গান্ধী আশ্রম বিশ্বমানের করতে সাহায্য করবে সরকার

গান্ধী আশ্রম বিশ্বমানের করতে সাহায্য করবে সরকার

গান্ধী আশ্রম বিশ্বমানের করতে সাহায্য করবে সরকার

নোয়াখালিতে অবস্থিত গান্ধী আশ্রমটি বিশ্বমানের করা হলে সাহায্য করবে ঢাকা। পবিত্র এই কাজে সবসময় তাঁরা পাশে থাকবেন বলে জানিয়েছেন হাসিনা সরকারের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

শুক্রবার দুপুরে নোয়াখালির সোনাইমুড়ি উপজেলার জয়াগ গান্ধী আশ্রমে ঝর্ণা ধারা চৌধুরির স্মৃতিতে একটি স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছিল। মানবসেবায় অসামান্য অবদানের জন্য গান্ধী আশ্রমের প্রাক্তন সচিব প্রয়াত ঝর্ণা চৌধুরিকে একুশে পদক ও বেগম রোকেয়া পুরস্কার দেয় বাংলাদেশ। ভারত থেকে পদ্মশ্রী পুরস্কারও দেওয়া হয় তাঁকে। শুক্রবার তাঁর স্মৃতিচারণার সময়ে সোনাইমুড়ির গান্ধী আশ্রমকে বিশ্বমানে উত্তীর্ণ করার কথা বলেন হাসিনা মন্ত্রিসভার সদস্য মোজাম্মেল হক।

এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, “মহাত্মা গান্ধীর শান্তি, সম্প্রীতি ও অহিংসার চেতনা আমাদের সবসময় ধারণ করতে হবে। সমাজের নানা অবক্ষয় রোধে এই চেতনার বিকল্প কোনও কিছু নেই। তাই সব জায়গায় এই চেতনা ছড়িয়ে দিতে হবে। এর জন্য এখানকার আশ্রমকেও বিশ্বমানের করে তুলতে পারলে খুব ভাল হয়।  সরকারের পক্ষ থেকে যদি কোনও সাহায্য লাগে তাহলে আমরা তা করতে প্রস্তুত আছি।”

গান্ধী আশ্রম বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান ও সাংবাদিক স্বদেশ রায়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় এই স্মরণসভাটি। প্রধান অতিথি মোজাম্মেল হক ছাড়াও এখানে উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় হাই কমিশনার শ্রীমতি রিভা গাঙ্গুলি দাস, স্থানীয় সংসদ সদস্য এইচ এম ইব্রাহিম, অধ্যাপক ডঃ মুনতাসির মামুন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য অধ্যাপক কামরুল হাসান, বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ডঃ জামালউদ্দিন আহমেদ-সহ আরও অনেকে।

পাঠকের মন্তব্য