বিশ্বকাপে বিদায় বাংলাদেশ, সহ্য করতে না পেরেই আত্মহত্যা  

বিশ্বকাপে বিদায় বাংলাদেশ, সহ্য করতে না পেরেই আত্মহত্যা  

বিশ্বকাপে বিদায় বাংলাদেশ, সহ্য করতে না পেরেই আত্মহত্যা  

শুরুটা ভালই করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছতে পারেনি। তার উপর নিজেদের শেষ ম্যাচেও চিরশত্রু পাকিস্তানের কাছে মুথ থুবড়ে পড়তে হয়েছিল মাশরাফি মোর্তাজাদের। বিশ্বমঞ্চে নিজের দেশের এমন ব্যর্থতা মেনে নিতে না পেরে আত্মহননের পথই বেছে নিল দেশের এক ক্রিকেটভক্ত।

শনিবার ভোরে চাঁদপুরের মাইজকান্দি গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। অলরাউন্ডার শাকিব আল-হাসানের বড় ভক্ত শাকিব গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে বলেই জানিয়েছেন তার পরিবারের লোকেরা। বছর ১৪-র ওই স্কুল ছাত্র টিভির পর্দায় নিয়মিত বাংলাদেশের ম্যাচে নজর রাখছিল। দল জিতলেই আনন্দে মেতে উঠত। আর হারলেই মন খারাপ হত তার। তবে আশা ছিল, মোর্তাজারা ঠিক ঘুরে দাঁড়াবেন। দেশ ঠিক পৌঁছে যাবে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে। 

কিন্তু গত শুক্রবার পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের পরাজয় দেখার পরই মেজাজ হারায় ওই কিশোর। শাকিব আল-হাসানদের যে আর চলতি টুর্নামেন্টে দেখা যাবে না, এই ব্যাপারটাই যেন বিশ্বাস হচ্ছিল না তার। রাগে-অভিমানে দাদুর বাড়ির একটি ঘরে গলায় ওড়নার ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হয় শাকিব।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে খবর, নিহত শাকিব চরকালিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র ছিল। শনিবারই ইংরাজির প্রথমপত্রের পরীক্ষা ছিল তার। কিন্তু তার আগেই চিরঘুরে চলে যায় সে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মতলব উত্তর থানার এসআই মহম্মদ নাহিদ হোসেন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুলিশ। তারপর শাকিবের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়। পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, বিশ্বকাপ থেকে বাংলাদেশ বাদ পড়ার কষ্ট সহ্য করতে না পেরেই আত্মহত্যা করেছে শাকিব। একদিকে যখন বিষন্ন মনে ইংল্যান্ড থেকে দেশে ফিরছেন শাকিবরা, তখন অন্য শাকিবের বাড়িতে শোকের ছায়া।

পাঠকের মন্তব্য