যৌন হেনস্তার অভিযোগ, কারাগারে মীরাক্কেল খ্যাত কায়কোবাদ

মীরাক্কেল খ্যাত কায়কোবাদ

মীরাক্কেল খ্যাত কায়কোবাদ

প্রেমের সম্পর্ক স্থাপন করার পরও যৌন হেনস্তার অভিযোগে গ্রেপ্তার মীরাক্কেল খ্যাত প্রতিযোগী মহম্মদ কায়কোবাদ৷ নিজেরই সহপাঠীর সঙ্গে এমন জঘন্য আচরণের অভিযোগ উঠেছে তাঁর বিরুদ্ধে৷ কায়কোবাদ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের স্নাতকোত্তরের ছাত্র। তার বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়েরই ছাত্রী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করার পর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

২০১৬ সালে টালিগঞ্জের বিখ্যাত টেলিভিশন কমেডি রিয়েলিটি শো ‘মীরাক্কেল আক্কেল চ্যালেঞ্জার-৯’ এর প্রতিযোগী ছিলেন মহম্মদ কায়কোবাদ৷ হাটহাজারি থানার ওসি বেলালউদ্দিন জাহাঙ্গীর জানিয়েছেন, ‘ছাত্রীর অভিযোগ, ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারি কায়কোবাদের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। দু’জনের মধ্যে প্রণয়ের সম্পর্ক গড়ে ওঠে৷ কিন্তু পরে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিভিন্নভাবে তাঁকে শারীরিক সম্পর্ক গড়তে বাধ্য করা হয়। এনিয়ে একাধিকবার ব্ল্যাকমেলও করা হয়৷ গত সোমবার ওই ছাত্রী শাহ আমানত হলে কায়কোবাদের সঙ্গে দেখা করতে যান৷ এরপরই তাঁকে মারধর করে টেনে,হিঁচড়ে হলের অতিথি কক্ষে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেও তাঁর সঙ্গে আপত্তিজনক আচরণ করা হয়েছে বলে তিনি মামলায় উল্লেখ করেছেন৷’ পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা গিয়ে ছাত্রীটিকে উদ্ধার করে।

ওসি বেলালউদ্দিন জানিয়েছেন ‘আসামিকে আটক করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। হাটহাজারি থানার এসআই রাজীব শর্মাকে মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তাঁকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের এজলাসে তোলা হলে জামিনের আবেদন খারিজ করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে৷’ ২০১৬ সালে মীরাক্কেল আক্কেল চ্যালেঞ্জার-৯ এর প্রথম দশে ছিলেন মহম্মদ কায়কোবাদ৷ নিজের কথ্য ভাষায়, হাস্যকৌতুক পরিবেশনায় দর্শকের নজর কেড়েছিলেন চট্টগ্রামের এই তরুণ৷ বিচারকমণ্ডলীর বেশ প্রশংসাও পেয়েছিলেন৷ কিন্তু শেষমেশ প্রতিযোগিতা থেকে ছিটকে যাওয়ার পর ফের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভরতি হয়ে নাটক নিয়ে পড়শোনা শুরু করেন৷ কিন্তু এসবের মাঝেই এমন এক ঘটনায় জড়িয়ে পড়ায়, তাঁর ইমেজে বেশ কালি লাগল বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল৷

পাঠকের মন্তব্য