চেয়ারপার্সন পদ থেকে অবসরে স্যার ফজলে হাসান আবেদ

স্যার ফজলে হাসান আবেদ

স্যার ফজলে হাসান আবেদ

ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদ প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারপার্সন পদ থেকে অবসর নিয়েছেন। তবে প্রতিষ্ঠানের ‘চেয়ার এমেরিটাস’ হিসেবে থাকছেন তিনি। মঙ্গলবার রাতে মহাখালীর ব্র্যাক সেন্টারে তিনি অবসরে যাওয়ার ঘোষণা দেন। নতুন চেয়ারপার্সন হিসেবে যোগ দিচ্ছেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা হোসেন জিল্লুর রহমান।

কবি বেগম সুফিয়া কামাল ছিলেন ব্র্যাকের প্রথম চেয়ারপার্সন। ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত তিনি এই দায়িত্ব পালন করেন। এরপর দীর্ঘ সময় ফজলে হাসান আবেদ ব্র্যাকের চেয়ারপার্সন পদে ছিলেন।

১৯৭০ সালে ফজলে হাসান আবেদ বাংলাদেশের ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ে আক্রান্ত দুঃস্থ মানুষের সাহায্যে ত্রাণ কর্মকাণ্ডে জড়িত হন। মু‌ক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের জন্য আন্তর্জা‌তিকভাবে কাজ করে ১৯৭২ সালের ১৭ জানুয়ারি তিনি দেশে ফিরে আসেন।

১৯৭২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ গড়ার কাজে অংশ নেন ফজলে হাসান আবেদ। ১৯৮০ সালে ম্যাগসেসে পুরস্কারসহ অসংখ্য সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন তিনি।

বর্তমানে ব্র্যাক বাংলাদেশের ৬৪টি জেলাসহ এশিয়া, আফ্রিকা এবং যুক্তরাষ্ট্রের ১২টি দেশে তার কার্যক্রম চালিয়ে পৃ‌থিবীর সবচেয়ে বড় বেসরকা‌রি সংস্থায় পরিণত হয়েছে। ব্র্যাকের পরিষেবার আওতায় আছে ১২ কোটি ৬০ লাখ লোক।

এছাড়া ব্র্যাকের পরিচালনা পর্ষদে সাতটি পদেও পরিবর্তন এসেছে। পরিবর্তন এসেছে ব্র্যাক ইন্টারন্যাশনালের পরিচালনা পর্ষদেও।

ভারপ্রাপ্ত পদ থেকে ব্র্যাকের নির্বাহী প‌রিচালক পদে যোগ দিয়েছেন আসিফ সালেহ। বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, অর্থনীতিবিদ ও পলিসি বিশেষজ্ঞ ডা. হোসেন জিল্লুর রহমান ব্র‍্যাক বাংলাদেশ এবং জাতিসংঘের সাবেক আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল আমিরা হক ব্র‍্যাক ইন্টারন্যাশনালের চেয়ারপার্সনের দায়িত্ব পালন করবেন।

পাঠকের মন্তব্য