সঙ্গমে রাজি নয় স্ত্রী, নিজেই নিজের যৌনাঙ্গ কাটল ব্যক্তি !

সঙ্গমে রাজি নয় স্ত্রী, নিজেই নিজের যৌনাঙ্গ কাটল ব্যক্তি !

সঙ্গমে রাজি নয় স্ত্রী, নিজেই নিজের যৌনাঙ্গ কাটল ব্যক্তি !

শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে সামান্য আঘাত লাগলেই আত্মারাম খাঁচাছাড়া হয়ে যায়। আর সেখানে কিনা নিজের যৌনাঙ্গ নিজেই কেটে ফেলল এক ব্যক্তি! জীবনের প্রতি তীব্র হতাশা আর রাগ থেকে স্ত্রীকে খুন করার পর এমন মর্মান্তিক কাণ্ড ঘটাল সে।

উত্তরপ্রদেশের এই ঘটনার কথা চিন্তা করলেই গা শিউরে ওঠে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সিদ্ধার্থনগরের পোখার গ্রামের বাসিন্দা আনওয়ারুল হাসান কাজের সূত্রে থাকত গুজরাটের সুরাটে। বছর কুড়ির যুবতীকে বছর খানেক আগেই বিয়ে করেছিল সে। দিন দুয়েক আগে উত্তরপ্রদেশে নিজের বাড়িতে ফিরেছিল। ঘটনার দিন বাড়িতে স্বামী-স্ত্রী ছাড়া আর কেউ ছিল না। সেই সময়ই স্ত্রীর সঙ্গে সঙ্গম করতে চায় ওই ব্যক্তি। কিন্তু যুবতী তাতে রাজি হননি। মিলনের এই প্রত্যাখ্যানই সহ্য করতে পারেনি ব্যক্তি। মেজাজ হারিয়ে এরপরই গলায় ফাঁস দিয়ে স্ত্রীকে খুন করে সে। তারপরই রাগ ও হতাশায় ছুরি দিয়ে নিজের যৌনাঙ্গ কেটে ফেলে। 

শনিবার সকালে তাদের বাড়ি গিয়ে প্রতিবেশীরা দেখেন, মেঝেতে একদিকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে ২৪ বছরের ওই ব্যক্তি। আর অন্যদিকে পড়ে তার স্ত্রী। প্রতিবেশীরাই পুলিশে খবর দেন এবং ওই ব্যক্তিকে প্রথমে স্থানীয় জেলা হাসপাতালে ও পরে গোরক্ষপুরের বাবা রাঘব দাস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। এখনও চিকিৎসা চলছে তার। যুবতীকে মৃত হিসেবে ঘোষণা করা হলে পুলিশ তাঁর দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়।

জ্ঞান ফেরার পর পুলিশকে দেওয়া বয়ানে ব্যক্তি নিজের অপরাধ স্বীকারও করে নেয়। সে জানায়, যৌনমিলনে প্রত্যাখ্যাত হয়েই স্ত্রীকে খুন করে সে। তারপর কেটে ফেলে নিজের যৌনাঙ্গ। পুলিশের কাছে ব্যক্তির বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে যুবতীর বাবা। তাঁর অভিযোগ, পণ চেয়ে দীর্ঘদিন ধরেই তাঁর মেয়ের উপর অত্যাচার চালাত ওই ব্যক্তি। অভিযুক্তর শাস্তির দাবিও জানিয়েছেন তিনি। ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

পাঠকের মন্তব্য