জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক গণফোরামের নেতৃত্বে পরিবর্তন

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক গণফোরামের নেতৃত্বে পরিবর্তন

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক গণফোরামের নেতৃত্বে পরিবর্তন

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শরিক গণফোরামের নেতৃত্বে পরিবর্তন আনা হয়েছে। সভাপতি পদে আবারও ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও বর্তমান সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। আর সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে সাবেক অর্থমন্ত্রী প্রয়াত শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা কিবরিয়াকে।

রোববার রাজধানীর প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন।নতুন কমিটিতে নির্বাহী সভাপতি করা হয়েছে অ্যাডভোকেট সুব্রত চেৌধুরীকে।তিনি আগের কমিটিতেও একই পদে ছিলেন। আর আগের কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টুকে নতুন কমিটিতে এক নম্বর সদস্য করা হয়েছে।

দীর্ঘ আট বছর পর গত ২৬ এপ্রিল গণফোরামের বিশেষ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। ওই দিন কমিটি ঘোষণা করা হয়নি। আজ সেই কমিটি ঘোষণা করা হল। গণফোরামে নেতৃত্বের বদল আসার বিষয়ে বেশ কিছু দিন ধরেই রাজনৈতিক মহলে আলোচনা হচ্ছিল।সাধারণ সম্পাদক পদে রেজা কিবরিয়ার নামটি জোরোশোরে উচ্চারিত হচ্ছিল।

এ বিষয়ে জানতে রোববার দুপুরে ড. রেজা কিবরিয়াকে ফোন করা হয়। বেলা ১টার দিকে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, রাজনীতিতে বহু কিছুই ঘটতে পারে। আর কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুণ। ৩টায় সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন ড. কামাল হোসেন। তখন আপনার এ প্রশ্নের উত্তর জানতে পারবেন।

গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক পদে পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা নাকচ না করে দিয়ে ড. কামাল হোসেনের ঘনিষ্ঠ ড. রেজা কিবরিয়া জানিয়েছিলেন, আজই কমিটি ঘোষণা করা হবে।

রেজা কিবরিয়া সাধারণ সম্পাদক হওয়ায় বিদায় নিতে হলো গত ৯ বছর ধরে সাধারণ সম্পাদক পদে থাকা মোস্তফা মোহসীন মন্টুকে।

প্রসঙ্গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে রেজা কিবরিয়া গণফোরামে যোগ দেন। ২০১৮ সালের ১৮ নভেম্বরে গণফোরামে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দেন তরুণ রেজা। তিনি ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে হবিগঞ্জ-১ আসন থেকে নির্বাচন করেন।

জানা গেছে, গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোকাব্বির খানের সংসদ সদস্য হিসেবে শপথগ্রহণের ইস্যুতে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে মোস্তফা মোহসীন মন্টুর দূরত্ব সৃষ্টি হয়। একই ইস্যুতে গণফোরামের আরও কয়েকজন সিনিয়র নেতা দলীয় প্রধানের ওপর ক্ষুব্ধ।

এ ছাড়া বিভিন্ন রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নিয়ে দলটির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে মতবিরোধ চলছে গত কয়েক মাস ধরে। দলের প্রতিষ্ঠাতা ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে জ্যেষ্ঠ নেতাদের দূরত্বও তৈরি হয়। চলছে মান-অভিমানও। এসব কারণেই মূলত নেতৃত্বে বদল এসেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ১৯৯২ সালে গণফোরাম গঠনের পর থেকে বিভিন্ন ব্যক্তি দলটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। তারা হলেন- আবুল মাল আবদুল মুহিত, প্রকৌশলী আবুল কাশেম, সাইফুদ্দিন আহমেদ মানিক, অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী (ভারপ্রাপ্ত); সর্বশেষ ২০১১ সাল থেকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন মোস্তফা মোহসীন মন্টু।

পাঠকের মন্তব্য