৭৭ বার সঙ্গমেও বন্ধুর স্ত্রীকে গর্ভবতী করতে ব্যর্থ, মামলা

৭৭ বার সঙ্গমেও বন্ধুর স্ত্রীকে গর্ভবতী করতে ব্যর্থ, মামলা

৭৭ বার সঙ্গমেও বন্ধুর স্ত্রীকে গর্ভবতী করতে ব্যর্থ, মামলা

পিতৃত্বের স্বাদ পেতে বন্ধুর উপরই ভরসা করেছিলেন। কিন্তু স্ত্রীর সঙ্গে ৭৭ বার যৌনতায় লিপ্ত হয়েও সন্তান উপহার দিতে পারেননি বন্ধু। শেষপর্যন্ত বন্ধুর বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা ঠুকলেন এক ব্যক্তি! শুনতে অবিশ্বাস্য মনে হলেও, এমনই ঘটনা ঘটেছে আফ্রিকার তানজানিয়ায়। যিনি এমন কাণ্ড ঘটিয়েছেন, তিনি আবার পেশায় পুলিশকর্মী।

বছর ছয়েক আগে বিয়ে করেছেন। কিন্তু, পিতৃত্বের স্বাদ থেকে বঞ্চিত ছিলেন তানজানিয়ার পুলিশকর্মী দারিয়াস মাকাবাকো। কারণ, তিনি যে শারীরিকভাবে অক্ষম! ডাক্তারি ভাষায়, বন্ধ্যা বা ইনফার্টাইল সমস্যায় ভুগছিলেন ওই পুলিশকর্মী। চিকিৎসক সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন, দারিয়াসের সমস্যার কারণে ওই দম্পতির সন্তান হওয়া সম্ভব নয়। এদিকে সন্তানহীনতার কারণে রীতিমতো মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন দারিয়াস মাকাবাকোর স্ত্রীও। অগত্যা এক অদ্ভূত ফন্দি আঁটেন ওই পুলিশকর্মী।

কী সেই ফন্দি? নাহ, টেস্ট টিউব বা অন্য কোনও কৃত্রিম পদ্ধতিতে সন্তান চাননি দারিয়াস। বরং বন্ধু ইভান্সের দ্বারস্থ হন তিনি। অনুরোধ, ‘আমার স্ত্রীকে অন্তঃসত্ত্বা করতে হবে’! শুধু তাই নয়, বন্ধুকে রীতিমতো শর্তও দেন তানজানিয়ার ওই পুলিশ। জানিয়ে দেন, আগামী ১০ সপ্তাহের ৩ বার করে তাঁর স্ত্রীর সঙ্গে যৌনতায় লিপ্ত হতে পারবেন ইভান্স, তার মধ্যে ‘কাজ’ হাসিল করতে হবে! বন্ধুর এমন অদ্ভূত প্রস্তাবের ইভান্স প্রথমে রাজি হননি বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু যখন দারিয়াস ভারতীয় মুদ্রায় ৬০ হাজার টাকা দেবেন বলেন, তখন আর না করতে পারেননি ইভান্স। 

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, দারিয়াস মাকাবাকোর স্ত্রী সঙ্গে ৭৭ বার যৌনতায় লিপ্ত হন ইভান্স। কিন্তু, তাতেও বিশেষ লাভ হয়নি। অর্থাৎ টাকা নিয়ে শেষপর্যন্ত ‘কাজ’টা করতে উঠতে পারেননি ইভান্স। তাই তাঁর বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগে মামলা ঠুকেছেন পুলিশকর্মী দারিয়াস মাকাবাকো ! 

পাঠকের মন্তব্য