আফগানিস্তানকে ৬২ রানে হারাল বাংলাদেশ

আফগানিস্তানকে ৬২ রানে হারাল বাংলাদেশ

আফগানিস্তানকে ৬২ রানে হারাল বাংলাদেশ

সাউথাম্পটনে সাকিব ঝড়ে উড়ে গেল আফগানিস্তান। টাইগারদের দেয়া ২৬৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ২০০ রানে গুটিয়ে যায় রশিদ খানরা। আর ৬২ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে মাশরাফি বাহিনী।

এবারের বিশ্বকাপটা দারুণ যাচ্ছে সাকিব আল হাসানের। বিশ্বকাপে এখনও অবধি সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীদের দৌড়ে তিনি সবচেয়ে এগিয়ে। পাশাপাশি আফগানিস্তান ম্যাচে যেভাবে নিজেকে মেলে ধরেছেন তাতে মুগ্ধ ক্রিকেট দুনিয়া। ব্যাট হাতে করেছেন ৫১ রান। অন্যদিকে বল হাতেও দেখিছেন নৈপুণ্য। ১০ ওভারে নিয়েছেন ৫ উইকেট। রান দেয়ার ক্ষেত্রেও ছিলেন কিপটে। 

এদিন রেকর্ড গড়েছেন সাকিব। বাংলাদেশের বিশ্বকাপ ইতিহাসের সর্বোচ্চ রান সংগহ করেছেন সাকিব আল হাসান। এবার তিনি প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্বকাপে ১ হাজার রানের মাইলফলক গড়েছেন। তার এতো সব রেকর্ডের দিনে উড়ে গেছে আফগানরা। সোমবার সাউথাম্পটনে টস হেরে আগে ব্যাট নির্ধারিত ৫০ ওভারে ২৬২/৬ রান করে টাইগাররা। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ২০০ রান করে আফগানরা। 

আফগানদের দলীয় ১১তম ওভারে ছন্দপতন হয়। যেখানে নিজের প্রথম ওভারের পঞ্চম বলে রহমত শাহকে তামিম ইকবালের ক্যাচে ফেরান সাকিব আল হাসান। ৩৫ বলে তিনটি চারে ২৪ রান করেন রহমত।

দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ৩০ রান করে বাংলাদেশ বোলারদের হতাশা বাড়াচ্ছিলেন গুলবাদিন নাঈব ও হাশমতউল্লাহ শহিদী। কিন্তু ২১তম ওভারের পঞ্চম বলে ও দলীয় ৭৯ রানে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন শহিদী। মুশফিকুর রহিমের দুর্দন্ত স্টাম্পিংয়ে আউট হওয়ার আগে ৩১ বলে কোনো বাউন্ডারি ছাড়া ১১ রান করেন তিনি।

নিজের পঞ্চম ও দলীয় ২৯তম ওভারে এসে জোড়া উইকেট তুলে নিলেন সাকিব আল হাসান। প্রথম বলে গুলবাদিন নাঈবকে ও তৃতীয় বলে নতুন ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ নবীকে (০) সরাসরি বোল্ড করেন সাকিব। নাঈব ৭৫ বলে তিনটি চারে ৪৭ করেছেন। এরই সঙ্গে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে বিশ্বকাপে এক হাজার রান ও ৩০ উইকেট নেওয়ার বিশ্বরেকর্ড গড়লেন সাকিব। এর ম্যাচেই সাকিব ফিফটি করার পর এক হাজার রান পূর্ণ করেন। আর ২৮ উইকেট নিয়ে খেলতে নেমেছিলেন। পরে আসগর আফগানকেও ব্যক্তিগত ২০ রানে বিদায় করে নিজের চতুর্থ উইকেট তুলে নেন এই তারকা। শেষ পর্যন্ত.... রানে থামে আফগানদের ইনিংস।

এর আগে প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৬২ রান তোলে বাংলাদেশ। মুশফিকুর রহিমের ৮৩ রানের দায়িত্বপূর্ণ ইনিংস, সাকিব আল হাসানের ফিফটি ও শেষদিকে মোসাদ্দেক হোসেনের ঝড়ো ৩৫ রানের ইনিংসে ভর করে মাঝারি এই সংগ্রহ পেয়েছে টাইগাররা।

বল হাতে আফগান স্পিনার মুজিব ৩টি, নাঈব ২টি এবং জাদরান ও নবী ১টি করে উইকেট পেয়েছেন।

বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ২৬২/৭
আফগানিস্তান: ৪৭ ওভারে ২০০/১০ 
ফল: বাংলাদেশ ৬২ রানে জয়ী
এই জয়ে টিকে থাকল বাংলাদেশের সেমিফাইনাল আশা। ৭ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট বাংলাদেশের

পাঠকের মন্তব্য