বাংলাদেশে বাড়ছে নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতা 

বাংলাদেশে বাড়ছে নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতা 

বাংলাদেশে বাড়ছে নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতা 

বাংলাদেশে ৫.১৭ শতাংশ মেয়ে শিশু তাদের দশ বছর পূর্ণ হওয়ার আগে ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। আর কিশোরী হয়ে ওঠার আগে পরিবার থেকে শারীরিক নিপীড়নের শিকার হচ্ছে ২২ শতাংশ। সম্প্রতি মেয়ে শিশুদের ধর্ষণ করার পর হত্যা করার কয়েকটি নির্মম ঘটনার প্রেক্ষিতে বিভিন্ন মানবাধিকার ও সামজিক সংগঠনের সংগৃহীত পরিসংখ্যানে উঠে এসেছে এ তথ্য।

তাদের সংগৃহীত তথ্য থকে জানা যায়,  গত ছয় মাসে দেশে নারী ও শিশু ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৪০৮টি। সমাজকর্মীরা বলছেন, সুশাসনের অভাবে এবং  সামাজিক অবক্ষয়ের কারনে নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতার পরিমান বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কেন এ বর্বরতা ? কেন এ অবক্ষয় ? মানবাধিকার কর্মী নূর খানেরর মতে, সুশাসনের ঘাটতি ও নীতিহীন রাজনীতি সমাজে বিকৃতি বাড়াচ্ছে। তারই প্রভাবে বাড়ছে ধর্ষণের মতো অপরাধ। এদিকে, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার পক্ষ থেকে সহায়তা না পাওয়ায় ভুক্তভোগী ও বিচারপ্রার্থী পরিবারকে বাড়তি বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে। 

সম্প্রতি ফেনির মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যাকান্ডে দেখা গেছে, সংশ্লষ্টি থানার ওসি যৌন হয়রানীর মামলা না নিয়ে উল্টো রাফির বক্তব্য ভিডিও করে সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করে তাকেই দোষী করার চেষ্টা করেছে ।  

খোদ রাজধানীতে সংঘটিত একটি শিশু ধর্ষনের ঘটনায় একজন মানবাধিকার নেত্রীর সাথে সংশ্লিষ্ট থানার একজন পুলিশ কর্মকর্তার কথোপকথন সামাজিক মাধ্যম প্রচার হবার পর বিচারপ্রার্থী ভুক্তভোগীর বিড়ম্বনার বিষয়ে মানবাধিকার কর্মীসহ সচেতন নাগরকিরাও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

এ প্রসঙ্গে মানবাধিকার আইনজীবী এলিনা খান বলেছেন, আইনের প্রয়োগ না থাকায় অপরাধীরা পার পেয়ে যায়, যা শেষ পর্যন্ত অপরাধকে উৎসাহিত করে। এদিকে আজ বুধবার (১০ জুলাই) রাজধানীতে অনুষ্ঠিত এক গোলটেবিল আলোচনায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম জানান, উপজেলা পরিষদে শিশুদের অভিযোগকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে শিগগিরই পরিপত্র জারি করা হবে।

পাঠকের মন্তব্য