গুরুতর শিডিউল বিপর্যয়ে পড়েছে ট্রেন, দিশেহারা যাত্রীরা

শিডিউল বিপর্যয়ে ট্রেন

শিডিউল বিপর্যয়ে ট্রেন

গুরুতর শিডিউল বিপর্যয়ে পড়েছে ট্রেন। ঈদুল আজহার আগের দিন দুটি ট্রেনের যাত্রা বাতিল হলো। এ ছাড়া রাজধানীর কমলাপুর থেকে প্রায় প্রতিটি ট্রেনকেই নির্ধারিত সময়ের পরে স্টেশন ছেড়ে যেতে দেখা গেছে।

জানা গেছে, অতি বিলম্বের কারণে লালমনিরহাট এক্সপ্রেস ও সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রা বাতিল হয়েছে। ফেরত দেওয়া হচ্ছে টিকিটের মূল্য। ওই দুই ট্রেনের যাত্রীরা লাইনে দাঁড়িয়ে তাদের টিকিটের মূল্য ফেরত নিচ্ছেন।

এ ছাড়া ধূমকেতু এক্সপ্রেস, পদ্মা এক্সপ্রেস, নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের অসংখ্য যাত্রী টিকিট ফেরত দিয়েছেন। এই সব ট্রেনের যাত্রীরা বাড়ি ফেরা নিয়ে খুবই উদ্বিগ্ন রয়েছেন। ঢাকা থেকে খুলনাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস সকাল ৬টা ২০ মিনিটে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রায় সাড়ে সাত ঘণ্টা দেরিতে ট্রেনটি খুলনা থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা করে ভোর পৌনে ৪টায়।

অন্যদিকে ঢাকা-রাজশাহী রুটের ধূমকেতু এক্সপ্রেস সকাল ৬টায় কমলাপুর ছেড়ে যাওয়ার কথা থাকলেও সাড়ে ১১টা পর্যন্ত রাজশাহী থেকেই যাত্রা করেনি। রংপুরগামী রংপুর এক্সপ্রেস সকাল ৯টায় ছেড়ে যাওয়ার কথা থাকলেও ৩ ঘণ্টা দেরিতে দুপুর ১২টায় নতুন সময় দেওয়া হয়েছে। চিলাহাটির উদ্দেশে নীলসাগর এক্সপ্রেস কখন ছেড়ে যাবে তা এখনো জানে না স্টেশন কর্তৃপক্ষ।

বুধবার অগ্রিম টিকিটে ঈদ যাত্রার প্রথম দিন থেকেই উত্তর অঞ্চলের কিছু ট্রেন দেরিতে চলেছে। এর মধ্যে শুক্রবার টাঙ্গাইলে সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হওয়ায় ওই পথের চলা সব ট্রেনের সূচিতে পরিবর্তন আসে।

তবে কিছু ট্রেন পূর্ব নির্ধারিত সময়ের স্বল্প বিলম্বে কমলাপুর থেকে ছেড়ে যায়।

উত্তরবঙ্গগামী ট্রেনগুলোর মধ্যে সবচেয়ে কম দেরিতে ছাড়ছে ঢাকা থেকে পঞ্চগড়গামী একতা এক্সপ্রেস। সকাল ১০টার একতা এক্সপ্রেস ১০টা ২৫ মিনিটের দিকে স্টেশন ত্যাগ করে। সকাল ১০টা ২৫ মিনিটের কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস ও সকাল সাড়ে ১১টার ঈশা খাঁ এক্সপ্রেস শিডিউল অনুযায়ী চলছে।

পাঠকের মন্তব্য