তারেক-ফখরুলসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে পরোয়ানা

বিএনপি নেতা

বিএনপি নেতা

বিএনপি নেতা কর্মীদের নামে মামলা করার কারণে হুমকি দেয়ায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ৯ নেতার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (৫ জুলাই) বাংলাদেশ জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এ.বি.সিদ্দিকী বাদী হয়ে ঢাকার মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদারের আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে এ নির্দেশ দেন।

যাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে তারা হলেন- বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশারফ হোসেন, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, বুয়েটের বহিষ্কৃত শিক্ষক হাফিজুর রহমান রানা ও ছাত্রদল নেতা এমদাদুল হক ভূঁইয়া।

এ.বি.সিদ্দিকী সাংবাদিকদের বলেন, বেগম খালেদা জিয়াসহ দলের নেতাকর্মীদের নামে মামলা করায় আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন আসামিরা। সর্বশেষ আইএসের নামে আমার বাসায় চিঠি পাঠানো হয়। তাই আমি আদালতে এসেছি মামলা করতে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে বিকেলে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আদেশ দিয়েছেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়- গত ২৩ জুলাই আমার বাসায় একটি রেজিস্ট্রি চিঠি পাঠিয়েছেন বুয়েটের শিক্ষক হাফিজুর রহমান রানা। চিঠিতে উল্লেখ্য করা হয়েছে, ‘ওই শালারপুত গোপালী এ বি সিদ্দিকী বিশ্ব মামলাবাজ তুই বড় বাড়াবাড়ি করছিস তোর বোন শেখ হাসিনার দাপট দেখাচ্ছিস। তোর মামলায় আমার জীবন নষ্ট হয়েছে। আর আমাদের মা বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে জেলখানায় বন্দি রেখে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করছিস। আইএসের কাছে তোদের নাম পাঠিয়েছি। এবার তোরা মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত থাক।’

অভিযোগে আরও বলা হয়, ‘গত মে মাসে তারেক রহমান আমাদের নেতাদের নির্দেশ দিয়েছিল তোকে খুন করার জন্য। তাই আমাদের নেতারা আমার ঘনিষ্ঠ বন্ধু নারায়ণগঞ্জের কুখ্যাত ছাত্রদলের ক্যাডার যিনি তারেক রহমানের বিশ্বস্ত ব্যক্তি এমদাদুল হককে তার বাহিনী নিয়ে তোকে কোর্টকাচারির আশপাশে খুন করার জন্য আটক করেছিল। কিন্তু বংশাল থানার আশপাশে থাকায় এবং কাকুতি মিনতি করায় তারা তোকে শর্ত দিয়ে ছেড়ে দিয়েছিল। এক মাসের মধ্যে সব মামলা প্রত্যাহার করে নিবি।’

‘তুই আমাদের বিরুদ্ধে উল্টো ছিনতাই মামলা দিয়েছিস। তাই আমাদের নেতা তারেক রহমান ক্ষুব্ধ হয়ে আইএসসহ আমাকে পাঠিয়েছে। এইবার আর তোরে কেউ বাঁচাতে পারবে না প্রস্তুত হয়ে থাক।’

এবি সিদ্দিকী বলেন, এ চিঠি পেয়ে পরের দিন সরকারের কাছে রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা চেয়ে হাতিরঝিল থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করি। আসামিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ১০৯/৫০৬ ধারায় অপরাধ আমলে নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি আবেদন করলে আদালত তা আমলে নিয়ে পরোয়ানা জারি করেন।

পাঠকের মন্তব্য