাদকে সর্বময় ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। তিনি এরই সুযোগ কাজে লাগিয়ে দলে অস্থিরতা তৈরি করেছেন। মানুষ এখন দলটি সম্পর্কে বিভ্রান্ত।’ নাম প্রকাশ না করার শর্তে জাপার এক প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, ‘আমরা এখন স্পষ্ট তিনটি ধারায় বিভক্ত। একটি অংশ সরকার সমর্থক। আরেকটি অংশ সরকার বিরোধী। মাঝখানের অংশটি চেয়ারম্যান এরশাদের।’

তিনি স্বীকার করেন, ‘চেয়ারম্যান এরশাদকে যখন যে অংশ বেশি প্রভাবিত করতে পারছেন, তারাই সব পদ ও সুবিধা ভোগ করছেন। কারণ, এই দলে তার সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। এসব নিয়ে মুখে কিছু বলার নেই। মনের ক্ষোভ মনেই রাখতে হবে।’ তথ্যসুত্র- পরিবর্তন ডটকম

পাঠকের মন্তব্য