বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’র বাণিজ্যিক কার্যক্রমের উদ্বোধন

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১

দেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের বর্ষপূর্তি ও সেবা বিপণন কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। রোববার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ইফতার-পূর্ব সমাবেশে দেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর পরীক্ষামূলক সম্প্রচারের মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’র বাণিজ্যিক কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি।

যমুনা টিভি, সময় টিভি, দীপ্ত টিভি, বিজয় টিভি, বাংলা টিভি, মাই টিভি এবং সোনালী ব্যাংক স্যাটেলাইটের সেবা নেয়ার জন্য সমঝোতা স্মারক সই করে। যমুনা টেলিভিশনের পক্ষে যমুনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম ইসলাম বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদের হাতে স্মারক হস্তান্তর করেন। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, স্যাটেলাইটের গর্বিত মালিক পৃথিবীর ৫৭টি দেশের একটি বাংলাদেশ। এই স্যাটেলাইট নিয়ে বাণিজ্যিকভাবে চিন্তা না করে আমরা দেশের গর্বের বিষয় হিসেবে ভাবব। কেননা স্যাটেলাইটটি আমাদের দেশের মর্যাদা অনেকাংশে বৃদ্ধি করেছে। তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর ক্রেতা দেশের সম্প্রচারিত ৩১টি টিভি চ্যানেল। আর সম্প্রচারের অপেক্ষায় আরও ১৫টি টিভি চ্যানেল। এছাড়া বেসরকারি ব্যাংকগুলো সেবা ক্রেতা হবে।

সর্বোপরি দেশের শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ অন্যান্য মাধ্যমের অগ্রগতিতে স্যাটেলাইটটি বড় ভূমিকা পালন করবে। 

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, এখন সময়টা বাংলাদেশের। এটা গর্ব করার সময়। কেননা, বাংলাদেশ এখন স্যাটলাইটের মালিক। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’র উৎক্ষেপণ করে আমরা বসে নেই। আমরা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণের প্রচেষ্টা চালাচ্ছি। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, বাংলাদশে তথ্যপ্রযুক্তির বিকাশ ঘটেছে। ২০২১ সালের মধ্যে দেশের প্রতিটি ইঞ্চিতে ইন্টারনেট পৌঁছে দেয়া হবে।

বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, টেলিভিশন চ্যানেলগুলো যে দামে বাইরে থেকে ব্যান্ডউইথ কিনে তার থেকে কম দামে কিনতে পারবে।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে তথ্য সচিব আবদুল মালেক, আইসিটি বিভাগের সচিব এনএম জিয়াউল আলম, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব অশোক কুমার বিশ্বাস এবং বিভিন্ন টেলিভিশনের সিনিয়র সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

পাঠকের মন্তব্য