মার্কিন মুলুকে ভারতীয় দম্পতি এবং দুই পুত্রসন্তানের দেহ উদ্ধার

মার্কিন মুলুকে ভারতীয় দম্পতি এবং দুই পুত্রসন্তানের দেহ উদ্ধার

মার্কিন মুলুকে ভারতীয় দম্পতি এবং দুই পুত্রসন্তানের দেহ উদ্ধার

মার্কিন মুলুকে নিহত একই পরিবারের চার ভারতীয় নাগরিক৷ এক আত্মীয়ের অভিযোগের ভিত্তিতে উদ্ধার করা হয় ভারতীয় দম্পতি এবং তাঁদের দুই পুত্রসন্তানের দেহ৷ প্রত্যেকের দেহে পাওয়া গিয়েছে গুলির চিহ্ন৷ খুন নাকি আত্মহত্যা করেছেন ওই চারজন, তা নিয়েই তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা৷

প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে, অন্ধ্রপ্রদেশের গুন্টুর জেলার বাসিন্দা বছর চুয়াল্লিশের চন্দ্রশেখর শংকর৷ উচ্চশিক্ষার জন্য স্ত্রী লাবণ্য এবং সন্তানদের সঙ্গে নিয়ে মার্কিন মুলুকে চলে গিয়েছিলেন৷ শংকর পাবলিক সেফটি টেকনোলজি সার্ভিসেসে চাকরি করতেন৷ তাঁর বাবা-মা বর্তমানে হায়দরাবাদেই থাকেন৷ স্থানীয় সময় মতে শনিবার সকালে পরিচিত এক ব্যক্তি শংকরের মার্কিন মুলুকের বাড়িতে আসেন৷ সেই সময়  শংকরের বাড়িতেই তাঁর স্ত্রী এবং দুই সন্তানের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখেন৷ ওই দৃশ্য দেখেই বাড়ির উলটো পথে দৌঁড়াতে শুরু করেন শংকরের আত্মীয়৷ এরপর স্থানীয়দের সহযোগিতায় পুলিশে খবর দেন তিনি৷ পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়৷ চন্দ্রশেখর শংকর, একচল্লিশ বছর বয়সি স্ত্রী লাবণ্য, তাঁদের ১৫ এবং ১০ বছর বয়সি দুই সন্তানের রক্তাক্ত দেহ উদ্ধার করে৷ প্রত্যেকেরই মাথায় পাওয়া গিয়েছে গুলির চিহ্ন৷

দম্পতি এবং তাঁদের দুই সন্তানের দেহ ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে৷ আত্মীয়দের সঙ্গে কথাবার্তা বলেছেন তদন্তকারীরা৷ অনেকেই বলেছেন, কোনও এক অজ্ঞাত কারণে ইদানীং মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন শংকর৷ প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, শংকর একে একে স্ত্রী লাবণ্য এবং দুই পুত্রসন্তানকে গুলি করে খুনের পর আত্মহত্যা করেছেন৷ খুনের সময় বা তার আগে বাড়িতে কেউ ঢুকেছিল সেই প্রমাণ পাওয়া যায়নি বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন তদন্তকারীরা৷ মৃত্যুর খবর ইতিমধ্যেই শংকরের বাবা-মায়ের কাছে পৌঁছে গিয়েছে৷ ঘটনার পর থেকে চোখের জলে ভাসছেন মৃতের বৃদ্ধ বাবা-মা৷

পাঠকের মন্তব্য