এক কলেজ ছাত্রীকে ব্ল্যাক মেইলের মাধ্যমে ধর্ষণের অভিযোগ

এক কলেজ ছাত্রীকে ব্ল্যাক মেইল

এক কলেজ ছাত্রীকে ব্ল্যাক মেইল

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জের এক কলেজ ছাত্রীকে ব্ল্যাক মেইলের মাধ্যমে পাঁচ বছর ধরে ধর্ষণের অভিযোগে রহিম বাদশা (৪০) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। আজ শুক্রবার সকালে পাশের জেলা নওগাঁর সাপাহার উপজেলার সোনাডাঙ্গা গ্রামের একটি বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

গ্রেপ্তারকৃত রহিম বাদশা চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার তেলকুপি গ্রামের একরামুল হকের ছেলে। তিনি তেলকুপি উচ্চ বিদ্যালয়ের করণিক পদে কর্মরত ছিলেন।

আজ শুক্রবার দুপুর ১২টায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ র‌্যাব ক্যাম্পের ইনচার্জ স্কোয়াড্রন লিডার সাঈদ আবদুল্লাহ আল মুরাদ।

তিনি জানান, তেলকুপি উচ্চ বিদ্যালয়ের করণিক রহিম বাদশা একই স্কুলের এক ছাত্রীকে ৫ বছর ধরে ধর্ষণ করে আসছিল। গোপনে ধারণ করা ওই ছাত্রীর অশ্লীল ছবি সবার কাছে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে তাকে ব্ল্যাকমেইল করে রহিম। ২০১৮ সালে ছাত্রীটি এসএসসি পাস করে ওই স্কুল থেকে বেরিয়ে গেলেও তাকে ছাড়েনি রহিম বাদশা। বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রতি শুক্রবার বিভিন্ন বাড়িতে নিয়ে গিয়ে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করতো সে। পরবর্তীতে ছাত্রীর পরিবার বিষয়টি জানতে পেরে গত ১৮ মার্চ রহিম বাদশার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে শিবগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর থেকেই পলাতক ছিলেন রহিম বাদশা।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ র‌্যাব ক্রাম্পের একটি টিম আজ শুক্রবার ভোর ৮টার দিকে নওগাঁ জেলার সাপাহার উপজেলার সোনাডাঙ্গা গ্রামের একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে রহিম বাদশাকে গ্রেপ্তার করে। এ সময় তার কাছ থেকে মোবাইল ফোনে ধারণ করা ভিডিওসহ অন্যান্য আলামত উদ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যাব কর্মকর্তা আরো জানান, নওগাঁর সাপাহার সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিল ধর্ষক রহিম বাদশা। কিন্তু পালিয়ে যাওয়ার আগেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই ছাত্রীকে ব্ল্যাকমেইল করে ধর্ষণের কথা অকপটে স্বীকার করেছেন রহিম।

পাঠকের মন্তব্য