ষ্টিমারে স্ত্রীকে হত্যার চেষ্টা ধাওয়া খেয়ে নদীতে ঝাঁপ দিলেন স্বামী

ষ্টিমারে স্ত্রীকে হত্যার চেষ্টা ধাওয়া খেয়ে নদীতে ঝাঁপ দিলেন স্বামী

ষ্টিমারে স্ত্রীকে হত্যার চেষ্টা ধাওয়া খেয়ে নদীতে ঝাঁপ দিলেন স্বামী

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে এমভি বাঙ্গালী স্টিমারের কেবিনে স্ত্রীকে হত্যার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে নিজের জীবন বাঁচাতে নদীতে ঝাঁপ দিয়েছেন ডালিম(৩০) নামের এক গার্মেন্ট কর্মী। স্থানীয় জেলেদের সহযোগীতায় ডালিমকে নদী থেকে উদ্ধার করে পুলিশে সোপর্দ করেছেন। স্ত্রী সাবিনা বেগমকে(২২) আহত অবস্থায় উদ্ধার করে মোরেলগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ডালিম উপজেলার কালিকাবাড়ি গ্রামের বাদশা হাওলাদারের ছলে। এ ঘটনায় সোমবার রাতে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

জানা গেছে, গাজীপুরে একটি গার্মেন্ট ফ্যাক্টরিতে চাকুরি করতেন ডালিম। ওই সময় একই ফ্যাক্টরিতে পরিচয় হয় বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার দড়িখাগা গ্রামের আব্দুস ছত্তার শেখের মেয়ে সাবিনার সাথে। পরকীয়ায় জড়িয়ে ডালিম নিজের স্ত্রী, সন্তানদের কথা গোপন রেখে বিয়ে করেন তাকে। স্ত্রী সাবিনার দাবিতে ঈদের ছুটিতে শনিবার বিকেলে তাকে নিয়ে স্টিমারযোগে রওয়ানা হন মোরেলগঞ্জের উদ্দেশে।

রোববার দুপুর ২টার দিকে মোরেলগঞ্জ স্টেশনে পৌছানোর প্রায় আধাঘন্টা পূর্বে সন্ন্যাসী এলাকায় ষ্টিমারটি থাকাবস্থায় কেবিনের মধ্যে বসে সাবিনার গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে হত্যার চেষ্টা করেন ডালিম। এ সময় সাবিনা চিৎকার দিলে অন্যান্য যাত্রীরা কেবিনের সামনে জড়ো হয়ে দরজা ধাক্কাতে শুরু করেন। এক পর্যায়ে দরজা খুলে দৌড়ে স্টিমারের ছাদে গিয়ে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে পালানোর চেষ্টা করে ডালিম। কিন্তু সে ব্যর্থ হয়। জেলেদের সহযোগীতায় স্থানীয়রা তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। সাবিনা বেগম বলেন, ‘ডালিম আমার সাথে প্রতারণা করেছে। এক পর্যায়ে হত্যা করতে চেয়েছে। আমি আর ওর সাথে সংসার করতে চাইনা। সে আমাকে হত্যা করার উদ্দেশেই স্টিমার এম ভি বাঙ্গালীর কেবিন রিজার্ভ করেছিল তা আমি বুঝতে পারিনি। আমি তার দৃষ্টন্তমূলক বিচার চাই’।

এ বিষয়ে থানা অফিসার ইন চার্জ ওসি (তদন্ত) ঠাকুর দাশ মন্ডল বলেন, সাবিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে এমন অভিযোগে মামলা হয়েছে। ডালিমকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। সাবিনাকে তার অভিভাবকদের কাছে পাঠানো হয়েছে। 
 

পাঠকের মন্তব্য