তাহিরপুরে ছেলেধরা গুজব, মাদক বিরোধী কমিউনিটি পুলিশিং সভা 

তাহিরপুরে ছেলেধরা গুজব, মাদক বিরোধী কমিউনিটি পুলিশিং সভা 

তাহিরপুরে ছেলেধরা গুজব, মাদক বিরোধী কমিউনিটি পুলিশিং সভা 

ছেলেধরা গুজবে অহেতুক সাড়া না দিয়ে সম্প্রসারিত বিট পুলিশিং কার্যক্রমকে জোরদার করা যায় তাহলে সবার সম্বন্নিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে দেশ থেকে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ দুর করা সম্ভব হবে। 

রোববার দুপুরে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর থানা ভবন প্রাঙ্গনে ছেলেধরা গুজব, মাদক, জঙ্গি বিরোধী সম্প্রসারিত বিট পুলিশিং ও কমিউনিটি পুলিশিং সভায় প্রধানবক্তা হিসাবে পুলিশের সিলেট রেঞ্জের উপ মহা পুলিশ পরিদর্শক (ডিআইজি) মো. কামরুল আহসান (বিপিএম বার) উপরোক্ত কথাগুলো বলেছেন।

সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খানের সভাপতিত্বে তিনি আরো বলেন, আইজিপি মহোদয়ের নির্দেশনায় ২৫ জুলাই থেকে ৩১ জুলাই সপ্তাহব্যাপী গুজব বিরোধী প্রচার –প্রচারনার অংশ হিসাবে এ সভায় একটি কথাই বলতে চাই ‘এখন আপনাদের হাতের মুঠোয় পুরোবিশ্ব’। সড়কে, বাসায়, অফিস পাড়ায় প্রায় সর্বত্রই এখন সিসি ক্যামেরা লাগানো থাকে, মুঠোফোনে যখন যেখানে যে ঘটনা ঘটে সেখানকার ঘটনার স্থির, চিত্র ভিডিও ফুটেজ নেয়ারপর ইন্টারনেটের বদৌলতে পুরো বিশ্ববাসী তা দেখার ও জানার সুযোগ পান।  ১০০ থেকে ১৫০ বছরের পুর্বের সেই রুপ কথার গল্পের মত পদ্মা সেতুতে শিশুর মাথা লাগবে এমন একটি ফাউ গুজব ছড়িয়ে দেশ বিরোধীচক্র সারা দেশে নৈরাজ্য ও অপতৎপরতার প্রসার ঘটনানোর চেষ্টা করেছে। কোন কোন এলাকায় ছেলেধরা গুজব রটিয়ে নিরীহ লোকজনকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে সেক্ষেত্রে যারা আইন নিজের হাতে তুলে নিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ফৌজধারী অপরাধে মামলা হয়েছে এবং তাদের অনেককেই গ্রেফতার করা হয়েছে। অতএব এমন গুজবে সাড়া দিয়ে আইন কখনো  কেউ নিজের হাতে তুলে নেবেন না।

ডিআইজি আরো বলেন, দেশে জঙ্গিবাদ যেভাবে মাথাছাড়া দিয়ে উঠেছিল তা এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রনে এসেছে, তবে একেবারে নির্মুল হয়নি। সে ব্যাপারের সবাইকে সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে। দেশের মুলশক্তি হল যুব সমাজ। সেই যুব সমাজকে মাদক ধ্বংস করে দিচ্ছে। 

জাতীর জনক বঙ্গবঙ্গু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সোনার বাংলা গড়ার যে স্বপ্ন দেখেছিলেন সেই স্বপ্নকে বাস্তবে রুপ দিতে গেলে যুব সমাজকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে সবাইকে একযোগে এক কাতারে এগিয়ে আসতে তাহলে দেশ থেকে চিরতরে মাদক নির্মুল করতে হবে। 
মাদক ব্যবসায়ী, এর পুজিদাতা, আশ্রয়দাতা, দালাল, তদবীরবাজ কাউকেই আমরা ছাড় দেবনা। পুলিশের কোন সদস্য যদি মাদকের সাথে জড়িত থাকে সেক্ষেত্রে প্রমাণ পেলে তাকে চাকুরিচুত্য এমনকি  তাকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলেও তিনি হুশিযায়রী প্রদান করেন।

ডিআইজি সম্প্রসারিত বিট পুলিশিং কার্যক্রম প্রসঙ্গ তুলে ধরে বলেন, কমিউনিটি পুলিশিং ’র কাজকে মনিটরিং করতে আমি সিলেট বিভাগের চার জেলার প্রতিটি ইউনিয়নে সম্প্রসারিত বিট পুলিশিং কার্যকমের সুচনা করি। ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি একটি কক্ষ দিয়েছেন সেখানে সপ্তাহের দুইদিন শনি ও সোমবার বেলা ১২ টা থেকে ২টা পর্য্যন্ত থানার নির্ধারিত একজন এসআই ও এএসআই সরাসরি সরজমিনে ভোক্তভোগীর সমস্যার কথা শুনবেন, সমাধানের জন্য প্রাথমিক চেষ্টারপর আইনি সহায়তা দেবেন। 

এ কার্যক্রম যত জোরদার হবে ততই পুলিশী সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে যাবে। এতে করে টাকা পয়সা খরচ করে যাতায়াত বিরম্বনা সয়ে কাউকে কষ্ট করে থানায় আসতে হবেনা। জরুরী প্রয়োজেনে যে কোন মোবাইল ফোন থেকে ‘৯৯৯’ কল করুন, দেখবেন দ্রুত পুলিশী সেবা দিতে একদল চৌকস পুলিশ সদস্য পৌছে যাবে ঘটনাস্থলে আপনার নিকটে। তাহিরপুর থানার এসআই মো. আমির উদ্দিনের সঞ্চালনায় ওসি মো. আতিকুর রহমানের স্বাগত বক্তব্য’র মাধ্যমে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন,সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এমপি।

সভায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবু তারেক, সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার গৌতম রায়, সহকারি পুলিশ সুপার তাহিরপুর (সার্কেল) মো. বাবুল আক্তার, ডিবির ওসি কাজি মোক্তাদীর হোসেন, ডিআইও-টু আব্দুল লতিফ তরফদার,(ওসি তদন্ত) মো. আসাদুজ্জামান হাওলাদার সহ উপজেলা বিভিন্ন শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের প্রধান, ব্যবসায়ী, শ্রমজীবী, কমিউনিটি পুলিশিং’র সদস্য, উপজেলা পরিষদ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজ, বিভিন্ন শ্রেশিপেশার লোকজন সহ গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।  

পাঠকের মন্তব্য