ঝিনাইদহের বাস চলাচলে মালিক সমিতির বাধা, যাত্রীদের ভোগান্তি

ঝিনাইদহের বাস চলাচলে মালিক সমিতির বাধা, যাত্রীদের ভোগান্তি

ঝিনাইদহের বাস চলাচলে মালিক সমিতির বাধা, যাত্রীদের ভোগান্তি

ঝিনাইদহ মালিক সমিতির বাস চলাচলে মাগুরা মালিক সমিতির বাঁধার কারণে ঝিনাইদহ-মাগুরা সড়কে সব ধরণের গাড়ী চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। এতে যাত্রী ভোগান্তি চরমে উঠেছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ২ মে ঝিনাইদহ মালিক সমিতির সভাপতি রোকনুজ্জামান রানু ও মাগুরা মালিক সমিতির সভাপতি মীর আবু সাইদসহ উভয় মালিক সমিতির অধিকাংশ নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সিন্ধান্ত গ্রহণ করা হয় ঝিনাইদহ ও মাগুরা মালিক সমিতির গাড়ী যৌথ রোটেশনে চালানো হবে। 

এছাড়াও বলা হয়, ঝিনাইদহে ঝিনাইদহ মালিক সমিতির গাড়ী যেখানে যেখানে দাঁড়াবে এবং যে সুবিধা ভোগ করবে, মাগুরা মালিক সমিতির গাড়ীও সেখানে সেখানে দাঁড়াবে এবং সেই সুবিধা ভোগ করবে। অনুরুপ ভাবে মাগুরাতে মাগুরা মালিক সমিতির গাড়ী যেখানে যেখানে দাঁড়াবে এবং যে সুবিধা ভোগ করবে ঝিনাইদহ মালিক সমিতির গাড়ীও সেখানে সেখানে দাঁড়াবে এবং একই সুবিধা ভোগ করবে। সেই চুক্তি, শর্ত ও রোটেশন মোতাবেক গত ২৪ জুন থেকে গাড়ী চালানো শুরু হলে শ্রমিক ইউনিয়নের অসহযোগিতার অজুহাত তুলে মাগুরা মালিক সমিতি মাগুরার ষ্ট্যান্ডগুলোতে গাড়ী দাঁড়াতে দিচ্ছেনা । এছাড়াও গাড়ী চলাচলে বাধা সৃষ্টি করে আসছে। এ নিয়ে ৩০ জুন ঝিনাইদহ মালিক সমিতিতে, ১ জুলাই মাগুরা মালিক সমিতিতে ও সর্বশেষ ৯ জুলাই ঝিনাইদহ শ্রমিক ইউনিয়নে উভয় মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দর উপস্থিতিতে যৌথ সভা করেও মাগুরা মালিক সমিতির একগুয়েমির কারণে তা সম্ভব হয়নি। তারা ঝিনাইদহ থেকে মাগুরা ফিরে গিয়ে লোকাল গাড়ী ফিরিয়ে দেয়। ঝিনাইদহের মালিকের ঢাকার গাড়ীসহ দুরপাল্লার সকল গাড়ীর মালিকদের গাড়ী পাঠাতে নিষেধ করে দিয়েছে। এতে ঝিনাইদহ-মাগুরা সড়কে সব ধরণের গাড়ী চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। 

এ ব্যাপারে জানাতে চাইলে ঝিনাইদহ মালিক সমিতির সভাপতি রোকনুজ্জামান রানু বলেন, মালিকদের ব্যবসার লক্ষে মাগুরা মালিক সমিতির সাথে একাধিকবার ফোনে কথা বলে এবং সভা করে যৌথ রোটেশনে গাড়ী চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কিন্তু তারা নানা অজুহাতে মাগুরাতে আমাদের গাড়ী দাঁড়াতেই দিচ্ছেনা। তারা গাড়ীর উপরে নানা ভাবে অত্যাচার করছে। মাগুরার অযৌক্তিক দাবির কারণে এর আগেও গাড়ী চলাচল বন্ধ হয়েছে। তখন খুলনার কমিশনার অফিসে সভা করে সেই গাড়ী চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। এখনও তারা নতুন করে পুরোনো খেলা শুরু করেছে। তিনি যৌথ সভার সিদ্ধান্তের প্রতি সম্মান রেখে গাড়ী চালানো ও ঝিনাইদহের গাড়ী চলাচলে বাধা না দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানান।

পাঠকের মন্তব্য