লক্ষ্মীপুরের একসঙ্গে জন্ম নেয়া সাতটি শিশুর মৃত্য

 সাতটি শিশুই মারা গেছে

সাতটি শিশুই মারা গেছে

লক্ষ্মীপুরে গর্ভধারণের পাঁচ মাসের মাথায় একসঙ্গে জন্ম নেয়া সাতটি শিশুই মারা গেছে। এর মধ্যে চারটি ছেলে ও তিনটি মেয়ে শিশু ছিল। নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্ম নেয়ার কারণে তাদেরকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। শুক্রবার রাত থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত বিভিন্ন সময় তাদের মৃত্যু হয়েছে।

এর আগে রাত পৌনে ১০টার দিকে লক্ষ্মীপুরের সিটি হাসপাতালে একসঙ্গে ৭ সন্তানের জন্ম দেন নাজমা আক্তার (১৮) নামে এক গৃহবধূ। তিনি সদর উপজেলার লাহারকান্দি গ্রামের পাটওয়ারী বাড়ির প্রবাসী মো. রাজুর স্ত্রী। সিটি হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আবদুল­াহ নওশের সাত শিশুর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, মাত্র পাঁচ মাসে জন্ম হওয়ায় শিশুদেরকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। তবে শিশুদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু বিভাগে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছিল। ঢাকায় নেয়ার আগেই ওই সাত শিশুর মৃত্যু হয়। পরিবারের লোকজন তাৎক্ষণিক মরদেহ বাড়িতে নিয়ে গেছেন। তবে প্রস‚তি নাজমা সুস্থ আছেন।

নাজমা আক্তারের মা শাহেদা বেগম জানান, শিশুদেরকে ঢাকা নেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছিল। কিন্ত এর মধ্যেই তারা মারা গেছে। তার মেয়ে সুস্থ আছে। হাসপাতালের ব্যবস্থাপক ওমর ফারুক বলেন, নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্ম নেয়ায় শিশুগুলো আশঙ্কজনক অবস্থায় ছিল। তাদের ঢাকা নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছিল। ঢাকা নেয়ার আগেই তারা মারা গেছে।

পাঠকের মন্তব্য