মসজিদে জুতা রাখা নিয়ে কথাকাটাকাটির জেরেই হত্যা  

মসজিদে জুতা রাখা নিয়ে কথাকাটাকাটির জেরেই হত্যা  

মসজিদে জুতা রাখা নিয়ে কথাকাটাকাটির জেরেই হত্যা  

টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি : মাদারীপুরে রাজৈর উপজেলায় মসজিদে তারাবির নামাজ আদায়রত অবস্থায় মজিবর বেপারি (৫০) নামে এক মুসল্লিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। কিন্তু প্রতিপক্ষরা এতই নির্মম যে, তারা মজিবরকে কোপানোর পর এলাকায় উল্লাস করে বলেন, ‘দিছি শেষ করে; ও আর বাঁচবে না।’

মঙ্গলবার রাতে রাজৈর উপজেলার আমগ্রাম ইউনিয়নের মঠবাড়ি এলাকায় মজিবর বেপারির স্বজনরা এ তথ্য জানান। নিহত মজিবর বেপারি একই এলাকার মৃত নওয়াব আলী বেপারির ছেলে।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, মজিবর বেপারির সঙ্গে তার ফুফাতো ভাই একই এলাকার আশরাফ আলী ও লিংকন বেপারির মধ্যে ইউপি নির্বাচন কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।

মঙ্গলবার মাগরিবের নামাজ পড়ার সময় মসজিদে জুতা রাখা নিয়ে মজিবর ও লিংকনের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এরই জের ধরে লিংকন ও আশরাফ লোকজন নিয়ে মজিবরকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

রাতে তারাবির নামাজরত অবস্থায় মজিবরকে মসজিদের ভেতরে পেছন থেকে এলোপাতাড়িভাবে কোপায়। এ মুহূর্তে আত্মরক্ষার্থে মজিবর দৌড় দেয়। এ সময় প্রতিপক্ষরা তাকে ধাওয়া করে পেছন থেকে কোপাতে থাকে। তার চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে লিংকন ও তার লোকজন সটকে পড়ে।

গুরুতর আহতাবস্থায় রাজৈর হাসপাতালে নেয়ার পথে মজিবর মারা যায়।

নিহত মজিবরের স্ত্রী নাছিমা বেগম জানান, জুয়েল ইউপি নির্বাচনে মেম্বর পদে দাঁড়িয়েছিল। তাকে ভোট না দেয়ায় আমার স্বামীকে মারার জন্য লিংকন, আশরাফ ও জুয়েল এর আগেও দুবার চেষ্টা করেছে।

মঙ্গলবার তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে তারা আমার স্বামীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। ঘটনার পর তারা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

রাজৈর থানার ওসি শাহজাহান মিয়া জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষরা মজিবরকে মসজিদের ভেতর কুপিয়ে আহত করে। পরে হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান। পুলিশ নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

পাঠকের মন্তব্য