সৌদি যাওয়ার পথে শাহজালালে আটক ৫ রোহিঙ্গা

সৌদি যাওয়ার পথে শাহজালাল বিমানবন্দরে আটক ৫ রোহিঙ্গা

সৌদি যাওয়ার পথে শাহজালাল বিমানবন্দরে আটক ৫ রোহিঙ্গা

বাংলাদেশি পাসপোর্ট ব্যবহার করে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে যাওয়ার সময় ৫ রোহিঙ্গাকে আটক করল ইমিগ্রেশন পুলিশ। রবিবার সকাল ৭টা ১৫ নাগাদ গালফ এয়ারের একটি বিমানে ওঠার সময় তাদের আটক করা হয়। আটক পাঁচজনের নাম- আরিফা বেগম, মনিকা হোসাইন, সানোয়ারা বেগম, মোহাম্মদ ওমর এবং মোহাম্মদ আব্বাস উদ্দিন। এর মধ্যে আব্বাস উদ্দিন সন্দেহভাজন মানবপাচারকারী চক্রের সদস্য। বিমানবন্দরের এপিবিএন কর্মকর্তা এএসপি আসিফ একথা জানান।

কোনওভাবেই থামছে না কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবিরগুলো থেকে রোহিঙ্গাদের পলায়ন৷ গত দু’দিনে কক্সবাজারের সমুদ্রপথ থেকে মালয়েশিয়াগামী ৮৪ রোহিঙ্গাকে আটক করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে অনেক যুবতী ও শিশু রয়েছে। এরা উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন আশ্রয়শিবিরের বাসিন্দা। দুই বছর আগে তারা বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়ে মায়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। আটক রোহিঙ্গারা জানিয়েছে, তারা সাগরপথে মালয়েশিয়া যাচ্ছিল। বাসযোগে তারা করিমদাদ মিয়ার ঘাটে পৌঁছায়। এক ঘণ্টা পর ট্রলারযোগে সাগরপথে রওনা করার আগের মুহূর্তে পুলিশ তাদের আটক করে।

পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহম্মদ জাকির হোসেন ভুঁইয়া জানান, দালালের সহায়তায় একদল রোহিঙ্গা সাগর পথে মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য জড়ো হয়েছে, গোপন এমন খবর পেয়ে সেখানে অভিযান চালায় পুলিশ। যদিও অনেকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে ধরা পড়ে ফিরতে বাধ্য হচ্ছে ক্যাম্পে।

দু’বছর আগে মায়ানমারে সেনা অভিযানের মুখে সাত লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসে আশ্রয় নিয়েছে। তার আগে এসেছে চার লাখ রোহিঙ্গা। বাংলাদেশি পাসপোর্ট বানিয়ে রোহিঙ্গারা এখন পালাতে ব্যস্ত। প্রতি বছর সাধারণত বর্ষার আগে রোহিঙ্গাদের অনেকেই বিদেশে যেতে আগ্রহী হয়ে ওঠে। কারণ বর্ষায় সাগর উত্তাল থাকে। তাই তার আগে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া-সহ আশপাশের দেশগুলোতে আশ্রয়ের পথ খোঁজে তারা।

তবে এবার অন্যান্য বছরের তুলনায় রোহিঙ্গা অধিক মাত্রায় ক্যাম্প ছাড়ছে বলে তথ্য মিলেছে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্বাস্থ্যসেবার সঙ্গে সংশ্নিষ্টরা জানান, রোহিঙ্গাদের মধ্যে অনেকে এইচআইভি আক্রান্ত। তারা ক্যাম্প থেকে বাইরে এসে অন্যদের সঙ্গে মিশে যাওয়ায় এক প্রকার স্বাস্থ্য নিরাপত্তা ঝুঁকির মুখে পড়ছে। পাশাপাশি কক্সবাজারসহ সারাদেশে এইচআইভি সংক্রমণের আশঙ্কাও বাড়ছে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ইতিমধ্যেই ৬০০ জনকে এইডস আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য