অক্সিজেন সাপোর্টে সেই ‘একনায়ক’ শাসক এরশাদ

অক্সিজেন সাপোর্টে সেই ‘একনায়ক’ শাসক এরশাদ

অক্সিজেন সাপোর্টে সেই ‘একনায়ক’ শাসক এরশাদ

রাজপথে ছাত্র আন্দোলন রুখতে নির্বিচারে গুলি চালানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন। রক্তাক্ত হয়েছিল ঢাকা। আশির দশকের সেই ঘটনার পরেই গণতন্ত্র রক্ষার দাবিতে উত্তাল হয়েছিল বাংলাদেশ। নব্বইয়ের দশকে তীব্র আন্দোলনে সামিল হয় আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামাত ইসলামি। আজ সবাই যুযুধান। আন্দোলনই তাঁকে ক্ষমতা থেকে টেনে নামিয়ে এনেছিল। সেনাবাহিনীকে করায়ত্ত করেই ক্ষমতায় এসেছিলেন একনায়ক শাসক হুসেইন মহম্মদ এরশাদ। এখন নব্বইয়ের কোঠা পার করে গুরুতর অসুস্থ। তাঁর ফুসফুসে জল জমেছে। কথা প্রায় বন্ধ।

এরশাদের অসুস্থতা বয়স জনিত কারণেই। তবে কঠিন নিয়মানুবর্তিতার মধ্যে থাকা ৯১ বছরের জেনারেল এরশাদ গত জাতীয় নির্বাচনেও অংশ নেন। ভোটের আগেই অসুস্থ হয়ে সিঙ্গাপুর চলে গিয়েছিলেন। ফিরে এসে তাঁর দল জাতীয় পার্টি (জাপা)-কে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধী পক্ষ হিসেবে সহমতি দেন। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে সখ্যতা রেখেই বিরোধী হয়েছেন এরশাদ। গত কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ এরশাদ।

রবিবার অবস্থার অবনতি হয়েছে। তাঁর দল জাতীয় পার্টি জানিয়েছে- প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন। বর্তমানে তাকে অক্সিজেন সাপোর্ট (কৃত্রিম শ্বাস) দেওয়া হয়েছে। এরশাদের অবস্থার অবনতি হওয়ার পরেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলের উপনেতা তথা এরশাদ পত্নী রওশন। সঙ্গে ছিলেন তাঁর পুত্র। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এরশাদের চিকিৎসার বিষয়ে সব ধরনের খোঁজ-খবর রাখছেন বলে আশ্বস্ত করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব ধরনের সহযোগিতার কথাও জানান।

পাঠকের মন্তব্য