শোক ও স্মরণে : নুরুন্নবী খান, বীর বিক্রম

নুরুন্নবী খান, বীর বিক্রম

নুরুন্নবী খান, বীর বিক্রম

লেঃ কঃ(অব) নুরুন্নবী খান, বীর বিক্রম ছিলেন অসীম সাহসী একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। ছাত্রাবস্থায়, বুয়েটে পড়ার সময়, তার সংগে আমার পরিচয়। '৬৯ সনে ছাত্রলীগের সভাপতি ও ইউকসুর নির্বাচিত সহ-সভাপতি ছিলেন, '৬৯ এর ছাত্র আন্দোলনে উজ্জ্বল ভূমিকা ছিল তার, আগাগোড়া সব কর্মসূচিতে। অনেক স্মৃতি জড়িয়ে আছে তাকে কেন্দ্র করে। এই সময় আমাদের ঘনিষ্ট সম্পর্ক গড়ে উঠে। খুব আবেগপ্রবণ মানুষ ছিলেন এবং স্বাধীনতায় বিশ্বাস করতেন। সিরাজুল আলম খানের সংগে তার ব্যক্তিগত ঘনিষ্ঠতা ছিলো।

বুয়েটে লেখাপড়া করতেন পাকিস্তান আর্মির স্কলারশিপ নিয়ে। তাই পাকিস্তান আর্মির ইঞ্জিনিয়ারিং কোরে জয়েন করেছিলেন বুটের শিক্ষাপাঠ শেষ করার পর। যুদ্ধ শুরুর পর মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন। অনেক গুরুত্বপূর্ণ সম্মুখ সমরে পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অংশ নিয়েছেন এবং অনেক সময় নেতৃত্ব দিয়েছেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সফল হয়েছেন। মিত্র বাহিনীর কমান্ডারগণ বিভিন্ন সময়ে তার ভুয়সী প্রশংসা করেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তার অবস্থান ইতিহাসে অক্ষয় হয়ে থাকবে। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ যুদ্ধ নিয়ে বই লিখেছেন, পত্রিকায় লিখেছেন। তার লেখা 'জীবনের যুদ্ধ যুদ্ধের জীবন' বহুল পঠিত বই।

রাজনীতিতে মুক্তিযুদ্ধের ধারা রক্ষা করতে পছন্দ করতেন। তবে কোন দল করতেন না। গন আদালত ও যুদ্ধাপরাধী বিচার উনি সক্রিয় ভাবে সমর্থন করেছেন। ঘটনা বহুল ছিল তার জীবন।

একজন নির্মল, পরিশ্রমী সৎ ও সংগ্রামী মানুষ ছিলেন। তিনি ছিলেন একজন মহান মুক্তিযোদ্ধা । তার মৃত্যুতে আমরা একজন মহান দেশপ্রেমিক ও যোদ্ধাকে হারালাম। অন্তর থেকে শ্রদ্ধা ও গভীর শোক প্রকাশ করছি। আমরা তার আত্মার শান্তি কামনা করি এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি আন্তরিক সহানুভূতি জ্ঞ্যাপন করছি।

ফেসবুক স্ট্যাটাস লিঙ্ক : শরীফ এন আম্বিয়া

পাঠকের মন্তব্য