শিডিউল বিপর্যয়ের কারণে রেলপথমন্ত্রীর ক্ষমা প্রার্থনা

রেলপথমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন

রেলপথমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন

ঈদে ঘরমুখো মানুষের ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়ের কারণে যাত্রীদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন রেলপথমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন।

মন্ত্রী বলেন, ‘সকাল ১০টা পর্যন্ত ১৮টি ট্রেন ঢাকা ছেড়ে গেছে। এগুলোর মধ্যে কিছু সমস্যার কারণে চারটি ট্রেন সঠিক সময়ে ছেড়ে যেতে পারেনি। এ জন্য আমি দুঃখিত। কাল থেকে এই সমস্যা হবে না।’ আজ শুক্রবার সকালে কমলাপুর রেলস্টেশনে যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে সংবাদ সম্মেলনে হাজির হন রেলমন্ত্রী।

রাজশাহীগামী ‘ধূমকেতু এক্সপ্রেস’ সোয়া দুই ঘণ্টা, খুলনাগামী ‘সুন্দরবন এক্সপ্রেস’ এক ঘণ্টা ১০ মিনিট, চিলহাটিগামী ‘নীলসাগর এক্সপ্রেস’ এক ঘণ্টা ৪০ মিনিট এবং রংপুরগামী ‘রংপুর এক্সপ্রেস’-এর প্রায় ছয় ঘণ্টা দেরিতে রয়েছে।

রেলমন্ত্রী বলেন, চাকরির উদ্দেশ্যে প্রায় দুই কোটি মানুষ ঢাকায় বাস করে। গ্রামে ঈদ করতে তাঁরা বাড়ি যাবেন। এ জন্য অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ রয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমরা ভালো সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছি। এই সমস্যাগুলো ভবিষ্যতে থাকবে না।’

মন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন প্রযুক্তিগত পদ্ধতি ব্যবহার করে দেশের রেলস্টেশনকে আন্তর্জাতিক মানের করা হবে। তিনি বলেন, ‘যদিও আমাদের কিছু সমস্যা আছে, কিন্তু আমরা পিছিয়ে যেতে চাই না; বরং বিভিন্ন সুবিধা নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে চাই।’

‘আগের বছরগুলোর তুলনায় আমরা যাত্রীদের হয়রানি কিছুটা কমাতে পেরেছি। এ বছর আমরা ই-টিকেট ব্যবস্থা চালু করেছি,’ বলেন মন্ত্রী।

গ্রামের বাড়ি গিয়ে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে ঈদুল ফিতরের আনন্দ ভাগাভাগি করার জন্য আজ শুক্রবার সকাল থেকেই পরিবার-পরিজন নিয়ে রাজধানী ছেড়ে যাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। যদিও ঘরমুখো মানুষের এই ঈদযাত্রা গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল থেকেই শুরু হয়েছে।

এবার প্রায় নয় দিনের ছুটির ফাঁদে পড়তে চলেছে দেশ। তবে এর মাঝে আগামী সোমবার অফিস-আদালত খোলা। ঈদযাত্রা লম্বা করার জন্য সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনেকেই ওই দিন ছুটি নিয়েছেন। শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক বন্ধ। পবিত্র লাইলাতুল কদরের বন্ধ রোববার।

মাঝখানে সোমবার অফিস-আদালত খোলা থাকলেও মঙ্গল, বুধ ও বৃহস্পতিবার ঈদের ছুটি। পরের দুদিন শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক বন্ধ। অর্থাৎ সোমবার একদিনের ছুটি নিলে নয় দিনের ছুটির ফাঁদে পড়ছে দেশ।

ঈদযাত্রীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে পৃথক কন্ট্রোল রুম খুলেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) এবং বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। এসব কন্ট্রোল রুমে সার্বক্ষণিক কর্মকর্তা রাখা হয়েছে। এ ছাড়া ঈদের স্পেশাল ট্রেন সার্ভিস আজ শুক্রবার থেকে যাত্রা শুরু করছে। এসব ট্রেনের ২০ শতাংশ যাত্রী দাঁড়িয়ে যাওয়ার টিকেট পাবেন।

বিআইডব্লিউটিএর কন্ট্রোল রুমের হটলাইন নম্বর হচ্ছে ০১৪০০-১৫০১৫০। ঢাকা নদীবন্দরের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের নম্বর ০২৯৫৮২৩০৬। ঢাকাস্থ বিআরটিএর সদর কার্যালয়ে নিয়ন্ত্রণ কক্ষের টেলিফোন নম্বর ৫৫০৪০৭৩৭ ও মোবাইল নম্বর ০১৫৫০০৫১৬০৬।

পাঠকের মন্তব্য